• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৬ অপরাহ্ন |

গোপন কৌশলে সাফল্য ধরে রাখতে চায় জামায়াত

Jamatসিসি ডেস্ক: গত তিন বছর ধরে প্রকাশ্যে সাংগঠনিক তৎপরতা চালাতে পারেনি জামায়াত। নির্বাচন কমিশন দলটির নিবন্ধন বাতিলের পর উচ্চ আদালত তাদের নিবন্ধন ‘অবৈধ’ ঘোষণা করেছে। একাত্তরে যুদ্ধাপরাধের দায়ে তাদের শীর্ষ এক নেতার ফাঁসির রায় কার্যকরসহ কয়েকজনের ফাঁসির আদেশ হয়েছে। আরো কয়েকজনের বিচার চলছে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে। এসব নানা কারণে ‘কোণঠাসা’ জামায়াত। এর মধ্যেও এবারের উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ‘অপ্রত্যাশিত’ ফল পেয়েছে দলটি। এক্ষেত্রে তাদের কৌশল ছিল একেবারেই ভিন্ন। উপজেলার নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ‘পরাজয়’ ঘটিয়ে নিজেদের একঘরে পরিস্থিতি থেকে ‘উত্তরণ’ ঘটাতে চাচ্ছে দলটি।
তবে জামায়াতে ইসলামী তাদের এ সফলতা নিয়ে আপাতত কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছেন না। সব নির্বাচন শেষ হলেই এ বিষয়ে তারা আনুষ্ঠানিক বক্তব্য দেবে।
এদিকে শনিবার তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে ২৫ উপজেলায় চেয়ারম্যান, ৪৫ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান এবং ডজনখানেক উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দিয়েছে জামায়াত। কিন্তু তৃতীয় ধাপে এসে জামায়াত সরকারের কঠোর আচরণের মুখোমুখি হচ্ছে বলে দলটির অভিযোগ। এবার তাদের প্রার্থীদের ঠিকমতো মাঠে নামতে দেয়া হয়নি। পুলিশ দলের নেতাকর্মীদের তাড়িয়ে বেড়িয়েছে। মামলার হুমকি দিয়েছে। এমনই অভিযোগ করে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের ভাইস চেয়ারম্যন প্রার্থী শাহাবুদ্দিন আহমেদ যায়যায়দিনকে বলেন, সরকারের অঘোষিত নিষেধাজ্ঞার কারণে মাঠ পর্যায়ে সাংগঠনিক কার্যক্রম চালানো যাচ্ছে না। তার উপজেলার দক্ষিণের জগন্নাথ দিঘী, গুণবতী ও আলকরা ইউনিয়নে কোনো পোস্টার লাগানো ও কার্যক্রম চালাতে দেয়নি সরকারদলীয় প্রার্থীর লোকজন। একই রকম অভিযোগ পাশের নাঙ্গলকোট উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াতের প্রার্থী একেএম মহিউদ্দিন আহমেদেরও। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী আবু ইউসুফ তার বাহিনী দিয়ে ১৯ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা ও নির্যাতনের স্টিমরোলার চালাচ্ছে। বারবার অভিযোগ করেও প্রশাসনের কোনো পদক্ষেপ চোখে পড়েনি। কিন্তু পুলিশের রক্তচোখকে এড়িয়ে কিভাবে কাজ করতে হয় সম্ভবত জামায়াত সে কৌশলটি রপ্ত করতে পেরেছে।
মূলত হারতে পারেন বা বিতর্কে জড়িয়ে পড়তে পারেন, মাঠ পর্যায়ে এমন কোনো চ্যালেঞ্জেই এবার যাননি জামায়াতের সমর্থিত প্রার্থীরা। কেবল নিশ্চিত জয়, এমন উপজেলায় মনোযোগ ছিল তাদের। গত জোটগতভাবে জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির সমঝোতা থাকলেও আওয়ামী লীগের সঙ্গেও দলটির নেতারা কোনো ধরনের বিরোধে জড়াননি। বলা যায়, অবস্থা বুঝে দুই দলের সঙ্গে সখ্য রেখেই নিজেদের পথ চলা ছিল অনেকটা নীরবে।
মাঠ পর্যায়ের অনুসন্ধানে দেখা গেছে, কোনো কোনো জায়গায় জামায়াত প্রার্থীদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের গোপন সখ্য, আবার কোনো জায়গায় বিএনপির সঙ্গে সখ্য ছিল বেশি। সতর্ক জামায়াত কারো বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক কোনো কথা বলেনি। কিন্তু যেসব এলাকায় বিএনপি, আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিল, সেখানে এক ধরনের কৌশলের মধ্য দিয়েই তাদের নির্বাচন করতে হয়েছে।
তাই চলমান প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের সাফল্যকে পুঁজি করে আজ তৃতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচনেও ভালো করতে চায় জামায়াত। ধরে রাখতে চায় জয়ের ধারাবাহিতকা। মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে দলের শীর্ষ নেতাদের শাস্তি ও সরকারের দমননীতির কারণে দীর্ঘদিন ধরে কোণঠাসা দলটির এ বিজয়ে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে বিরাজ করছে উচ্ছ্বাস ও আত্মতুষ্টি। বাকি উপজেলা নির্বাচনগুলোতেও এ ধারাবাহিকতা ধরে রাখার জন্য তৎপরতা চালাচ্ছে। দলীয় প্রার্থী কর্মী-সমর্থকদের সর্বশক্তি নিয়োগের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, দলের ভাগ্য নির্ধারণ এবং চলমান সঙ্কট উত্তরণে জয়ের পাল্লা ভারি ছাড়া বিকল্প নেই।
জানা গেছে, প্রতিকূল পরিবেশের মধ্যেও দুই ধাপে ২১টি উপজেলা পরিষদে জামায়াত সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়েছেন। বিজয়ী হয়েছেন ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫৭ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৯ জন। ১৫ মার্চের তৃতীয় ধাপের ৮৩টি উপজেলায় সর্বোচ্চ সংখ্যক চেয়ারম্যান, ভাইস-চেয়ারম্যান মহিলা পদে বিজয়ী ছিনিয়ে আনতে চায় তারা। এজন্য বিএনপির সঙ্গে জোটগত অবস্থান ধরে সামনের দিকে এগোচ্ছে জামায়াত। যেসব উপজেলায় আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব রয়েছে সেসব জায়গাতেও জোর দিচ্ছে তারা। বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রার্থীদের প্রচুর অর্থ জোগান দেয়া হচ্ছে। এলাকা বিশেষে ধর্মীয় আবেগ কাজে লাগাচ্ছে দলটির নেতাকর্মীরা।
অপরদিকে উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের ফলের ভিত্তিতে জামায়াতকে এখন বলা যায় দেশের তৃতীয় বড় রাজনৈতিক দল। ভোটের নিরিখে তৃতীয় রাজনৈতিক দল হিসেবে সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টিকে বিবেচনা করা হয়। তবে জাতীয় পার্টির জনসমর্থন যে তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে, এর প্রমাণ দুই দফায় শেষ হওয়া উপজেলার নির্বাচনে মিলেছে। এই পরিস্থিতিতে জামায়াতের নেতাকর্মী আর সমর্থকরা উৎফুল্ল। জামায়াত কীভাবে এত ভালো করল? উপজেলা নির্বাচনে ভোটের হিসাব পর্যালোচনা করে দেখা যায় বুদ্ধিবৃত্তিক পরিকল্পনা আর শৃঙ্খলার জন্য এগিয়ে গেছে জামায়াত।
এ বিষয়ে জামায়াতের কেন্দ্রীয় এক নেতা বলেন, এবারের নির্বাচনে বিএনপি না এলেও তারা এককভাবে নির্বাচন করতেন। সবশেষে বিএনপি এসেছে। কোথাও রফা হয়েছে, আবার কোথাও হয়নি। তাই যেখানে সমাধান হয়নি সেখানে উভয়েই প্রার্থী দিয়েছে। এতে কে জিতলেন, না জিতলেন- তা দেখার বিষয় নয়।
অন্যদিকে বিরোধী দল ছাড়া ৫ জানুয়ারির ‘বিতর্কিত’ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগ সারাবিশ্ব থেকে ‘কূটনৈতিকভাবে বিচ্ছিন্ন’ হয়ে পড়ার আশঙ্কা করেছিলেন রাজনীতির বিশ্লেষকরা। যেসব রাষ্ট্র ৫ জানুয়ারির নির্বাচন মেনে নিতে পারেনি, নির্বাচনের পর সেসব রাষ্ট্রও আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন নতুন সরকারের সঙ্গে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছে। আওয়ামী লীগের নতুন সরকার যুদ্ধাপরাধের বিচার কার্যক্রম আরো এগিয়ে নিচ্ছে। তাই উপজেলার নির্বাচনকেও জামায়াত ‘গুরুত্বের’ সঙ্গে নেয় নিজেদের জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের জন্য।
যোগাযোগ করলে জামায়াতের কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য, ঢাকা মহানগরের নায়েবে আমির মওলানা আবদুল হালিম বলেন, উপজেলা নির্বাচনের মাধ্যমে জামায়াতের ওপর সরকারের সীমাহীন জুলুম, নির্যাতনের জবাব দিয়েছেন জনগণ। এই নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণ আওয়ামী লীগকে পরিত্যাগ করেছেন। আশা করেন অবশিষ্ট উপজেলাগুলোতেও জনগণ সরকারের আচরণের সমুচিত জবাব দেবে।
উল্লেখ্য, ১৯৮২ সালে উপজেলা পরিষদ গঠনের পর দুইবার নির্বাচন হয়ে মাঝখানে ১৮ বছর নির্বাচন হয়নি। এরপর ২০০৯ সালে নির্বাচন হয়। এর পাঁচ বছর পর এবার এ নির্বাচন হচ্ছে। যাযাদি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ