• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১৯ পূর্বাহ্ন |

পূর্বাঞ্চলে ১ হাজার লেভেল ক্রসিং অরক্ষিত

image_81288_0চট্টগ্রাম: ট্রেন নিরাপদ ও আরামদায়ক বাহন হলেও চালকের অসতকর্তা, সিগন্যাল অমান্য, লেভেল ক্রসিংয়ে গেটম্যান না থাকা ও অবৈধ ক্রসিংয়ের কারণে দুর্ঘটনায় প্রতিনিয়ত প্রাণহানী হচ্ছে। তবে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ এসব দুর্ঘটনার জন্য বরাবরই অবৈধ রেল ক্রসিংকে দায়ী করা হলেও সাম্প্রতিক সময়ে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলে বড় ধরনের দুটি প্রাণহানীর ঘটনা ঘটেছে বৈধ ক্রসিংয়েই। এখন প্রশ্ন উঠছে এসব প্রাণহানীর দায় কার?

২০১২ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের সীতাকুণ্ডের বাড়বকুণ্ড রেলগেটের বৈধ লেভেল ক্রসিংয়ে কর্ণফুলী এক্সপ্রেসের ধাক্কায় রাষ্ট্রায়ত্ত গাড়ি প্রস্তুতকারী কোম্পানি প্রগতি ইন্ডাস্ট্রিজের একটি জিপে থাকা ৫ জন নিহত ও ২ জন আহত হয়।

এ ঘটনার পর তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী বৈধ লেভেল ক্রসিংগুলোয় গেটম্যান নিয়োগ ও বেশকিছু অবৈধ লেভেল ক্রসিংকে বৈধতা দেয়ার সিদ্ধান্ত হলেও তা এখনো বাস্তবায়ন হয়নি।

এরই মধ্যে মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রামের ষোলশহর-দোহাজারী রেলপথের বাহির সিগন্যাল রেলওয়ের লেভেল ক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় মিনিবাসে থাকা পোশাক কারখানার চার নারী শ্রমিক নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে আরো ৭ জন। এই লেভেল ক্রসিংটি রেলওয়ের অনুমোদিত বৈধ ক্রসিং হলেও ছিল না কোনো গেটম্যান।

রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, পূর্বাঞ্চলে লেভেল ক্রসিংয়ের সংখ্যা হচ্ছে ১ হাজার ২৪৬টি। এরমধ্যে বৈধ লেভেল ক্রসিং রয়েছে ৪৩৪টি, অবৈধ ক্রসিংয়ের সংখ্যা ৮১২টি। স্থায়ী গেটম্যান রয়েছে ১৭৬ জন। এর বাইরে কর্মরত গেটম্যান রয়েছে আরো ৬৯ জন। মোট ১ হাজার ২৪৬টি লেভেল ক্রসিংয়ে গেটম্যান রয়েছে মাত্র ২৪৫ জন। বাকি ১০০১টি লেভেল ক্রসিং সম্পূর্ণ অরক্ষিত।

অবৈধ ক্রসিংয়ে গেটম্যান থাকার সুযোগ নেই। আর ৭৮০টি গেটম্যানের পদের মধ্যে শূন্য পদ রয়েছে ৫৪২টি। অস্থায়ী ভিত্তিতে কিছু গেটম্যান রয়েছে। অস্থায়ী গেটম্যানকে মাসে দেয়া হয় ২ হাজার ৩৫০ টাকা। তাই এদের অনেকে এটিকে গুরুত্ব না দিয়ে পাশাপাশি অন্য কাজ করেন। এ জন্যই ট্রেন আসার সময় নিজ কর্মস্থলে না থাকার কারণে সীতাকুণ্ডের বাড়বকুণ্ডে জিপ-ট্রেন দুর্ঘটনায় পাঁচজন নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছিল।

তবে অরক্ষিত ক্রসিংয়ের মধ্য থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় ৪২০টি ক্রসিংকে বৈধতা প্রদানের জন্য গত ২০১২ সালের মার্চে রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের ১২৫টি লেভেল ক্রসিং গেটের মানোন্নয়নে এবং ২৯৫টি অবৈধ লেভেল ক্রসিং গেট বৈধকরণের লক্ষ্যে ১০৭ কোটি ১৮ লাখ টাকার ডিপিপি পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়। গত ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত পিইসি সভায় একটি সমীক্ষা পরিচালনাপূর্বক পাইলট প্রকল্প গ্রহণের সিদ্ধান্ত হলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি এখনো।

বাড়কুণ্ডে ওই দুর্ঘটনার পর সরকার রেলওয়ের নেটওয়ার্কে লেভেল ক্রসিং গেটের বর্তমান অবস্থা নিয়ে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় পাঁচটি সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। সিদ্ধান্তগুলো হলো- গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ও মহাসড়ক রেল ক্রসিংয়ের পরিবর্তে গ্রেড সেপারেশন (ফ্লাইওভার, ওভারপাস, আন্ডারপাস) নির্মাণ করা। অনুমোদনহীন ক্রসিংগুলো অনুমোদনের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ রেলকে নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের দেয়া, ভবিষ্যতে রেলের অনুমতি ছাড়া রেল ক্রসিং নির্মাণ না করা। অননুমোদিত রেল ক্রসিং বন্ধ করা নিয়ে নির্মাণকারী সংশ্লিষ্ট সংস্থা ও রেলওয়ের যৌথ জরিপ এবং অনুমোদিত ক্রসিংগুলো রক্ষণাবেক্ষণের জন্য সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক/এলজিইডি/সংস্থার সহায়তা নেয়া।

তবে মন্ত্রণালয়ের ওই সিদ্ধান্ত এখনো বাস্তাবায়ন না হয়ে ফাইলবন্দীই রয়ে গেছে। এরমধ্যে বাড়বকুণ্ডের পর বৈধ ক্রসিংয়ে দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে আরো চারজন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ট্রেন দুর্ঘটনায় রেলওয়ের আইনানুযায়ী বিভিন্ন শাস্তির বিধান রয়েছে। গঠিত তদন্ত কমিটির ওপর ভিত্তি করে ওই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা করা হয়। ট্রেন দুর্ঘটনায় দায়িত্বপালনকারী ব্যক্তিকে সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয় এবং তার সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করার বিধান রয়েছে। আবার কিছু ক্ষেত্রে চাকরি থেকে অবসরে পাঠানো হলেও পেনশন ও অন্যান্য সুবিধাগুলো দেয়া হয়। দোষী ব্যক্তির ৬ মাস থেকে ২ বছরের বেতন স্থগিত করা হয়। পদাবন্নতি করা, তিরস্কার করা ও সর্তক করার বিধান রাখা হয়েছে। কিন্তু আইনে এসব থাকলেও এর কোনো কার্যকারিতা কিংবা যথাযথ প্রয়োগ হয়নি কখনো।

এ প্রসঙ্গে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বিভাগীয় ব্যবস্থাপক এস এম মুরাদ  বলেন, ‘বৈধ লেভেল ক্রসিং ও অবৈধ লেভেল ক্রসিংগুলোর মানোন্নয়ন ও বৈধতা দিতে একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি। লোকবল সঙ্কটের কারণে বৈধ লেভেল ক্রসিংগুলোয় গেটম্যান দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ