• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৫:২১ অপরাহ্ন |

কেরানীগঞ্জে প্রকাশ্য জবাই করে হত্যা

1212ঢাকা: কেরানীগঞ্জে প্রকাশ্য দিবালোকে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১২ টায় মুক্তিরবাগ মসজিদের কাছে সেলিম আহমেদ নামে এক ড্রেজার ব্যবসায়ীকে নির্মমভাবে কুপিয়ে ও জবাই করে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। পুলিশ খবর পেয়ে জুমার নামায শেষে সেলিম আহমেদের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে। ঘটনাস্থল থেকে রক্তমাখা ১টি ধারালো চাপাতি ও ৫টি ক্রিকেট খেলার ষ্টাম উদ্ধার করেছে পুলিশ। লাশের ময়নাতদন্তের জন্য মিটফোর্ড মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। ড্রেজার ব্যবসায়ী সেলিম আহমেদকে সন্ত্রাসীরা জবাই করে হত্যার খবর শুনে তার স্ত্রী রাকিবা বেগম স্টোক করে। তাকে জরুরি ভিত্তিত্বে মিটফোর্ড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।  নিহতের বাড়ি জিনজিরা ইউনিয়নের আমীরাবাগ এলাকায় । পুলিশ লাশ উদ্ধারের সময় মুক্তিরবাগ এলাকায় শত শত লোকজন ভিড় জমায়। সে সময় পুলিশের কাছে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের দাবী করেন স্থানীয়রা  ।
স্থানীয়রা  জানায়, জিনজিরা পল্লী বিদ্যুৎ অফিস, মুক্তিরবাগ, ভাংনা ও বোরহানীবাগ এলাকায় সেলিম আহমেদ, নাছিব ও মামুন তিনজনে মিলে ড্রেজার ব্যবসা করতো। ড্রেজার ব্যবসা নিয়ে মুক্তিরবাগ এলাকার কিছু লোকজনের সঙ্গে বিরোধ ছিল। তাকে হত্যার জন্য অনেক দিন আগ থেকে পরিকল্পনা করে। শুক্রবার ১২ টার দিকে মুক্তিরবাগ মসজিদের কাছে রাস্তার উপড় লোকজনের সামনে প্রকাশ্য দিবালোকে নির্মাম ভাবে জবাই করে হত্যা করে। ১০-১২ জন সন্ত্রাসী তাকে প্রথমে ক্রিকেট খেলার স্টম দিয়ে পিটেয়ে জখম করে। তাদের হাতে ছিল লাঠি ও ধারালো চাপটি। এক পর্যায় সেলিম আহমেদ মাটিতে শুয়ে পড়লে তাকে এলোপাতারি কুপিয়ে জখম করে। শেষ পর্যায় সন্ত্রাসীরা যাওয়ার সময় তাকে জবাই করে। এ সময় আশপাশের লোকজন চারিদিকে ছুটোছুটি করতে থাকে। হত্যা শেষে সন্ত্রাসীরা মুক্তিরবাগ হয়ে বোরহানীবাগের দিকে চলে যায়। পুলিশকে খবর দিলে জুমার নামাযের পড়ে লাশ উদ্ধার করে। নিহতের স্ত্রী রাকিবা বেগম জানান, তার স্বামী সকাল ১০ টায় বাসায় নান্তা খায়। এ সময় তার মোবাইলে পর পর দুটি কল আসে। এর কিছুক্ষন পরে অজ্ঞাত পরিচয়ে দুই যুবক তার স্বামীকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায়।
এর পর থেকে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। তার স্বামীর সঙ্গে নাছিব ও মামুন ড্রেজার ব্যবসা করে। ড্রেজার ব্যবসা নিয়ে মুক্তিরবাগ এলাকায় কিছু লোকজনের মধ্যে বিরোধ ছিল। তার স্বামীকে বাসা থেকে অপহরন করে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। ড্রেজার ব্যবসা নিয়ে তার স্বামীর হত্যার কারন। তার এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। নিহতের ছোট ভাই মন্টু মিয়া জানান, তার ভাইকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে। দীর্ঘ দিন ড্রেজার ব্যবসা নিয়ে বিরোধ ছিল। তাকে বাসা থেকে অপহরন করে নিয়ে নির্মম ভাবে জবাই করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। প্রকাশ্য দিবালোকে লোকজনের সামনে তার ভাইকে হত্যা করে আনন্দ উল্লাস করলে ওই এলাকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। কেরানীগঞ্জ মডেল থানার উপ-পরিদর্শক শাহআলম জানান, ড্রেজার ব্যবসাকে কেন্দ্র করে হত্যা কান্ডটি ঘটতে পারে। ঘটনার পর থেকে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে রয়েছে। তাদেরকে ধরার জন্য চেষ্টা চলছে। এই ঘটনায় নিহতের ছোট ভাই মন্টু মিয়া বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ