• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৫০ পূর্বাহ্ন |

ভারতের পোয়াবারো, বাংলাদেশের সর্বনাশ

মীযানুল করীম:

Minajul Karimএবার ভারতের স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং জানিয়ে দিয়েছেন, তিস্তার পানিবণ্টনের ব্যাপারে বাংলাদেশের সাথে চুক্তি করা সম্ভব নয়। ঠিক সে সময় আমাদের একজন প্রভাবশালী মন্ত্রী জোর দিয়ে বললেন, ভারতকে ট্রানজিট দিতে হবে। এ অবস্থায় প্রখ্যাত লেখক-সাংবাদিক-রাজনীতিক আবুল মনসুর আহমদকে স্মরণ করতে হয়। ‘রাজনীতির বিয়াকরণ’ শীর্ষক লেখায় তিনি বলেছিলেন, ‘আমদানি কাহাকে বলে? যাহা আমার পকেটে আসিবে। রফতানি কাহাকে বলে? যাহা তোমার পকেট হইতে যাইবে।’
যা হোক, তিস্তা নিয়ে বাংলাদেশের সর্বশেষ দুঃসংবাদ : ‘তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যা তো দূর অস্ত, আগে যেটুকু পেত বাংলাদেশ, এবার তা-ও বন্ধ হচ্ছে। বাংলাদেশকে এখন যে নামমাত্র পানি দেয়া হয়, তা থেকে আরো ১০-২০ শতাংশ পানি সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করছে দেশটি। আর এতে তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তির ন্যূনতম সম্ভাবনাও ধুলায় মিলিয়ে যাচ্ছে।’ গত বৃহস্পতিবার দৈনিক যুগান্তরের সচিত্র লিড নিউজের সূচনা হয়েছে এই ক’টি বাক্য দিয়ে। চার কলামে হেডিং ‘তিস্তার আরো পানি সরিয়ে নিচ্ছে ভারত’। তার ওপরে বুধবার তোলা তিস্তা ব্যারাজের ছবির ক্যাপশন ‘খরস্রোতা তিস্তায় এখন ধূধূ বালুচর। কি জেলে, কি মাঝি, কি কৃষক-সবার কান্নাও আজ শুকিয়ে মরে তাতে।’ মঙ্গল ও বুধবার ভারত-বাংলাদেশ যৌথ নদী কমিশন (জেআরসি) বৈঠকের সূত্রেই বাংলাদেশ পেল দুঃসংবাদটি। এর দু-তিন দিন আগে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর উক্তিতেই বোঝা গিয়েছিল, দিল্লি এখন তিস্তা চুক্তির ব্যাপারে আগ্রহী নয়। এর অর্থ, বিষয়টিকে ঝুলিয়ে রেখে শুকনো মওসুমে যত বেশি সম্ভব তিস্তার পানি সরিয়ে নেয়া। এতে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের সর্বনাশ হলেও পরোয়া নেই ভারতের।
ডিসেম্বরে নদ-নদীর শুকনো মওসুম শুরু হয়ে অন্তত মে মাস পর্যন্ত চলে। বিশেষ করে মার্চ-এপ্রিলে অর্থাৎ চৈত্র-বৈশাখ মাসে পানির অভাব হয়ে ওঠে চরমে। তাই কৃষকদের সেচসঙ্কট এখন সর্বোচ্চ মাত্রায়। তবুও বাংলাদেশ তিস্তা থেকে পাচ্ছে মাত্র ৫০০ কিউসেক পানি। পাওয়ার কথা এর দশ গুণ, অর্থাৎ পাঁচ হাজার কিউসেক পানি। এই শোচনীয় পরিস্থিতিতে গত শুক্রবার নয়া দিগন্তের প্রথম পাতার খবর, ‘এক-দশমাংশে নেমে এসেছে তিস্তার পানি। বাংলাদেশের উদ্বেগ, প্রতিক্রিয়াহীন ভারত।’ জেআরসি বৈঠকে এবার ভারত বাংলাদেশকে কোনো গ্যারান্টি দেয়নি তিস্তার ন্যায্য হিস্যা পাওয়ার বিষয়ে। ভারতের নির্বিকার প্রতিক্রিয়ায় শুধু বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশের উদ্বেগ সম্পর্কে আমরা অবহিত হলাম।’ এই ভাষ্য শুনে আমাদের উদ্বেগ আরো বেড়ে যাচ্ছে। কারণ বাংলাদেশের জীবনমরণ সমস্যা হলেও পানির ন্যায়সঙ্গত অংশ দেয়ার গরজ ভারত বোধ করছে না। অথচ এটা কারো করুণা বা উদারতা নয়। এটা বাংলাদেশের আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত অধিকার এবং ভারতের নৈতিক, মানবিক, সর্বোপরি আইনগত দায়িত্ব।
প্রথম আলো শুক্রবার প্রথম পৃষ্ঠায় প্রকাশিত এক রিপোর্টে জানিয়েছে, জানা অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় লালমনিরহাটের ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি ব্যাপক হারে কমেছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে তা নেমে এসেছে ১৯৭৩-৮৫ সময়কালের মাত্র ১০ শতাংশে। এ অবস্থায় ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যসরকার আরো বেশি কৃষিজমি অভিন্ন নদীটির পানি দিয়ে সেচের আওতায় আনার পরিকল্পনা নিয়েছে।
পশ্চিমবঙ্গের ‘অগ্নিকন্যা’ মমতা ব্যানার্জি ৩৩ বছরের বামপন্থী শাসনের অবসান ঘটিয়ে মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন। এতে বাংলাদেশের সরকার ও জনগণ জানিয়েছিল স্বাগত; কিন্তু তিস্তা ইস্যুতে আমাদের প্রত্যাশার বেলুনটি ফুটো করে দিয়ে মায়ামমতাহীন ভঙ্গিতে মমতা সাফ জানিয়ে দেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের চাহিদা পূরণ না করে বাংলাদেশকে এক ফোঁটা পানিও দেয়া হবে না।’ এমনকি কিছু দিন আগে তার সরকার পর্যবেক্ষক টিম পাঠিয়েছে, তিস্তা দিয়ে বাংলাদেশের দিকে ‘বেশি’ পানি যাতে চলে যেতে না পারে, তা নিশ্চিত করতে। এবার সেচমন্ত্রী রাজীব ব্যানার্জি মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সুরে বলেছেন, ‘নিজেদের চাহিদা না মিটিয়ে বাংলাদেশকে পানি দেব কিভাবে?’ কিন্তু নিজেদের চাহিদা ক্রমে বাড়ালে তা কি কোনো দিন পূরণ হবে?
গত সপ্তাহে মিয়ানমারের রাজধানী নেইপিতোতে বিমসটেক শীর্ষ সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে বৈঠক হয়েছে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের। তিনি জানিয়ে দিয়েছেন, ‘তিস্তা চুক্তি করা কঠিন।’ প্রশ্ন উঠতে পারে, আমের চেয়ে কি আঁটি বড়? ভারতের কেন্দ্রের চেয়ে প্রদেশের ক্ষমতা কি এতই বেশি যে, দিল্লি চাইলেও কলকাতার আপত্তিতে তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যাও বাংলাদেশকে দেয়া যাবে না।’ তেমন আইন বা বিধান কেন ভারত গ্রহণ করবে কিংবা টিকিয়ে রাখবে?
এবার জেআরসিতে ভারতীয় প্রতিনিধিরা গঙ্গা নিয়ে তোড়জোড় করলেও তিস্তা সম্পর্কে মুখে যেন কুলুপ। সার্বিক ইস্যু নিয়ে আলোচনার জন্য পানিসম্পদ মন্ত্রিপর্যায়ে বৈঠক করতে বাংলাদেশ বারবার অনুরোধ জানিয়েছে। ভারত এটাকে পাত্তা দেয়নি।
সমকাল পত্রিকায় শুক্রবার সংবাদ শিরোনাম, ‘পানির অভাবে সঙ্কটে তিস্তা সেচ প্রকল্প।’ নিচে ছবি রংপুরে সড়ক অবরোধের। তিস্তা ক্যানালে পানির দাবিতে বৃহস্পতিবার এ কর্মসূচি পালন করেছেন বিপন্ন কৃষিজীবীরা; কিন্তু উজান থেকে পানি না এলে ভাটির জমিতে কিভাবে সেচ দেয়া সম্ভব? আর উজানটা যে ‘দাদা’র দখলে। তাদের আচরণ ‘সৎ মায়ের’ অসৎ পুত্র ছোট ভাইদের বঞ্চিত করে পৈতৃক সম্পত্তি জোরদখলের মতো।
পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, এবার খরা মওসুমের শুরুতেই ভারত উজানে তার গজলডোবা ব্যারাজের সব গেট বন্ধ করে দিয়েছে। ফলে ভাটিতে বাংলাদেশের ডালিয়ায় তিস্তার পানি এত বেশি নেমে গেছে, যার নজির নেই অতীতে। আর এটা তো নিশ্চিত, বর্ষায় ‘মেঘ না চাইতেই জল’ দিয়ে অভাগা বাংলাদেশের হতভাগা বাঙালিদের কৃতার্থ করা হবে। তখন নিজেরা ডোবার হাত থেকে বাঁচতে গজলডোবার সব দ্বার খুলে অপরিমেয় পানি দিদির পক্ষ থেকে উপহার দেয়া হবে নীলফামারী, লালমনিরহাট, রংপুর, গাইবান্ধার চাষিদের।
পঞ্জিকার হিসাবে আজ দোসরা চৈত্র। তবে তিস্তার পানি লুটে বাংলাদেশে যেভাবে হাহাকার তোলা হচ্ছে, তাতে বলা যায়Ñ ভারতের এখন ‘পৌষ মাস’। এই বাংলা প্রবচন তো আর মিথ্যা নয়, ‘কারো পৌষ মাস, কারো সর্বনাশ’।
নদীমাতৃক বাংলাদেশের কথা নদ-নদী বাদ দিয়ে চিন্তাই করা যায় না। পানির অপর নাম জীবন। আর নদীর পানি এ দেশের কৃষিকে বাঁচিয়ে রেখেছে। বাংলাদেশের নদ-নদী অন্তত আড়াই শ’ বলে এক পরিসংখ্যানে জানা যায়। এর মধ্যে ৫৪টি এসেছে উজানের ভারতীয় ভূখণ্ড থেকে। সেগুলোর মধ্যে প্রথমেই নাম আসে গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র, তিস্তার।
তিস্তার উৎপত্তি সিকিমের উত্তরে হিমালয়কোলে। সেখানে ভিন্ন নামে পরিচিত। কারো কারো মতে, ‘ত্রিস্রোতা’ থেকে এসেছে ‘তিস্তা’ কথাটি। ৩১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই নদী পার্বত্য সিকিম থেকে জলপাইগুড়ির সমতলে নেমে এসে একপর্যায়ে বাংলাদেশে ঢুকেছে নীলফামারী জেলার সীমান্ত দিয়ে। ক্রমেই দক্ষিণ-পূর্বে এগিয়ে রংপুর জেলা হয়ে গাইবান্ধা জেলার উত্তর প্রান্ত দিয়ে ব্রহ্মপুত্র নদে এসে পড়েছে। ডালিয়া নামক স্থানে ব্যারাজ বা বাঁধ দিয়ে বিগত শতকের ষাটের দশকে শুরু হয় তিস্তা সেচ প্রকল্পের কাজ। এটি পানি উন্নয়ন বোর্ড, তথা বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ সেচ প্রকল্প; কিন্তু ভারতের একতরফা ও বেহিসাবি পানি প্রত্যাহারের পরিণামে এই সুবৃহৎ প্রজেক্ট এখন প্রায় পুরোপুরি অকার্যকর। কোটি কোটি টাকা ব্যয়ের পর এখন তা অকেজো হয়ে লাখ লাখ কৃষকের কান্নার কারণ। এ জন্য উজানপড়শির আগ্রাসী মনোভাবই দায়ী। বিশেষ করে, জলপাইগুড়ির গজলডোবায়, বাংলাদেশ সীমান্তের কিছু দূরে তিস্তার বুকে ভারতের বাঁধ বাংলাদেশের জন্য মারণফাঁদ হয়ে উঠেছে।
২০১১ সালের সেপ্টেম্বরের প্রথম দিকে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং তার প্রথম বাংলাদেশ সফরে এলেন। তিস্তার পানির হিস্যা নির্ধারণ এবং এর প্রাপ্তি-প্রক্রিয়া নিয়ে ঢাকা-দিল্লি চুক্তি হবে, এটা শুধু নিশ্চিতই ছিল না, বরং এই চুক্তি করা ছিল মনমোহনের ঢাকায় আসার একটি বড় উদ্দেশ্য। এ জন্য ভারতের কেন্দ্রীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গী হিসেবে তাদের একজন ‘প্রাদেশিক প্রধানমন্ত্রী’র আসার বিষয়টা ছিল নির্ধারিত ও যথারীতি ঘোষিত। ইনি হচ্ছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। যাকে এ দেশের অনেকেই আবেগ উল্লাসে ‘ওপার বাংলার মমতা দি’ বলতে অজ্ঞান, এমনকি যার নির্বাচনী বিজয়ে আমাদের প্রধানমন্ত্রী অভিনন্দন জানিয়েছিলেন (যদিও এটা প্রটোকল সম্মত কি না, প্রশ্ন আছে), সেই দিদি মমতা তখন প্রমাণ দিয়েছিলেন, তার বাবার আদিনিবাস এই বাংলাদেশের জন্য তার মমতা বাস্তবে কতটুকু। সাতক্ষীরার মেয়ে মমতা ব্যানার্জি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘দিদি’ ডাকেন; কিন্তু সে সম্বোধনের পেছনে অভিন্ন বাঙালিত্বের চেয়ে ভিন্ন বিষয়ই বড়। তা হলো, পশ্চিমবঙ্গের স্বার্থ আদায় বাংলাদেশকে বঞ্চিত করে হলেও। এ জন্য মনমোহনের ঢাকা আগমনের আগ মুহূর্তে তিনি সাফ জানিয়ে দেন, বাংলাদেশে আসছেন না। কারণ তিস্তার পানি নিয়ে তেমন চুক্তি করবেন না, যেমনটা বাংলাদেশ চাইছে। সে খবরে বাংলাদেশ সরকার বিস্মিত, এ দেশের জনগণ বিুব্ধ এবং স্বয়ং ভারতের সরকারপ্রধান দৃশ্যত বিব্রত হয়েছিলেন। এ অবস্থায় তার ওই সফরের গুরুত্ব ও আকর্ষণ কমে যায় অনেকটাই। তদুপরি এখানকার মানুষের এ ধারণাই হলো যে, দিল্লি চাইলেও কলকাতা চায়নি তিস্তা চুক্তি। অর্থাৎ মনমোহনের মনের টান থাকলেও মমতার মমতা হয়নি তিস্তার পানিবঞ্চিত বাংলাদেশের হাহাকার শুনেও। তবে সচেতন অনেকে বলেছেন, আসলে এটা সাজানো নাটক। মমতার বাধা ও একগুঁয়েমির অজুহাতে নয়া দিল্লি সরকার তিস্তা চুক্তির ব্যাপারে নিজেদের অনীহাকেই বজায় রাখছে।
মমতা ব্যানার্জিরা দাবি করে আসছেন, ‘তিস্তার পানি দিয়ে তাদের কুলাচ্ছে না।’ তাই বাংলাদেশকে পানি ভিক্ষা দেয়া সম্ভব নয়। এ দিকে পশ্চিমবঙ্গে তিস্তা অববাহিকায় আরো অনেক জমি সেচের আওতায় আনার উদ্যোগ নিয়ে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ বলছে, তিস্তা থেকে আমাদের অতিরিক্ত পানি দরকার। আগামী বছর দেড় লাখ হেক্টর জমি আনা হবে সেচের আওতায়। ভারতের ফ্রন্টলাইন সাময়িকীর ২১ ফেব্রুয়ারি সংখ্যায় জানানো হয়েছে, পরিবেশ বিপর্যয়ের ঝুঁকি সত্ত্বেও ‘তিস্তা চতুর্থ প্রকল্প’ হাতে নিয়েছে ভারত। এতে সেখানে ১৪টি গ্রামের ১৪ হাজারের বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। ভারতের ন্যাশনাল বোর্ড অব ওয়াইল্ড লাইফ স্ট্যান্ডিং কমিটি তিস্তার উজানে বাঁধ নির্মাণের ব্যাপারে আপত্তি করেছে। তবে কর্তৃপক্ষ এই বিরোধিতাকে গুরুত্ব দেবে বলে মনে হয় না।
রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রে স্থায়ী কোনো শত্রু বা মিত্র নেই। যা স্থায়ী, তা হলো জাতীয় স্বার্থ। ভারত এটা শতভাগ বোঝে বলে ষোলআনা স্বার্থ আদায় করাই তার টার্গেট। শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বীর কাছ থেকে তা পুরো আদায় সম্ভব না হলেও দুর্বল প্রতিবেশী থেকে ছলেবলে সেটা আদায়ে দেশটি সদা তৎপর। বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের বাস্তবতা এরই সাক্ষ্য।
ভৌগোলিকভাবে বাংলাদেশ ভাটিতে আর ভারত উজানে। এই সুযোগে নদ-নদীর বেলায় তার আচরণে ঈশপের গল্পের নেকড়ে আর মেষশাবকের কথা মনে পড়া স্বাভাবিক। উজানের প্রাণীটি ভাটির নিরীহ শাবকের কোনো যুক্তিই না শুনে তাকে বেঁচে থাকার অধিকারবঞ্চিত করে চরম অন্যায় করেছিল। অপর দিকে এটা তো অনস্বীকার্যÑ প্রতিবেশীকে যতটা সম্ভব সহ্য করে চলতে হয়, যখন সে পড়শিকে দূরে সরিয়ে দেয়া অসম্ভব। ভূগোলের কারণে বাংলাদেশের পক্ষে সম্ভব নয় ভারত থেকে দূরে যাওয়া। আবার দেশটার কর্মকাণ্ড অনেক ক্ষেত্রে আমাদের জাতির জন্য দুঃসহ হয়ে উঠছে। তিস্তা এর একটি নমুনা। ভাটির দেশকে বেকায়দায় ফেলে, চাপে রেখে যতটা সম্ভব ফায়দা তোলা উজানের কোনো সভ্য-ভব্য রাষ্ট্রের আচরণের কায়দা হতে পারে না।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোনো রাজনৈতিক বা অর্থনৈতিক ইস্যু নিয়ে নয়, পানির হিস্যা নিয়ে আগামী দিনে মানবজাতি যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে পারে। এর মধ্যেই বিশ্বের কোনো কোনো অঞ্চলে এর আলামত প্রকট। বাংলাদেশের মতো শান্তিকামী সহনশীল দেশগুলোও যদি পরিবেশযুদ্ধের শিকার হয়, তা হবে মর্মান্তিক ব্যাপার।
অথচ আমাদের বড় বড় নদীকে হত্যার প্রয়াস চলছে পানি আগ্রাসনের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে। এ অবস্থায় বিশ্ব সম্প্রদায়ের শরণ নিতে চাইলে বলা হয়, ‘এটা তো দ্বিপক্ষীয় ইস্যু। আর আমরা পরীক্ষিত মিত্র। অতএব ইস্যুটিকে অহেতুক কেন আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নেয়ার জন্য টানাহেঁচড়া করা হবে?’ অপর দিকে যখন দ্বিপক্ষীয় চুক্তির জন্য তাগিদ দেয়া হয়, তখন সংবিধানের জটিলতা, রাজ্যসরকারের আপত্তি, রাজনৈতিক দলের বিরোধিতা প্রভৃতি ঘরোয়া অজুহাত দেখানো ভারতের বদভ্যাসে দাঁড়িয়ে গেছে। তা হলে বাংলাদেশ যাবে কোথায়? শুধু বন্ধুত্বের জয়গান গাইলেই যদি কাজ হতো, তা হলে ‘সোনা বন্ধুরে…’ বলে গান শোনালেই ভালোবাসার মানুষকে পাওয়া যেত।
পাদটীকা : অতীতে আমাদের দেশে বিশেষ করে প্রাইমারি স্কুলে একটি দেশাত্মবোধক সঙ্গীত গাওয়া হতো প্রতিদিন কাস শুরুর আগে। তখন পাকিস্তান আমল বলে এর দু’অংশের বিষয়ে উল্লেখ ছিল সুমধুর সুরের এই সমবেত সঙ্গীতে। রচয়িতা ছিলেন বিবিসিখ্যাত নাজির আহমদ এবং সুরকার প্রখ্যাত সঙ্গীতজ্ঞ আবদুল আহাদ। গানের এক জায়গায় বলা হয়েছে, ‘তিস্তা-বিতস্তা আজো মুছে যায় গ্লানি দুঃখ বিষাদ।’ পাঞ্জাবের নদী বিতস্তা নিয়ে কারো দুঃখ আছে কি না জানি না, বাস্তবে বাংলাদেশের তিস্তা নিয়ে আমাদের দুঃখ অনেক। ওই গান লেখার ৬৫ বছর পরেও তা না ঘুচে বরং বেড়েছে। তিস্তা নিয়ে বাংলাদেশের দুঃখ আর ভারতের গ্লানি।
(নয়া দিগন্ত, ১৬/০৩/২০১৪)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ