• মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:০৪ পূর্বাহ্ন |

নতুন ছকে আওয়ামী লীগ

Awamili Flagসিসি ডেস্ক: বিতর্কিত ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর জনগণের দৃষ্টি অন্যদিকে ফেরাতে তড়িঘড়ি করে উপজেলা নির্বাচনের আয়োজন করেছে ক্ষমতাসীনরা। উপজেলা নির্বাচনের দুই ধাপেই পরাজয়ের পর বাকি ধাপগুলোতে জয় পেতে নতুন ছকে মাঠে নামছে আওয়ামী লীগ।
তৃতীয় ধাপে জয়ের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে দলের সাংগঠনিক সম্পাদকদের নিজেদের এলাকায় পাঠিয়েছেন দলের নীতি নির্ধারকরা। উপজেলা নির্বাচনে দল সমর্থিত প্রার্থীদের সঙ্গে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেয়া ও দলীয় কোন্দল মিটিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থীদের বসিয়ে দেয়াই তাদের কাজ। এছাড়াও দলীয় হাইকমান্ড থেকে কেন্দ্রীয় ও তৃণমূল পর্যায়ের নেতাদের কিছু মৌখিক নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলেও দলীয় সূত্রে জানা গেছে।
এদিকে যোগাযোগমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটি বাকী ৩ ধাপ নির্বাচনী এলাকায় দলীয় প্রার্থী নির্বাচনের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে কাজ করছে।
পরপর দু’টি উপজেলা নির্বাচনে পরাজয়ের কারণ হিসেবে দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থীদের উপর দায়ভার চাপাচ্ছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা। ইতোমধ্যে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে উপজেলা পর্যায়ের কয়েকজন নেতাকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।
বাকি নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীদের বসিয়ে দিতে কেন্দ্র থেকে মনিটরিং করছে কেন্দ্রীয় নেতারা। বিদ্রোহী প্রার্থীদের বসিয়ে দিয়ে বাকি ধাপগুলোতে যেকোন মূল্যে জয় পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে শাসক দল।
এদিকে আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সহ-সম্পাদকদের দলের পক্ষ থেকে নির্দেশনা দিয়ে এলাকায় পাঠানো হয়েছে। যে সব এলাকায় নির্বাচন রয়েছে তারা প্রত্যেকে নিজ নিজ এলাকায় গিয়ে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করবেন।
আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন টাইম নিউজবিডিকে বলেন, উপজেলা নির্বাচনে দলীয় সমর্থন থাকলেও মূলত এ নির্বাচন নির্ভর করে অঞ্চল, পারিবারিক ও স্থানীয় রাজনীতির উপর।
তিনি আরও বলেন, উপজেলা নির্বচনের ১ম ও ২য় ধাপে আমাদের বিদ্রোহী প্রার্থী থাকার কারণে কম আসন পেয়েছি। এবার কেন্দ্রীয় ভাবে বিদ্রোহী প্রার্থীকে বসিয়ে দেয়া এবং নির্বাচনকে সার্বক্ষনিক মনিটরিং করা হবে। আমাদের দ্বায়িত্ব হলো ২টি। নির্বাচনকে স্বচ্ছ করা ও যেকোন মূল্যে দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করে আনা। বাকি ধাপগুলোতে জয়ের জন্য আমরা আশাবাদী।
আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত বলেন, উপজেলা নির্বাচন লোকাল নির্বাচন এটা মাঠ পর্যায়ে হয়। এর সঙ্গে জাতীয় নির্বাচনের কোন সম্পর্ক নেই। উপজেলা নির্বাচনের গত দু’টি ধাপের চেয়ে এবারে প্রস্তুতি ভালোই। তবে দেখা যাক কি হয়। এছাড়া রাজনীতিতে হার-জিত তো থাকবেই।
উৎসঃ   টাইমনিউজবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!