• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১১:১৭ পূর্বাহ্ন |

তাসের দেশে ঝড়ো হাওয়ার কাঁপন

আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী:

Gaffar Chuduriরবীন্দ্রনাথের ‘তাসের দেশ’ যাঁরা পড়েছেন বা মঞ্চে দেখেছেন, তাঁদের কাছে বর্তমানে সৌদি আরবে যা ঘটছে, তাকে তাসের দেশে কালবোশেখির প্রকাশ বললে তাঁরা নিশ্চয়ই বিস্মিত হবেন না। এই ঝড়ের সূচনা হয়েছিল বহু আগে। ইরানের শাহের বা পাহলভি ডাইনেস্টির পতনের পর লন্ডনের সানডে টাইমস পত্রিকা একটি বিরাট প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল। তার শিরোনাম ছিল ‘হাউস অব সৌদ’ বা সৌদি রাজতন্ত্র আর কত দিন টিকবে? পত্রিকাটির মতে, ইরান ও সৌদি আরবের রাজতন্ত্রের মধ্যে বিরাট পার্থক্য ছিল। ইরানে ছিল চরিত্রে স্বৈরাচারী অথচ আধুনিক মনার্কি। অন্যদিকে সৌদি আরবে বিরাজ করছে স্বৈরাচারী ও অত্যন্ত মধ্যযুগীয় মনার্কি।
সানডে টাইমস প্রকাশ করেছিল এই হাউস অব সৌদেও ভেতরে-বাইরে থেকে ঘুণ ধরেছে। দুর্নীতি, অত্যধিক হারেমপ্রীতি, ধর্মের নামে সব ধরনের সামাজিক প্রগতির পথ রুদ্ধ করে রাখা, মধ্যযুগীয় ভোগবিলাস, ইসলামের নামে কট্টর ওয়াহাবি মতবাদের চর্চা, মধ্যপ্রাচ্যে মুসলিম স্বার্থবিরোধী ও পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদের তল্পিবাহকের ভূমিকা গ্রহণ, শিয়া-সুন্নি বিরোধ ঘটানো এবং আহমদিয়াদের অমুসলমান ঘোষণা করে বিশ্বে ইসলামী উম্মাহকে বহুধাবিভক্ত করে ফেলা; পবিত্র হজের সময় বিভিন্ন মুসলিম দেশের সঙ্গে বৈষম্যমূলক ব্যবহার, সৌদি রাজতন্ত্র রক্ষার জন্য ইসলামের নামে জঙ্গি ও সন্ত্রাসী মৌলবাদকে অস্ত্র ও অর্থের জোগান দেওয়া ইত্যাদি বহু কারণে হাউস অব সৌদ এখন বাইরে যতই শক্ত ভাব দেখাক, তার ভিতে ঘুণ ধরে গেছে। এই হাউসের পতন এখন সময়ের অপেক্ষা।
তাসের দেশে ঝড়ো হাওয়ার কাঁপন
সময়ের গতি ও পরিবর্তন যে রুখে রাখা যায় না, সৌদি আরবেও রাখা যায়নি, বরং কঠোর পর্দায় ঢাকা বাদশাহি পরিবারেও পরিবর্তনের ধাক্কা লেগেছে, তার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিল মাত্র কয়েক দশক আগেই। সৌদি রাজপরিবারের এক প্রিন্সেস বা রাজকুমারী একজন সাধারণ সৌদি নাগরিকের প্রেমে পড়েছিলেন। এটাকে শরিয়াহবিরোধী পাপ ও মৃত্যুদণ্ড পাওয়ার মতো অপরাধ ঘোষণা করা হয়। প্রিন্সেস ও তাঁর প্রেমিককে প্রকাশ্যে শরীরের অর্ধাংশ মাটিতে পুঁতে পাথর নিক্ষেপ করে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।
এক ব্রিটিশ ফটো জার্নালিস্টের হাতে কিভাবে এই হত্যাকাণ্ডের ছবি পৌঁছেছিল তা জানা যায়নি। তিনি সেই ছবিকে ভিত্তি করে একটি ফিল্ম তৈরি করেন, যার নাম ‘ডেথ অব এ প্রিন্সেস’। ছবিটির খবর সানডে টাইমসসহ কয়েকটি ব্রিটিশ পত্রিকা ফলাও করে প্রচার করে। ফলে ব্রিটেনের ওপর সৌদি বাদশাহরা অত্যন্ত রাগান্বিত হন। ব্রিটেনের সঙ্গে অর্থনৈতিক সহযোগিতা বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি তাঁরা দেন। ব্রিটেনের তৈল-স্বার্থ বিপন্ন হয়ে পড়ে। তখন টোরি সরকার ক্ষমতায়। মার্গারেট থ্যাচার ছিলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি সৌদি সরকারকে জানান, ব্রিটেনে সংবাদপত্র স্বাধীন। তাদের মত প্রকাশের স্বাধীনতায় সরকার হস্তক্ষেপ করতে পারে না। এ জন্য থ্যাচার সরকার দুঃখিত। এরপর স্বয়ং মার্গারেট থ্যাচার সৌদি বাদশাহদের ক্রোধ নিবারণের জন্য রিয়াদ সফর করেন। ধীরে ধীরে বিষয়টির নিষ্পত্তি ঘটে।
কিন্তু ‘ডেথ অব এ প্রিন্সেস’ ছবিটি বহির্বিশ্বে প্রচারিত হওয়ার পর লৌহ পর্দায় ঢাকা সৌদি আরবের অভ্যন্তরীণ অবস্থা আর ঢেকে রাখা যায়নি। ইরানে ইসলামী বিপ্লবের সময় সৌদি আরবের এই ভূমিকা আরো স্পষ্ট হয়ে ওঠে। এই বিপ্লব দমনের জন্য আমেরিকায় শিয়া-সুন্নি বিরোধ সৃষ্টির কাজে হাউস অব সৌদ সাহায্য জোগায়। হজের সময় ইরানি হাজিরা পবিত্র কাবা শরিফে মার্কিনবিরোধী স্লোগান দিলে সৌদি পুলিশ তাঁদের ওপর গুলি চালায় এবং প্রায় ৪০০-র মতো ইরানি নিহত হন।
আমেরিকার প্রথম ইরাকবিরোধী যুদ্ধে সৌদি আরব পবিত্র মক্কা শরিফের অদূরে মার্কিন সেনাদের ঘাঁটি স্থাপন করতে দেয় এবং নিজেরাও সাদ্দামবিরোধী যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। একটি মুসলিম দেশের বিরুদ্ধে আরেকটি মুসলিম দেশের এই অংশগ্রহণ মধ্যপ্রাচ্যে সৌদি আরবের ভাবমূর্তি বিশেষভাবে ক্ষুণ্ন করে। ইরানে হামলার জন্য ইসরায়েলকে সৌদি আরবের সহযোগিতা দান ও সিরিয়ায় আসাদ সরকারকে উৎখাতের জন্য অস্ত্র ও অর্থ জোগান দেওয়া হাউস অব সৌদের চেহারা এখন একেবারেই নগ্নভাবে খুলে দিয়েছে। এখন এই হাউসের প্রতি সহানুভূতিশীল বহু ব্রিটিশ ও মার্কিন পর্যবেক্ষকের ধারণা (তাঁদের ভাষায়) ‘If the collars of the House of Saud is not imminent, but it is inevitable’ (সৌদি রাজতন্ত্রের পতন আসন্ন না হলেও অনিবার্য)।
এর কারণ সম্পর্কে এই পর্যবেক্ষকরা যা বলেন, তা হলো সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন যেমন আয়রন কার্টনে নিজেকে ঢেকে রেখেও বাঁচতে পারেনি, তেমনি সৌদি বাদশাহরা মধ্যযুগীয় ধর্মান্ধতার অচলায়তনে দেশটাকে বেঁধে রাখতে চেয়েও সময়ের পরিবর্তনে তা পারেননি। পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদও তাদের অচলায়তন রক্ষায় সাহায্য জুগিয়ে তা পারেনি। তাদের সংস্পর্শে এসে সৌদি আরবে তৈলস্বার্থের বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে যে আধুনিক শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সামাজিক প্রগতি ও নবপ্রযুক্তির উন্মেষ ঘটেছে, তা সাধারণ সৌদিদের মধ্যে যেমন একটি শিক্ষিত ও সচেতন মধ্যবিত্ত শ্রেণীর বিকাশ ঘটিয়েছে; তেমনি একটি শিক্ষিত ও আধুনিকমনা নারীসমাজও গড়ে তুলেছে। তারা এখন অবরোধ থেকে মুক্তি চায়।
এই শিক্ষিত নারীরাই মধ্যযুগীয় ধর্মীয় কুসংস্কার ও আচার-আচরণের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করেছে। এত দিন সৌদি আরবে নারীদের উচ্চশিক্ষা গ্রহণ, এমনকি একা রাস্তায় (কোনো পুরুষ সঙ্গী না নিয়ে) গাড়ি ড্রাইভ করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ ছিল। কয়েকজন শিক্ষিত নারী আইন ভঙ্গ করে সেই শাস্তি মাথা পেতে নিয়েছেন, তথাপি আইন মানতে চাননি। এই খবর সারা বিশ্বে ছড়ালে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। এই প্রতিবাদের মুখে সৌদি বাদশাহরা এখন ক্রমশ পিছু হটতে বাধ্য হচ্ছেন। এখন নিয়ন্ত্রিত সংসদে নারীদের সদস্য হওয়া, বিভিন্ন পেশার উচ্চপদে নারীদের চাকরি করার ব্যাপারে আগের কঠোর নিয়ন্ত্রণ ক্রমশ শিথিল হচ্ছে।
সৌদি বাদশাহরা প্রায় প্রত্যেকেই ডজন ডজন সন্তান জন্ম দেওয়ার ফলে এই পরিবার বিশাল আকারের ও এই পরিবারের লোকরা অসামরিক ও সামরিক সব শীর্ষ পদ দখল করে রাখায় এই রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের অভ্যুত্থান ঘটা সম্ভব নয় বলে অনেকে মনে করতেন। কিন্তু শিক্ষা ও আধুনিকতার প্রসারের ফলে এই পরিবারের মধ্যেও পরিবর্তনের ঝড়ো হাওয়ায় কাঁপন লেগেছে। বর্তমান বাদশাহ আবদুল্লাহর চার শিক্ষিত মেয়ে যে বাপের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়ে স্বাধীন ও অবরোধমুক্ত জীবনযাপন করতে চান- এ খবরটি এখন লন্ডনের সানডে টাইমসের কৃপায় বিশ্বময় ছড়িয়ে পড়ায় আবার চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। বাদশাহ আবদুল্লাহর বয়স ৯০ বছরের মতো। তিনি বহুবিবাহ করেছেন। বর্তমান সন্তান সংখ্যা কমপক্ষে ৩৮ জন। তিনি বিশ্বের সেরা ধনী। গত ৯ মার্চের সানডে টাইমস পত্রিকা ফলাও করে খবর ছেপেছে, বাদশাহ তাঁর চার মেয়েকে (সবাই প্রাপ্তবয়স্ক) ২০০১ সাল থেকে ১৩ বছর ধরে বিভিন্ন ভিলায় বন্দি করে রেখেছেন। কঠোর পাহারার মধ্যে থেকেও তাঁরা সানডে টাইমসের কাছে ই-মেইল পাঠিয়ে তাঁদের অবস্থার কথা জানিয়েছেন এবং তাঁদের উদ্ধার করার জন্য জাতিসংঘ থেকে শুরু করে মানবাধিকার কমিশনের সাহায্য চেয়েছেন।
এই চার কন্যার একজন প্রিন্সেস শহর, বয়স ৪২। দ্বিতীয়জন প্রিন্সেস জওয়াহের, বয়স ৩৮। তৃতীয় প্রিন্সেস হালা, বয়স ৩৯ ও চতুর্থ প্রিন্সেস মাহা, বয়স ৪১ স্বতন্ত্র ভিলায় আটক আছেন। দিনের পর দিন প্রায় বন্দিদশায় থাকায় তাঁরা গুরুতর অসুস্থ। তাঁদের মা আলা নউদ আলকায়েজের বয়স যখন ১৫ বছর, তখন বাদশাহ আবদুল্লাহ তাঁকে বিয়ে করেন। পরে তাঁকে তালাক দেন। তিনি এখন লন্ডনে বসবাস করেন। এই সাবেক বাদশাহপত্নী জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের হাইকমিশনারের কাছে চিঠি লিখে তাঁর কন্যাদের মানবেতর জীবনযাপন ও মৃত্যু-আশঙ্কা থেকে রক্ষা করার আবেদন জানিয়েছেন।
প্রিন্সেস শহর লিখেছেন, তাঁদের রাজপরিবারের এত বিত্ত-বৈভব, কিন্তু সাধারণ সৌদি নাগরিকদের মধ্যে ভয়াবহ দারিদ্র্য প্রকট দেখে তিনি তাঁর বাবা বাদশাহ আবদুল্লাহর কাছে বিষয়টি উত্থাপন করেছিলেন। তাতে বাদশাহ তাঁর ওপর ক্ষুব্ধ হন। এই রাজকন্যারা আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত এবং আধুনিক জীবনযাপন করতে চান। তাঁরা প্রাসাদে সমবয়সীদের নিয়ে পার্টি করেন, ফ্রেঞ্চ আলপসে স্কি করতে যান। এটাই ছিল তাঁদের অপরাধ। ফলে তাঁদের প্রাসাদসংলগ্ন বিভিন্ন ভিলায় কঠোর পাহারায় বন্দিজীবন যাপন করতে বাধ্য করা হয়েছে। ১৩ বছর ধরে চলছে এই বন্দিজীবন।
সৌদি আরবের এক রাজকন্যাকে নিয়ে তৈরি ‘ডেথ অব এ প্রিন্সেস’ ছবিটি যেমন একসময় সারা বিশ্বে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছিল, তেমনি চার বন্দিনী সৌদি প্রিন্সেসের কাহিনী সারা বিশ্বে অনুরূপ চাঞ্চল্য সৃষ্টি করতে চলেছে। তাঁরা অভিযোগ করেছেন, রাজকুমারী হওয়া সত্ত্বেও তাঁরা যেভাবে কখনো জেলে, কখনো মানসিক হাসপাতালে থেকে নানা ধরনের নির্যাতন সহ্য করেছেন, তাতে বুঝতে পারেন সাধারণ সৌদি নাগরিকদের ওপর কী ধরনের নির্যাতন চলে। প্রিন্সেস হালা বলেছেন, রাজনৈতিক বন্দিদের সম্পূর্ণ অবৈধভাবে হাসপাতালের মানসিক রোগীদের ওয়ার্ডে ঢুকিয়ে অপরাধীদের মতো নির্যাতন করা হয়। ১৯৯৮ সালে তাঁকে রিয়াদে মহিলাদের কারাগারে আটক রাখা হয়। তাঁর অপরাধ ছিল তিনি গাড়ি ড্রাইভ করে মরু এলাকায় গিয়েছিলেন।
মাত্র চার রাজকন্যার কাহিনী বাইরের জগতে প্রকাশ পেয়েছে। কিন্তু প্রতিবাদের ঝড় বাড়ছে হাউস অব সৌদের একেবারে অন্দরমহলেই। এই ঝড় থেকে এই ডাইনেস্টি কত দিন টিকে থাকতে পারবে, সেটাই এখন প্রশ্ন। অনেকে মনে করেন, সোভিয়েত ইউনিয়নের মতো সৌদি রাজতন্ত্রেরও একদিন আকস্মিক বিপর্যয় ঘটবে এবং গোটা মুসলিম বিশ্বে যে অন্তর্ঘাত, শিয়া-সুন্নি বিরোধ, আত্মঘাতী সন্ত্রাস ও মধ্যযুগীয় ধর্মান্ধতায় প্রত্যাবর্তনের জঙ্গি আন্দোলনগুলো চলছে, তা নিরুৎসাহিত হবে এবং নতুন করে আধুনিক গণতন্ত্রের হাওয়ায় মুসলিম দেশ, বিশেষ করে আরব দেশগুলোর নবজাগরণ শুরু হবে। এটা এখন সময়ের অপেক্ষমাত্র।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ