• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩২ পূর্বাহ্ন |

এবার ঘুরে দাঁড়াবে আ.লীগ!

Nilphamari Upozala Electionঢাকা: প্রথম ও দ্বিতীয় দফা উপজেলা নির্বাচনে হোঁচট খাওয়া আওয়ামী লীগ তৃতীয় দফায় ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে। ওই দুই দফায় হার (পরাজয়) পুষিয়ে নিতে এবার প্রতিপক্ষকে ধরাশায়ী করতে কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছে। গত দুই দফার অভিজ্ঞতার আলোকে এবার বিদ্রোহী প্রার্থীদের বশে এনে দলসমর্থিত একক প্রার্থী নিশ্চিত করতে আওয়ামী লীগ বেশিরভাগ জায়গায় সফল হয়েছে। ফলে আত্মবিশ্বাস গেছে অনেকগুণ বেড়ে। বিরোধীদের আর পাত্তাই দিতে চাচ্ছে না তারা।
বিশেষ করে গাজীপুরের শ্রীপুরে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর অবশেষে একক প্রার্থী ঘোষণা করেছে। এছাড়া ৩৩ জেলার অর্ধশত উপজেলায় শক্ত অবস্থানে থাকা দলটির বিদ্রোহী প্রার্থীদের বশে আনা গেছে।
আজ শনিবার ১৫ মার্চ ৪২ জেলার ৮২ উপজেলায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়েই মাঠে নেমেছে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা। এবার তারা গত দুই দফার ব্যর্থতা ঢেকে জনপ্রিয়তা প্রমাণ করে দেখাতে চান।
সূত্র জানিয়েছে, কেন্দ্রীয়ভাবে দলটির সাত বিভাগে সাতটি টিম সফর করে তৃণমূলের দ্বন্দ্ব মিটিয়ে একক প্রার্থী নিশ্চিত করতে প্রাণপণ চেষ্টা করে। এছাড়া দলের দুই প্রভাবশালী নেতাও যুক্ত হন বিদ্রোহী দমন প্রক্রিয়ায়। তৃণমূলে নানামুখি কোন্দলে কপালে ভাঁজপড়া আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুশ জয় পেতে একরকম চ্যালেঞ্জ নিয়ে মাঠে নেমেছে।
উপজেলা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকেই আওয়ামী লীগ এ নির্বাচনকে বেশ গুরুত্বের সঙ্গে নেয়। নির্বাচনের ফল নিজেদের পক্ষে নিতে প্রথম থেকেই দলের কেন্দ্রের বেশ তৎপরতা ছিল। এমনকি প্রধানমন্ত্রী নিজেও একাধিকবার দলীয় নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিয়ে একক প্রার্থী নিশ্চিত করার কথা বলেন। দলের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম একক প্রার্থী নিশ্চিত করতে জেলা কমিটির নেতাদের চিঠি দেন। কিন্তু প্রথম দফায় কোনো উদ্যোগই কাজে আসেনি।
এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলের নীতি নির্ধারণী পর্যায়ের এক নেতা বলেন, নির্বাচন প্রশ্নে আওয়ামী লীগে বরাবরই তৃণমূলের মতামত উপেক্ষা করা হয়। কিন্তু এবার উপজেলা নির্বাচনে প্রথম দুই ধাপে ধাক্কা খেয়ে খানিকটা কঠোর হয়েছে শীর্ষ নেতৃত্ব। আঁটঘাট বেঁধেই বিদ্রোহী প্রার্থীদের দমন করতে দলের হাইকমান্ড মনোযোগী হয়। এক্ষেত্রে এবার তৃণমূলের মতামতের ভিত্তিতে, তাদের সরাসরি ভোটে প্রার্থী নির্বাচন করা হয়।
বেশ কয়েকটি উপজেলায় বিদ্রোহী দমনে ব্যর্থ হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ দেশের প্রাচীনতম একটি বড় দল। এ দলে একটু আধটু কোন্দল থাকতেই পারে।’
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, যশোরে ৩ উপজেলায় জয় পেতে মহাজোটের ব্যানারে আওয়ামী লীগ নব উদ্যোমে মাঠে নেমেছে। সদর, মনিরামপুর ও কেশবপুর উপজেলায় জয় নিশ্চিত করতে একক প্রার্থী নিশ্চিত করা হয়েছে। সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে দলের একক প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার, ভাইস চেয়ারম্যান পদে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সেতারা খাতুনকে দলের সমর্থন দেয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক এমপি জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এ ঘোষণা দেন
কেশবপুর উপজেলায় বর্তমান উপজেলার চেয়ারম্যান আমির হোসেনকে পুনরায় এ পদে সমর্থন দেয়া হয়েছে। এ উপজেলায় পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে জাতীয় পার্টির আবদুল লতিফ রানা ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নাসিমা সাদেককে সমর্থন দেয়া হয়েছে। এছাড়া মনিরামপুরে চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন লাভলু, ভাইস চেয়ারম্যান পদে জাতীয় পার্টির আবদুল হালিম ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নাজমা খাতুনকে পুনরায় দলের সমর্থন দেয়া হয়েছে। অন্যদিকে, শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি আবদুল মান্নান মিন্নুর বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে।
সূত্র জানায়, সদ্য শেষ হওয়া যশোরের পাঁচ উপজেলায় আওয়ামী লীগ শরিকদের গুরুত্ব না দিলেও আসন্ন তিন উপজেলায় জয় পেতে শরিকদের মূল্যায়ন করছে। দলের একক প্রার্থী দেয়ার পাশাপাশি মহাজোটগত নির্বাচন করতে কেশবপুর ও মনিরামপুরে ভাইস চেয়ারম্যান পদে জাতীয়পার্টিকে ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। এতে ভাইস চেয়ারম্যান পদ নিয়ে অভ্যন্তরীণ কোন্দল কমেছে আবার জোটের শরিকদেরও কাছে টানা হচ্ছে। সবমিলে যশোরে নব উদ্যোমে নির্বাচনী মাঠে নেমেছে জেলা আওয়ামী লীগ।
এদিকে খুলনার পাইকগাছায় বিদ্রোহী প্রার্থী শেখ সোহরাওয়ার্দী শনিবার শেষ মুহূর্তে এসে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করায় সেখানেও একক প্রার্থী নিশ্চিত করলো আওয়ামী লীগ।
সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী মনোনীত করা হয়েছে। তৃণমূল ভোটে বেলকুচির উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ আলী আকন্দকে সমর্থন দেয়া হয়েছে।
বগুড়া উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী নিশ্চিত করা হয়েছে। একক প্রার্থী হিসেবে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন শহর আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক চেয়ারম্যান প্রার্থী সুলতান মাহমুদ খান রনি। তিনি বিভিন্ন এলাকার ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন।
শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও বেশ সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত একক প্রার্থী। আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফ হোসেন খোকা এবার দলীয় সমর্থন পাওয়ায় অন্য কোনো বিদ্রোহী প্রার্থী নেই।
মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী ও বড়লেখা উপজেলায় এবার বিদ্রোহী ঠেকাতে সক্ষম হয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।  এখানে দলটি কৌশলী পায়ে হাঁটছে। গত নির্বাচনে জুড়ীতে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের একাধিক চেয়ারম্যান প্রার্থী মাঠে থাকলেও এবার বর্তমান চেয়ারম্যান এমএ মোমিত আশুককে সমর্থন দিয়ে সরে দাঁড়িয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থী মাশুক আহমদ। ফলে আশুক এখন বেশ ফুরফরে মেজাজে।
বড়লেখায় আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী রফিকুল ইসলামও ভোটযুদ্ধে বেশ সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছেন। এখানেও দলের প্রার্থীকে বিজয়ী করতে তৃণমূল একাট্টা।
ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দলীয় সমর্থন পেয়েছেন ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউল করিম রাসেল। তার পক্ষে মাঠে রয়েছে দলের তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। এখানেও বিদ্রোহী হয়ে কেউ দলের বিপক্ষে মাঠে নেই।
কক্সবাজার সদর উপজেলায় তৃণমূলের ভোটে চেয়ারম্যান পদে মনোনীত হয়েছেন আওয়ামী লীগের আবু তালেব। এখানে দলের বিদ্রোহী নেই।
চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় চেয়ারম্যান পদে দামুড়হুদা উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আজাদুল ইসলাম আজাদ দলের একক প্রার্থী। তার পক্ষে নেতাকর্মীরা মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলায় আওয়ামী লীগ সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছে। আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী হিসেবে দলের জেলা কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সামসুল হকের বিরুদ্ধেও নেই কোনো বিদ্রোহী প্রার্থী।
জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের হ্যাভিওয়েট নেতা সাবেক তথ্য ও সংস্কৃতিমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ এমপির নির্বাচনী এলাকা। তার উন্নয়ন ও সুনামের ইমেজ কাজে লাগিয়ে একক প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ। পছন্দের প্রার্থী পেয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও মরিয়া হয়ে নির্বাচনী মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন।
শ্রীপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে অবশেষে আওয়ামী লীগ আব্দুল জলিলকে সমর্থন দিয়েছে। ফলে এখানেও আগের দ্বন্দ্ব মিটে নতুন উদ্যোমে জেগে উঠেছে আওয়ামী লীগ।
এছাড়া ফরিদপরের মধুখালীতেও রয়েছে দলের একক প্রার্থী। ফরিদপুর সদর, সদরপুর, চরভদ্রাসন, ভাঙ্গা ও আলফাডাঙ্গায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত পাঁচ চেয়ারম্যান প্রার্থীর বিপরীতে রয়েছেন আট বিদ্রোহী প্রার্থী। তবে এরাও শেষমেষ বশে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।
রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী, চারঘাট ও দুর্গাপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী থাকলেও শেষ মুহূর্তে তারা সমঝোতায় গেছেন বলে জানা গেছে।
উল্লেখ্য, এর আগে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় ধাপে ১১৭ উপজেলায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৫৪ উপজেলাতেই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শক্ত অবস্থানে ছিল। ওই নির্বাচনে মাত্র ৪৫টি চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করে আওয়ামী লীগ। প্রথম ধাপের নির্বাচনে ৯৭ উপজেলার ৫২টিতে বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীদের ভরাডুবি হয়।
এবার বিদ্রোহী প্রার্থীদের দমনে সর্বোচ্চ ছাড় দিয়েছে দলটি। এতে অনেক উপজেলায় সফল হওয়ার আশা থাকলেও বেশক’টিতে এখনো পূর্বের ভাগ্যবরণ করার আশঙ্কা রয়েই গেছে।
বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ