• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৪০ অপরাহ্ন |

তিস্তা সেচ প্রকল্পের পানি নিয়ে বিপাকে পাউবো

LALMONIRHAT TISTA NEWS-10.03.2014
হাসান মাহমুদ, লালমনিরহাট: ভারত এক তরফা ভাবে গজল ডোবা ব্যারেজের সব গুলো গেট বন্ধ করে দেওয়ায় তিস্তা নদীর পানি প্রবাহ একে বারে কমে গেছে। লালমনিরহাটের হাতিবান্ধা উপজেলার দোয়ানীতে অবস্থিত দেশের সব চেয়ে বৃহৎতম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজ এলাকায় পানি প্রবাহ ৬ শত কিউসেকের নেমে এসেছে। খোদ ব্যারেজের সামনে বিশাল এলাকা জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে বালু চর। একদার প্রমত্তা তিস্তা নদী এখন খালে পরিনত হয়েছে। এ দিকে তিস্তা নদীর পানি সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে আসার কারণে ব্যারেজ কমান্ড এলাকার দেড় লাখ হেক্টর জমিতে পানি সেচ দিতে পারছে না পাউবো।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য মতে, বছরের এই সময়ে তিস্তায় সাড়ে ৫ হাজার কিউসেক পানি থাকার কথা। অথচ এখন মাত্র ৬ শত কিউসেক’র কিছু বেশি পানি আছে। যা চাহিদার ১০ দশমিক ৯০ ভাগ মাত্র। ফলে দেশের উত্তরাঞ্চলের নীলফামারী, রংপুর ও দিনাজপুর জেলার ১২ টি উপজেলার ৬০ হাজার ৫০০ হেক্টর জমি’র বোরোর আবাদ কেবল সেচের অভাবে মরতে বসেছে। কৃষকরা কষ্টের করা ফসল রক্ষায় ধরনা দিয়ে আসছেন পানি উন্নয়ন বোডের কাছে। ওইসব এলাকায় আঞ্চলিক সড়ক, মহা সড়কে বিভিন্ন সময়ে  কৃষকরা বিক্ষোভ করছেন।
সরে জমিনে গেলে দেখা যায়, তিস্তার বুক জুড়ে এখন শুধু চর আর চর। আবার কোথাও পানির গভীরতা, শ্রোতের বালাই নেই। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চুক্তি অনুযায়ী প্রতিবেশী রাষ্ট্রের চরম বৈরী আচরণ এর অন্যতম কারণ। বাংলাদেশ সীমান্তের লালমনিরহাট-নীলফামারী জেলার প্রায় ৬৫ কিলোমিটার উজানে কুচবিহার জেলার মেকলিগঞ্জ থানার গজল ডোবা নামক স্থানে ব্যারেজ দিয়ে এক তরফাভাবে তিস্তার পানি প্রত্যাহার, আবার কখনো সামান্য পানি ছেড়ে দিয়ে ভারত খরশ্রোতা তিস্তাকে বানিয়েছে পানির নালা। কখনো ব্যারেজের গেট খুলে দিয়ে অকাল বন্যায় ভাসায় বাংলাদেশকে।
তিস্তা সেচ প্রকল্প ব্যারেজ’র প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা প্রকৌশলী হাফিজুর রহমান জানায়, তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যার ব্যাপারে জেআরসির বৈঠকে তুলে ধরা হলেও আজও এর কূলকিনারা করা যায়নি। ১৯৯৬ সালের সমঝোতা অনুযায়ী শুকনো মৌসুমে ভারত ৪০ ভাগ, বাংলাদেশ ৩৫ ভাগ, এছাড়া স্বাভাবিক প্রবাহে ঠিক রাখতে ২০ ভাগ পানি ছাড়ার কথা থাকলেও আজও এর বাস্তবায়ন আলোর মুখ দেখেনি। পাউবো থেকে জানা গেছে, ১৯৯৬ সালে সমঝোতার পর আজও তিস্তার কপালে ১০ ভাগ পানি জোটেনি। অন্যদিকে চলতি মৌসুমে ভারত সীমান্তের গজল ডোবার ব্যারেজের সব গেট বন্ধ করে দেয়ায় গত শত বছরের ইতিহাসে এবার সবচেয়ে কম পানি পাওয়া যাচ্ছে।
জানা গেছে, ১৯৬১ সাল থেকে ১৯৯৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে তিস্তার পানি প্রবাহ ছিল চার হাজার ৬৭০ কিউসেক। সে তুলনায় চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে এর প্রবাহ ছিল মাত্র ৬ শত কিউসেক থেকে সামান্য বেশি। চলতি বছর নদীতে পানি শূন্যতা আর দীর্ঘদিন ধরে অনাবৃষ্টির কারণে এবারের বোরো আবাদ নিয়ে সীমাহীন দুশ্চিন্তায় পড়েছেন এ অঞ্চলের কৃষি নিভর সব শ্রেণির মানুষ। সেচ সঙ্কটের কারণে এবারের বোরো আবাদ অনেকটাই অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।
নীলফামারী, রংপুর, দিনাজপুর জেলার ১২ উপজেলায় ৮৬ হাজার ৭৫৯ হেক্টর জমিতে সেচ সুবিধা দেয়ার কথা থাকলেও মাত্র ৬০ হাজার ৫০০ হেক্টর জমি সেচ আওতায় আনা হয়েছে। এবারের বোরো আবাদের যে পরিমাণ জমি রয়েছে, এর জন্য সেচ ক্যানেলগুলোতে অন্তত তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার কিউসেক পানি দরকার। এবারের বোরো আবাদের জন্য মৌসুমের শুরুতেই কৃষক সমিতির মাধ্যমে প্রতি বিঘার জন্য ১৫০ থেকে ১৭০ টাকা হারে আগাম জমা নেয় পাউবো। কিন্তু নালায় পানি না থাকায় মৌসুমের চাহিদা পূরণের পানি দিতে ব্যর্থ হয়েছে পাউবো।
পানি উন্নয়ন বোর্ডে তিস্তা সেচ প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান জানান, রেশনিং পদ্ধতিতে পানি সরবরাহ করা হচ্ছে। সমস্যার পুরোপুরি সমাধান করা হয়তো যাবে না কিন্তু সকলেই পানি পাবে এইটুকু নিশ্চয়তা দেয়া যায়। বর্তমান সর্ব নিম্ন পর্যায়ে মাত্র ৬ শত কিউসেক পানি দিয়ে কিভাবে পানি সরবরাহ করা সম্ভব জানতে চাইলে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ