• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:১৬ অপরাহ্ন |

বদরগঞ্জ সোনালী ব্যাংক শাখায় তিন ঘন্টা লেনদেন বন্ধ

Badarganj Bank Photo 01সারোয়ার আলম সুমন, বদরগঞ্জ (রংপুর): সোনালী ব্যাংক বদরগঞ্জ শাখার ভবনের ভাড়া নিয়ে বিরোধের জের ধরে ভবন মালিক তিন ঘন্টা লেনদেন বন্ধ করে দেয়। সোমবার সকাল নয়টায় উপজেলা শহরের এলএসডি রোডস্থ সোনালী ব্যাংক শাখায় ভবন মালিক লোকজন নিয়ে প্রধান ফটকের সামনে দাঁড়িয়ে গ্রাহকদের প্রবেশে বাঁধা সৃষ্টি করে। সাধারণ গ্রাহকরা সকাল ৯টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত ৩ ঘন্টা লেনদেন করতে না পারায় ভোগান্তির মুখে পড়ে। এসময় স্থানীয় ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আগামী ১৫ দিনের মধ্যে বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিলে ভবন মালিক ঘটনাস্থল থেকে সরে যায়।
জানা যায়, বদরগঞ্জ পৌরশহরের রফিক উদ্দিনের ছেলে হেনা মোহাম্মদ ফেরদৌস ও তার অংশীদারদের সঙ্গে ১৯৯৭ সালে পৌরশহরের এলএসডি সড়কে মাসিক চার হাজার টাকার চুক্তিতে ৮ বছরের জন্য ঘর ভাড়া নেয় সোনালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। ওই চুক্তির মেয়াদ ছিল ২০০৫ সাল পর্যন্ত। চুক্তির মেয়াদ শেষ হলে নতুন করে নবায়ন করে আরো ৪ হাজার টাকা ভাড়া বৃদ্ধি করে ভবন মালিক। এদিকে হেনা মোহাম্মদ ফেরদৌসের বাবা রফিক উদ্দিন ১৯৯৮ সালে স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি বন্ধক রেখে (সিসি ঋন) ওই ভবনের ওপর সংশ্লিষ্ট ব্যাংক থেকে ১৪ লাখ টাকা ঋন নেন। যা বর্তমানে সুদে আসলে দাঁড়ায় ৭০ লাখ ৯৯ হাজার ৯৮৬ টাকা। রফিক উদ্দিন ওই ঋণের টাকা পরিশোধ না করে ঋণ গ্রহণের কয়েক বছর পর মারা যান। পরে রফিক উদ্দিনের ছেলে হেনা মোহাম্মদ ফেরদৌস ও তার অংশীদাররা ওই ঋণ পরিশোধ না করায় ভবন মালিকরা ব্যাংকের কাছে ঋণ খেলাপী হন। পরে ২০০৪ সালে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ অর্থ ঋণ আদালতে ভবন মালিকের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে চরম বিরোধ সৃষ্টি হয়। ব্যাংকের কাছে ২০০৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত জমা হওয়া ৩৫ লাখ ২৬ হাজার ৮৭৫ টাকা দাবী করেন ভবন মালিক। ২০০৬ সালে হেনা মোহাম্মদ ফেরদৌস ও তার অংশীদাররা ব্যাংকের ওই ঋণ পরিশোধ না করে, তাদের ভবন থেকে ব্যাংক উচ্ছেদের মামলা করেন। মামলাটি বর্তমানে আদালতে বিচারাধীন অবস্থায় রয়েছে। এ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার ভাড়া আদায়ের জন্য ৪৮ ঘন্টার আলটিমেটাম দেয় ভবন মালিক। গতকাল সোমবার ৪৮ ঘন্টার আলটিমেটাম শেষ হলে ওইদিন সকাল ১০ টায় ভবন মালিক ফেরদৌস ও তার ভাই লোকজন নিয়ে ব্যাংকের ভেতরে থাকা কর্মচারীদের কাজে বাঁধা দেন। এসময় ব্যাংকের কাজে আসা গ্রাহকদের ভেতরে যেতে দেয়নি ভবন মালিক। পরে স্থানীয় সুধীবৃন্দের উপস্থিতিতে দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনা করে ১৫ দিনের সময় নেন ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।
ভবন মালিক হেনা মোহাম্মদ ফেরদৌস বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমার জায়গা জমিতে অবৈধভাবে সোনালী ব্যাংকের শাখা পরিচালনা করে আসছে কর্তৃপক্ষ। তারা চুক্তি না করে ৩৫ লাখ ২৬ হাজার ৮৭৫ টাকা বাকি রেখেছেন। এ জন্য আলটিমেটাম দেওয়া হয়েছিল।
তিন ঘন্টা লেনদেন বন্ধ থাকার কথা স্বীকার করে সোনালী ব্যাংক বদরগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক মোস্তফা কামাল বলেন, আমি সবেমাত্র বদরগঞ্জ শাখায় যোগদান করেছি। সমস্যাটি উর্ধŸতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। শিঘ্রই সমাধান হয়ে যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ