• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১১:৪৫ পূর্বাহ্ন |

রাজিবপুরে দেশীয় মাছ সোনার হরিন

01আব্দুল্লাহ খান ফয়েজী, রাজিবপুর (কুড়িগ্রাম): রাজিবপুর উপজেলার হাট বাজারগুলোতে আমিষ জাতীয় খাদ্য দেশীয় মাছের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে । শুষ্ক মৌসুমে খাল-বিল, নদীনালা শুকিয়ে যাওয়ায় মাছের এ আকাল। এ ছাড়াও গত বছর চাষকৃত পুকুরেও মাছের ফলন ভাল হয়নি। সামান্য কিছু ডোবা নালায় দেশীয় মাছ পাওয়া গেলেও বাজারে এর মূল্য আকাশচুম্বী। আর এ সুযোগে জেলেরা মাছের দাম হাকাচেছন ইচ্ছেমত। অপরদিকে মধ্যসত্বভোগী ও মহাজনদের দাপট এখন চরমে। দেশীয় মাছ বাজারে আসার সাথে সাথে ব্যবসায়ীরা জেলেদের নিকট থেকে ক্রয় করে তা চরা দামে  সাধারনের কাছে বিক্রি করছে। ফলে অনেক হাত ঘুরে এককেজি মাছের মূল্য কয়েকগুণ বেড়ে যাচ্ছে। রৌমারী রাজিবপুরের বাজারে বর্তমানে  প্রতিকেজি চিংড়ির দাম ৬’শ টাকা, বোয়াল ৪’শ টাকা, রুই, কাতলা, মৃগেল, পুটিসহ কার্প জাতীয় মাছ ২’শ থেকে আড়াই’শ টাকা, পাঙ্গাস, মাগুর, টাকি ও অন্যান্য মাছের দাম ১৫০ থেকে ২’শ টাকা । এছাড়াও নদী থেকে ধরা ছোট মাছ যেন সোনার হরিণ। খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের হাতে নগত অর্থ না থাকায় মাছের দাম শুনতেও যেন ভয় পাচ্ছেন। বিগত বছরগুলোতে শুস্ক মৌসুমেও ছোট ছোট নদী, খাল-বিলে পর্যাপ্ত দেশিয় মাছ পাওয়া যেত। এখন আর সেই দিন নেই। কারন হিসাবে দেখা যায়, ডোবা ও পুকুরগুলোতে রেনু পোনার চাষ করতে দেশীয় মাছ কীটনাশক ব্যবহারে ধ্বংস করা হচ্ছে। মৎস্য চাষীদের এভাবেই প্রতিক্ষণ দেয়া হচ্ছে মৎস্য ও যুবঅফিস থেকে। ফলে দেশিয় প্রজাতির মাছসহ উপকারী পোকামাকড় ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে।তাই এখন দরকার দেশীয় মাছ রক্ষার প্রশিক্ষন ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ