• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫২ পূর্বাহ্ন |

৬১ ফুট গভীর থেকে ওঠানো গেল শাহিনার লাশ

sahinaসিসি ডেস্ক: অবশেষে তিন ভাই-বোনের কষ্টকর প্রতীক্ষার অবসান হলো। মাটির ৬১ ফুট গভীর থেকে ওঠানো গেল তাদের মা শাহিনা আক্তারের অর্ধগলিত লাশ। সাত দিন পর বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই হতভাগ্য গৃহবধূর লাশটি উদ্ধার করেছে কুমিল্লা জেলা পুলিশ।

প্রবাসী স্বামীর ভাড়াটে লোকেরা এক মাস আগে শাহিনাকে হত্যার পর কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলার একটি পরিত্যক্ত গভীর নলকূপে পুঁতে রাখে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি সকাল থেকেই নিখোঁজ ছিলেন তিনি। তাঁর লাশের সন্ধান মেলে ২৬০ ফুট গভীর নলকূপের ৮০ ফুট দীর্ঘ ও ১৪ ইঞ্চি ব্যাসার্ধের একটি পাইপের মধ্যে। গত ৬ মার্চ দিবাগত রাত পৌনে তিনটায় লাশ উদ্ধারে নামে পুলিশ।

সাত দিন ধরে চলে নলকূপের পাইপ তোলার কাজ। প্রতিদিনই নিহত শাহিনার দুই ছেলে ইমরান হোসেন (১৩), তুষার আহমেদ (১০) ও একমাত্র মেয়ে রোজিনা আক্তার (৭) গিয়ে আহাজারি করেছে। সেখানে শত শত উত্সুক মানুষের ভিড়ও ছিল।

উদ্ধার অভিযানের সময় কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার টুটুল চক্রবর্তী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শরীফুল ইসলাম, দেবীদ্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হোসেন, দেবীদ্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তারেক মোহাম্মদ হান্নান, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও দেবীদ্বার থানার উপপরিদর্শক (এএসআই) শাহকামাল আকন্দ, জনপ্রতিনিধি ও সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশ জানায়, গত ৭ ফেব্রুয়ারি শাহিনা আক্তার রাতের খাওয়া শেষে সন্তানদের নিয়ে ঘুমান। পরদিন সকাল থেকেই আর তাঁকে পাওয়া যায়নি। গত ৯ ফেব্রুয়ারি দেবীদ্বার থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসএসআই) শাহকামাল আকন্দ জানান, নিহত শাহিনার মুঠোফোনের তালিকা ধরে পুলিশ ১০ জনকে সন্দেহভাজন হিসেবে চিহ্নিত করে। শাহিনার ভাই মজিবুর রহমান সরকার ২৪ ফেব্রুয়ারি ওই ১০ জনের বিরুদ্ধে কুমিল্লার আদালতে বোনকে অপহরণ, হত্যা ও গুম করার অভিযোগে মামলা করেন।

আসামিরা হলেন শাহিনার শাশুড়ি রফেজা বেগম, স্বামী মোবারক হোসেন, ছেচড়াপুকুরিয়া গ্রামের মো. জসীম উদ্দিন, জাহিদ মিয়া, রুহুল আমীন, আবদুল করিম, সেলিম মিয়া, ইজ্জত আলী ও খোকন। বাকি একজনের নাম জানা যায়নি।

স্থানীয়রা জানান, প্রায় ১৫ বছর আগে উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের তুলাগাঁও গ্রামে শাহিনা আক্তারের (৩৫) সঙ্গে একই ইউনিয়নের ছেচড়াপুকুরিয়া গ্রামের মো. মোবারক হোসেনের (৪০) বিয়ে হয়। তিন সন্তান থাকা সত্ত্বেও বিয়ের পর থেকেই শাহিনার ওপর স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকেরা নির্যাতন শুরু করে। এ নিয়ে কয়েকবার গ্রামে সালিসি বৈঠকও হয়। শাহিনা আক্তারের বাবা মো. কেরামত আলী সরকার জমি বিক্রি করে চার লাখ টাকা দিয়ে মেয়ের স্বামী মো. মোবারক হোসেনকে আবুধাবি পাঠান। কিন্তু মোবারক হোসেন বিদেশ থেকে স্ত্রী ও সন্তানদের কোনো টাকা পাঠাতেন না। শাহিনা তাই অন্যের বাড়িতে কাজ করে তিন সন্তানকে লালনপালন করতেন।
সূত্র: প্রথম আলো


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ