• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪৪ পূর্বাহ্ন |

৫১০৮ প্রবাসী শ্রমিকের অস্বাভাবিক মৃত্যু

Parlamentঢাকা: মহাজোট সরকারের মেয়াদে (২০০৯ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত) বিদেশে কর্মরত পাঁচ হাজার ১০৮ শ্রমিকের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে বলে সংসদকে জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

মঙ্গলবার দশম জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনের ২০তম কার্যদিবসে জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী সংসদকে এ তথ্য জানান।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘গত পাঁচ বছরে বিদেশে কর্মরতদের মধ্যে ১১ হাজার ৬৮১ জনের স্বাভাবিক ও ৫ হাজার ১০৮ জনের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। বছরে গড়ে দুই হাজার ৩৩ জনের স্বাভাবিক ও ১ হাজার ২২ জনের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে।’

একই প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী সংসদকে জানান, মৃত্যুবরণকারী বাংলাদেশিদের মধ্যে ১৩ হাজার ৪১৪ কর্মীর মরদেহ দেশে আনা হয়েছে। প্রবাসে অস্বাভাবিক মৃত্যুবরণকারী বাংলাদেশি কর্মীদের মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণের জন্য মোট ১ হাজার ৩০৮টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে ৯৬৮টি ক্ষতিপূরণ মামলা অমীমাংসিত রয়েছে এবং ৩৪০টি মামলার মীমাংসা হয়েছে।

সংসদে দেয়া এক তালিকা থেকে দেখা যায়, গত পাঁচ বছরে সৌদি আরবে স্বাভাবিক ও অস্বাভাবিকভাবে বাংলাদেশি কর্মীর মৃত্যু বেশি। দেশটিতে পাঁচ বছরে চার হাজার ৭২৪ কর্মীর স্বাভাবিক ও দুই হাজার ৩৯৬ কর্মীর অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। দেশটিতে মোট মৃত্যুবরণকারী ৭ হাজার ১২০ জনের মধ্যে দেশে আনা হয়েছে তিন হাজার ৮৮৩ জনের মরদেহ।

সংসদ সদস্য মো. ছলিম উদ্দীন তরফদারের এক প্রশ্নের জবাবে খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘ইউরোপের বিভিন্ন দেশসহ বিশ্বের ১৫৯টি দেশে বাংলাদেশ থেকে কর্মী পাঠানো হয়। এর মধ্যে ইউরোপের ৩৪টি দেশে কর্মী পাঠানো হয়। বৈধভাবে এ পর্যন্ত ৮৭ লক্ষাধিক কর্মী বিদেশে কর্মরত আছে।’

আরেক সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের এক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক প্রচেষ্টা এবং মন্ত্রণালয়ের কূটনৈতিক প্রচেষ্টার ফলে ইতোমধ্যেই মালয়েশিয়ায় ২ লাখ ৬৭ হাজার ৮০৩ জন এবং সৌদি আরবে প্রায় ৮ লাখ অবৈধ কর্মীকে বৈধকরণের আওতায় আনা সম্ভব হয়েছে।’

একেএম মাইদুল ইসলামের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘অবৈধভাবে বসবাস করার অভিযোগে মালয়েশিয়ায় চলতি বছর ২৮ ফেব্রুয়ারির সংগৃহীত তথ্য মতে জেলখানা ও ১১টি ক্যাম্পে মোট ১ হাজার ৩০৯ বাংলদেশি আটক রয়েছে। এদের মধ্যে ৪২৩ জন জেলে এবং ৮৮৬ জন ক্যাম্পে আটক রয়েছে।’

মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী ও এমএ হান্নানের পৃথক দুটি প্রশ্নের উত্তরে খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘বিগত পাঁচ বছরে বাংলাদেশ থেকে ১৫৯টি দেশে মোট ২৪ লাখ ৫১ হাজার ৯৩ কর্মী প্রেরণ করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরের (২০১৩-১৪) ৫ মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মোট ২ লাখ ৬২ হাজার ৭০৬ কর্মী পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে ১ লাখ ২৮ হাজার ৭২৬ দক্ষ ও ১ লাখ ৩৩ হাজার ৯৮০ অদক্ষ শ্রমিক।’

সংসদে মন্ত্রীর দেয়া তথ্যানুযায়ী চলতি অর্থবছরে ওমানে সর্বাধিক ৮৩ হাজার ৪১০ কর্মী পাঠানো হয়েছে। এছাড়া কাতারে ৪২ হাজার ৯৫, সিঙ্গাপুরে ৩৮ হাজার ৪৫১, মালদ্বীপে ১৬ হাজার ৮২৪, বাহরাইনে ১৪ হাজার ৬৮১, জর্ডানে ১২ হাজার ৮৬৬ শ্রমিক পাঠানো হয়েছে।

হাবিবুর রহমান মোল্লার এক প্রশ্নের জবাবে খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত বৈধ রিক্রুটিং এজেন্সির সংখ্যা বর্তমানে ৮৫৯টি। তালিকা বর্হিভূত কোনো রিক্রুটিং এজেন্সি নাই। তবে বেসরকারি বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অনুমোদিত কিছু কিছু ট্রাভেল এজেন্সি বিদেশে কর্মী পাঠানোর সঙ্গে অবৈধভাবে সম্পৃক্ত হয়ে থাকে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ