• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৫২ পূর্বাহ্ন |

হাতীবান্ধায় যত্রতত্র নিষিদ্ধ পলিথিনের ব্যবহার

Polithinহাসান মাহমুদ, লালমনিরহাট: হাতীবান্ধার উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে কাঁচাবাজার থেকে গালামাল এমনকি স্টেশনারী দোকানগুলোতে ব্যাপকভাবে  ব্যবহার  হচ্ছে নিষিদ্ধ পলিব্যাগ। হাতীবান্ধার উপজেলার  কাঁচা বাজারে এবং বারখাতা বাজারের কয়েকটি দোকান থেকে এ সব  নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ পাইকারীভাবে সরবরাহ করা হচ্ছে  উপজেলার বিভিন্ন বাজারে। দশ টাকা থেকে হাজার টাকার কেনাকাটা চলছে  পলিথিনের তৈরী ব্যাগে। অল্প দাম  এবং  সহজে  পরিবহণ যোগ্য বলে ক্রেতারা এর ক্ষতিকর দিকটি না ভেবেই  এগুলো  ব্যবহার  করছে দেদারছে। এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ি প্রচলিত আইনকে  বৃদ্ধাঙ্গুলি  দেখিয়ে  নিষিদ্ধ পলিথিন সরবরাহ  করছে  বাজারে। বাজারে,-বাজারকারীর  হাতে, খুচরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে পাইকারি দোকানে, হাটে-ঘাটে-মাঠে, ময়লার স্তূপে, আবাদী জমিতে সবখানেই ব্যবহৃত কিংবা অব্যবহৃত পলিথিন ব্যাগের ছড়াছড়ি। আইন প্রয়োগকারী  সংস্থাও  এ ব্যাপারে  নির্বিকার। নিষিদ্ধ পলিথিন  উৎপাদন ও সরবরাহে  সর্বোচ্চ দশ বছরের সাজা ও ১০ লাখ  টাকা  জরিমানার  বিধান  থাকলেও  এ আইনটির কোন  প্রয়োগ নেই। পলিথিন ব্যবহার কারীর  অনধিক ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং  ৬ মাসের কারাদন্ডের বিধানটিও শুধু কাগজেই সীমাবদ্ধ, প্রয়োগ নেই। নেই এ ব্যাপারে  সচেতনতা সৃষ্টির  উদ্যোগ।
পরিবেশ বিজ্ঞানীদের  মতে অতি সূক্ষ ইথিনিল পলিমার পলিথিন তৈরীতে কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহার  হয়, যা অপচনশীল। এটি ক্ষতিকর  কার্বন ডাই অক্সাইড গ্যাসসৃষ্টির   জন্য দায়ী।  সিনথেটিক মেটেরিয়াল্স  দ্বারা তৈরী পলিথিন ব্যাগ সহজে  পচে  না, অধিকন্তু পানিরোধক বলে  এটা  জমিতে  পড়লে   ব্যাকটেরিয়া তৈরীতে বাধা সৃষ্টি করে। ফলে জমির উর্বরা শক্তি নষ্ট হয়। এছাড়া  এতে বহন   করা যে কোন ধরণের  খাবার দীর্ঘক্ষণ থাকলে বিষক্রিয়ায়  খাবার  নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা থাকে । ব্যবহৃত  পলিথিন  নদী-নালা, খাল-বিল, শহরের  পানি নিস্কাশন  ড্রেনে   ফেলানোর  কারণে বন্ধ হয়  পানির  প্রবাহ।   অবরুদ্ধ প্রবাহে  বৃদ্ধি পায় দুর্গন্ধ ও মশার  প্রজনন, যা পরিবেশের  জন্য ক্ষতিকর।
এ বিষয়ে  ময়মনসিং  কৃষি  বিশ্ববিদ্যালয়ের  গ্রাজুয়েট  প্রভাষক  নূরন্নবী  বলেন, ‘ব্যবহৃত অপচনশীল   যে  কোন  পদার্থ  পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর। বাজারে ব্যবহৃত  পলিথিন অতি সূক্ষ্ম ইথিনিল পলিমার দ্বারা  তৈরী হওয়ায় এটা  অপচনশীল। ব্যবহৃত পলিব্যাগ কার্বন ডাই অক্সাইড সৃষ্টির  জন্য  দায়ী। যা পরিবেশের ভারসাম্য  নষ্ট করে। পলিথিন  ব্যবহার রোধে  আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সজাগ হওয়া প্রয়োজন।
পলিথিন  পাটজাত  পণ্যের  বিকল্প  হিসেবে  ব্যবহারের কারণে  পাটের  উৎপাদন ও ব্যবহার  হুমকির মুখে  পড়ার  ব্যাপক  আশঙ্কা রয়েছে।  কৃষককে  পাট উৎপাদনে  উৎবুদ্ধ করতে,  বাড়াতে হবে  পাটের ব্যবহার, নিরুৎসাহিত  করতে  হবে পলিথিন  ব্যবহারে।  এমনটিই  অভিমত  বিশিষ্ট  ব্যক্তিদের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ