• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৯ অপরাহ্ন |

লালমনিরহাটে তামাক চাষে প্রলুব্ধ করা হচ্ছে চাষীদের

SAM_2885হাসান মাহমুদ, লালমনিরহাট: সিগারেট ও বিড়ি কোম্পানির আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে হতাশাগ্রস্থ ও দরিদ্র কৃষক পরিবার গুলোকে নানা আর্থিক প্রলুব্ধ দেখিয়ে লালমনিরহাটসহ উত্তরাঞ্চালের খাদ্য শষ্য উৎপাদনের  জমিতে আশংকাজনক হারে তামাক চাষ বৃদ্বি পেয়েছে। এভাবে চলতে থাকলে উত্তরাঞ্চালের খাদ্য শষ্য আবারও খাদ্য নিরাপত্তার হুমকির মূখে পড়তে পাড়ে। দেখা দিতে পাড়ে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থায় বিপর্যস্ত। রোগাক্রান্ত শিক্ষা বঞ্চিত বিশাল জনগোষ্ঠী দরিদ্রদার জালে আটকে যেতে পাড়ে। যাহা ২১’র মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ গড়তে বড় বাধাঁ হতে পাড়ে। তামাক চাষের জন্য বৃহত্তর রংপুর বিভাগের সুখ্যাতি দীর্ঘ দিনের। তবে ধুমপানের প্রতি মানুষের বিরুপ ধারনা ও জনসচেতনার কারনে বেশ কয়েক বছর আগে কৃষক তামাক চাষে মূখ ফিরিয়ে নিয়েছিল। উত্তরাঞ্চালের কৃষক রংপুর বিভাগের মঙ্গা নামের কলঙ্কের তিলক মুচে ফেলতে খাদ্য শষ্য উৎপাদনে মনোযোগ দেয়। সে ক্ষেত্রে কৃষক সফলতা অর্জন করে। কৃষি বান্ধব সরকার থাকায় সূলভ মূল্যে সার, কৃষি সরঞ্জাম, কীটনাশক, বীজ সরবরাহ ছিল স্বাভাবিক। এ দিয়ে কৃষককে সরাসরি ব্যাংক এ্যাকাউন্টের মাধ্যমে কৃষি ভর্তুকি দেওয়ার ব্যবস্থা করে সরকার। ফলে কৃষিতে নানাভাবে কৃষক অর্জন করে সাফল্য। কৃষক পরিবারগুলোর খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে খাদ্য শস্য ধান, গম, ভুট্টা, তিল, সরিষা, সূর্যমূখি ফুল, আলু মিষ্টি কুমড়া সবজি চাষ করে। এতে করে উত্তরাঞ্চালের চরাঞ্চলসহ শীত মৌসূমে মৌসূমী কর্মহীন সময়েও কৃষি শ্রমিকের হাতে কাজের সংস্থা হয়। ফলে শীত মৌসূমে (আশ্বিন- কার্তিক মাসে) তথাকথিত মঙ্গা নামের খ্যাদাভাব দূর হয়ে যায়। উত্তরাঞ্চালের কুড়িগ্রাম, লারমনিরহাট, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, রংপুর, নিলফামারী, পঞ্চগড় ও গাইবান্ধায় খাদ্যাভাব দূর হয়ে যায়।
কৃষক পরিবারগুলো বিশেষ করে তিস্তা, ধরলাও করতোয়া নদীর চরাঞ্চলের ধূ-ধূ বালু-মাটির চরে বিশেষ পদ্ধতিতে সরিষা, সূর্যমূখি ফুল, আলু ,মিষ্টি,কুমড়া,বেগুন, নীল চাষ সহ নানা খাদ্য শস্য ধান, গম, ভুট্টা, তিল চাষ হচ্চে। এতে করে চরের কৃষি অর্থনীতিতে মঙ্গা নামের অভিশাপ হতে রক্ষা পেয়েছে। তবে চরের উত্তরাঞ্চালের খাদ্য নিরাপত্তা এই অগ্রগতি বর্তমানে হুমকীর মূখে পড়েছে। গত দুই- তিন বছর ধরে আলু ও খাদ্য শষ্য আবাদ করে কৃষক পরিবারগুলো বাজারজাতকরনের অভাবে উৎপাদন খরচ তুলতে পাড়েনি । এতে করে কৃসক আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে লোনের মূখে পড়ে অনেকে নিঃস্ব রিক্ত হয়ে গেছে।
মহেন্দ্রনগর ইউনিয়নের প্রাক্তন চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন এর ছেলে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক তুষার, মহেন্দ্রনগর’র কৃষক মতিয়ার (৪৫) ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ও আলু চাষী আনিসুর রহমান (৩৫) প্রতিনিধিকে জানায়, বেশ কয়েক বার ধরে খামার পদ্ধতিতে তিস্তা নদীর চরাঞ্চলের ও আলু চাষের উপযোগী অন্যের খন্ডকালীন আলু চাষের জন্য লীজ নিয়ে আলু চাষ করে। ফলনও বাম্পার কিন্তু  উৎপাদন মুল্য বাজারে পায়নি। তাই তারা কোটি কোটি টাকা আলু চাষে বিনিয়োগ করে পুঁজি হারিয়ে পথে বসার উপক্রম হয়েছে। অনেকে পারিবারিক সূত্রে পাওয়া জমি বিক্রয় করে দেনা পরিশোধ করেছে। এই সুযোগে দেশের খ্যাতনামা সিগারেট, বিড়ি ওতামাক জাত পন্য উৎপাদন কারী প্রতিষ্ঠান গুলো কৃসকদের অধিক অর্থের লোভ দেখিয়ে কয়েক বছর ধরে লালমনিরহাটসহ রংপুর বিভাগের ৮টি জেলায় তামাক চাষে উদ্ধুদ্ধ করেছে।
এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ধান, ভুট্টা,পাট, গম,এবং আলুসহ নানা খাদ্য জাত কৃষি পন্য উৎপাদনে নিরুৎসাহিত করতে মাঠ পর্য়ায়ে টোবাকো কোম্পানিগুলো কৃষককে তামাক চাষ করতে বিনা পয়সায় সার, কীটনাশক,বীজ ও সেচ দিয়ে থাকে। তারপর আবার কৃষককে বিনা সুদে কৃষি লোন দিয়ে থাকে। আবার তামাক চাষীকে কোম্পানিগুলোর তালিকাভুক্ত করে নিয়ে তার জমির তামাকের মূল্য পূর্বেই নির্ধারন করে দেওয়া থাকে। কোম্পানি তাদেরকে তামাক ক্রয়ের নিশ্চয়তা দিতে এক ধরনের বিশেষ কার্ড দিয়ে থাকে। তাতে দেখা যায় ধান চাষের জমি গুলোতে ধান,গম,ভুট্টা চাসের পরিবর্তে যেদিকে দুচোখ যায় তামাক আর তামাকের ক্ষেত।
লালমনিরহাট কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, গত বছর লালমনিরহাট জেলার ৫ উপজেলায় তামাক চাষ হয়েছিল ১০ হাজার ১৫০ হেক্টর জমিতে এবং এ বছর বেড়ে গিয়ে চাষ হয়েছে ১১ হাজার ৩৮৫ হেক্টর জমিতে। যার মধ্যে সদর উপজেলায় ১ হাজার ৪৫৫ হেক্টর, আদিতমারীতে ৪ হাজার ৪৪০ হেক্টর, কালীগঞ্জে ১ হাজার ৮৩০ হেক্টর, হাতীবান্ধায় ১ হাজার ২ শত হেক্টর এবং পাটগ্রামে তামাক চাষ হয়েছে ২ হাজার ৫ শত হেক্টর জমিতে।
তবে কৃষি বিভাগের এই তথ্য সঠিক নয় বলে তামাক চাষে নিয়েজিত একটি কোম্পানির উর্দ্ধতন কর্মকর্তা জানান, কৃষি বিভাগের তথ্যে গড় মিল আছে, কৃষি বিভাগ নিজেদের রক্ষা করতে তামাক চাষের পরিসংখ্যান কম করে দেখিয়েছে। তারা মাঠ পর্যায়ে কৃষি জরিপ করে এই তথ্য দেয়নি।
আকিজ বিড়ি কোম্পানির কৃষি কর্মকর্তা রিঞ্জন বিশ্বাস প্রতিনিধিকে জানায়, এই অঞ্চলে বার্লি ও এপসিভি জাতের উন্নত মানের তামাক চাষ হয়। আকিজ কোম্পানি ২০০৪ সাল থেকে জেলায় বিড়ি কোম্পানি স্থাপন করেছে। তারা তাদের প্রোডাক্ট এই অঞ্চলে বাজারজাত করে না , দক্ষিন অঞ্চলে বাজারজাত করে। এই কোম্পানিটি জেলায় তামাক চাষ করে আসছে। তামাকের গুনগত মান ধরে রাখতে তামাক চাষে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয় এবং নিজস্ব গবেষনাগার রয়েছে। তিনি বলেন, এতে কম খরচে উন্নত মান’র তামাক চাষ করতে পারছে অঞ্চলের কৃষক এবং বাজারে দামও পাচ্ছে ভাল। মুক্ত অর্থনৈতিক বাজারে লাভজনক কৃষিতে চাষী উৎসাহিত হবে এটাই প্রকৃতির নিয়ম।
জেলা  কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল মজিদ প্রতিনিধিকে জানায়,তামাক চাষে কৃষকেরা সাময়িক ভাবে লাভবান হয়। কিন্তু তামাক চাষে দীর্ঘস্থায়ী ভাবে জমির উর্ববরতা শক্তি নষ্ট করে ফেলে। তামাক চাষের পর জমিতে পরে থাকা অবশিষ্ট তামাক পাতা বা গাছ যা দীর্ঘদিন পরে থাকায় জমির মাটিকে বিষাক্ত করে তুলে। এছাড়াও তামাক রোদে শুকানো গোডাউনে রাখা ও বাজারে বিক্রি করার সময় তামাকের বিষাক্ত গন্ধ বাতাসের সাথে মিশে ছড়িয়ে পরে এবং পরিবেশ বিষাক্ত ও সাস্থ্যের চরম ভাবে  ক্ষতি করে। এভাবে তামাক চাষের ফলে খাদ্য নিরাপত্তা ঝুকির মধ্যে পড়তে পারে বলে আশংকা করেন।
তামাক বিরোধী ও মাদক আন্দোলনের নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক আলহাজ্ব এস এম সফিকুল ইসলাম কানু প্রতিনিধিকে জানায়, তামাক চাষ দ্রুত নিয়ন্ত্রন করতে হবে। সরকার তামাক চাষ নিয়ন্ত্রন করতে ব্যর্থ হলে উত্তরাঞ্চালের লারমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, রংপুর, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, নিলফামারী, পঞ্চগড় ও গাইবান্ধা জেলায় খাদ্য নিরাপত্তা ঝুকিতে পড়বে। তিনি জানান, জেলায় তামাক চাষ তামাক জাত পন্য উৎপাদনের কারখানা স্থাপন দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এত করে জেলায় সাপ্টিবাড়ী, কালীগঞ্জ, কাকিনা, ভুল্যার হাটসহ বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে প্রাথমিক শিক্ষায় শিক্ষার্থী সংকট সৃষ্টি হয়েছে। এসব এলাকায় বিড়ি ও সিগারেট কারখানায় শিশুরা কাজ করছে। ফলে তারা বিদ্যালয়ে যেতে অনিহা প্রকাশ করছে।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নবেজ উদ্দিন  প্রতিনিধিকে জানায়, এই জেলায় প্রাথমিক শিক্ষার অগ্রগতি যেকোন জেলার চেয়ে ভাল। কিন্তু আদিতমারী, সাপ্টিবাড়ী ও যেখানে বিড়ি বা সিগারেট কোম্পানিগুলো গড়ে উঠেছে সেখান কার ছাত্র-ছাত্রীরা লেখাপড়ায় অনিহা এবং বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষার্থীর উপস্থিতির হারও কম। তাছাড়া যে কয়েকজন শিক্ষার্থী আসে তাও আবার নিয়মিত আসে না । এর জন্য বিড়ি ও  সিগারেট কোম্পানিগুলো দায়ী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ