• বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১০:০২ অপরাহ্ন |

বিরামপুর বিএনপির সংবাদ সম্মেলন

Pressদিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুর প্রেসক্লাবে বিরামপুর উপজেলা বিএনপি সংবাদ সম্মেলন করেছে। গত ২৭ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত বিরামপুর উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি’র বিদ্রোহী পরাজিত প্রার্থী মঞ্জুর এলাহী চৌধুরী ৬ মার্চ বিরামপুর দলীয় কার্যালয়ের সামনে সংবাদ সম্মেলনে বিরামপুর উপজেলা বিএনপি, পৌর বিএনপি ও সকল অঙ্গ সংগঠন সম্পর্কে যে মন্তব্য করেছেন তার প্রতিবাদে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে রিবামপুর উপজেলা।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, পরাজিত প্রার্থী মঞ্জুর এলাহী চৌধুরী রুবেল ও মোঃ তোছাদ্দেক হোসেন তোছা কতিপয় উৎশৃংখল যুবক নিয়ে সন্ত্রাসী কায়দায় গত ১ ফেব্রুয়ারী বিরামপুর উপজেলা বিএনপি কার্যালয়ের তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে চেয়ার টেবিল ও আসবাবপত্র ভাংচুর ও অফিসের মূল্যবান আসবাবপত্র তছনছ এবং দলীয় কার্যালয়ের সাইনবোর্ড অপসারণ করে। এঘটনায় উপজেলা ও পৌর বিএনপির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাকর্মী ও সমর্থকরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে তাদের দল থেকে বহিষ্কার করা উচিত বলে মন্তব্য করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।
সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা বিএনপির সভাপতি আশরাফ আলী মন্ডল, পৌর বিএনপির সভাপতি আজাদুল ইসলামসহ দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে আলোচনা হয়। যেখানে উপজেলা, পৌর, ৭টি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ২৪ জানুয়ারী যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানেও উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের সভাপতি ওসাধারণ সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন। ওই সভায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে আগ্রহীদের নাম চাওয়া হলে চেয়ারম্যান পদে ৫জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে একজনের নাম প্রস্তা করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, প্রস্তাবিত প্রার্থীদের মধ্য হতে কাকে মনোনয়ন দেয়া যায় এ নিয়ে দীর্ঘ আলোচনার পর সিদ্ধান্ত না হওয়ায় ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডের নির্বাহী কমিটির সদস্যদের নিয়ে ভোট করার প্রস্তাব দিলে রুবেল চৌধুরী প্রতিবাদের কারণে ওই দিনের সভা স্থগিত করা হয়। ৩০ জানুয়ারী আবারো সন্ধ্যায় আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে জামায়াত নেতৃবেন্দর সাথে আলোচনা হয়। সেখানেও কতিপয় উশৃংখল ছেলেপেলের কারণে ওই সভাপটিও পন্ড হলে ৩১ জানুয়ারী পুনরায় আলোচনা হয়। সেই সভায় ৩ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী বৃহত্তর স্বার্থে দবিরুল ইসলামকে সমর্থন করেন। কিন্তু রুবেল চৌধুরী দবিরুল ইসলামের মধ্যে কোন সমঝোতা না হওয়ায় বিষয়টি জেলা বিএনপির সভাপতি লুৎফর রহমান মিন্টুকে অবগত করা হয়।  কিন্তু তিনিও কোন সমঅদান দিতে পারেননি।
এর মধ্যে ৭ জানুয়ারী বিএনপির রংপুর বিভাগীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ আসাদুল হাবি দুলুর উপস্থিতিতে জেলা বিএনপি কার্যালয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বৈঠকে বিএনপির একক প্রার্থী মনোনয়ন করতে ৭ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি করা হয়। যার মধ্যে ছিলেন জেলা বিএনপির সভাপতি লুৎফর রহমান মিন্টু,সাধারণ সম্পাদক মকুর চৌধুরী, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আখাতারুজ্জামান মিয়া, এজেডএম রেজওয়ানুল হক, রেজিনা ইসলাম, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মাহবুব আহেমদ ও সাংগঠনিক হাসানুজ্জামান উজ্জল। এই ৭ জনের মধ্যে গোপনে মুকুর চৌধুরীকে ম্যানেজ করে রুবেল চৌধুরী চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দেন এবং নির্বাচনে অংশগ্রহন করেন।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, আওয়ামী লীগের সাথে এক মঞ্চে বসা মঞ্জুর এলাহী রুবেল, তোছাদ্দেক হোসেন তোছা, রেজাউর করিম রেজুকে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন।  তাই দলীয় শঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে তাদের দল থেকে বহিষ্কারের দাবী জানানো হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ