• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন |

উপজেলা নির্বাচনে ঘুরে দাঁড়িয়েছে আ’লীগ

ECসিসি নিউজ: প্রথম দুই পর্বে বিএনপির চেয়ে পিছিয়ে থাকলেও উপজেলা নির্বাচনের তৃতীয় পর্বে এসে ঘুরে দাঁড়িয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। আগের দুই পর্ব মিলিয়ে বিএনপির চেয়ে ১৬ উপজেলা চেয়ারম্যান কম থাকলেও এবার অন্তত ১১টি উপজেলায় এগিয়ে তারা।

বিভিন্ন স্থানে বিচ্ছিন্ন সহিংসতার মধ্যে ৮১ উপজেলায় শনিবার দিনভর ভোটগ্রহণের পর ৭৭টির চেয়ারম্যান পদের ফল পাওয়া গেছে। গোলযোগের কারণে কিছু কিছু কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চারটি উপজেলায় ফল ঘোষণা স্থগিত করা হয়েছে।

ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যায়,  ৩৯ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে জয়ী হয়েছেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নেতারা। অন্যদিকে বিএনপি নেতারা ২৮টি উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাদের জোটসঙ্গী জামায়াতে ইসলামী নেতারা সাতটি উপজেলায় চেয়ারম্যান হয়েছেন। একটি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন এলডিপি সমর্থিত প্রার্থী। তিন দলের বিজয়ীদের নিয়ে ১৯ দলের ৩৬ জন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন এ ধাপে।

প্রথম দুই পর্বের তুলনায় তৃতীয় পর্বে গোলযোগের মাত্রা ছিল বেশি যাতে দুজন নিহতও হয়েছেন। গোলযোগের কারণে  ১৩টি উপজেলার ২৬ কেন্দ্রের ভোট স্থগিত করা হয়। অপেক্ষাকৃত গোলযোগপূর্ণ তৃতীয় পর্বে কেন্দ্র দখলের ‘মহোৎসব’ হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, মানুষ শান্তিপূর্ণভাবে ভোট দিতে পারলে ‘ভরাডুবি’ হবে বুঝতে পেরে ক্ষমতাসীন দলের নেতারা ‘জবরদখল’ করেছেন। তবে আওয়ামী লীগ বলেছে, দুই-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সব জায়গায় শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোটের সময় তাদের সমর্থিত প্রার্থী ও সমর্থকরাই রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক ‘আক্রমণের’ শিকার হয়েছেন বলেও দাবি করেছেন দলটির নেতারা।

প্রথম দুই পর্বে ২১৩টি উপজেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত ৮২ জন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিন পর্ব মিলিয়ে  ক্ষমতাসীন দলের চেয়ারম্যানের সংখ্যা দাঁড়াচ্ছে ১২১ জন। অন্যদিকে তিন পর্ব মিলিয়ে বিএনপির চেয়ারম্যানের সংখ্যা দাঁড়াচ্ছে ১২৬ জন। সে হিসেবে বিএনপির চেয়ে এখনো পাঁচজন উপজেলা চেয়ারম্যান কম থাকছে ক্ষমতাসীন দলের। তবে জামায়াত ও এলডিপি নেতাদের নিয়ে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৯ দলের চেয়ারম্যানের সংখ্যা দাঁড়ায় ১৫৩ জন, এর মধ্যে জামায়াতের ২৭ জন।

তৃতীয় পর্বে অনুষ্ঠিত ভোটের মধ্যে যশোরের মণিরামপুর,  বরিশালের হিজলা, চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ ও ময়মনসিংহের মুক্তগাছায় ফল ঘোষিত হয়নি। দেশের ৪৮৭ উপজেলার মধ্যে তিন দিনে ২৯৪টিতে ভোটগ্রহণ হল। আরো তিন পর্বে বাকি উপজেলাগুলোতে ভোট হবে। তৃতীয় পর্বের ভোটে পার্বত্যাঞ্চলে পাহাড়ি সংগঠন জনসংহতি সমিতি-জেএসএসের দু’জন চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন।

এবারের উপজেলা নির্বাচনে এ পর্যন্ত নির্বাচিতদের মধ্যে দেশের একমাত্র নারী চেয়ারম্যান হয়েছেন রাঙামাটির বরকল উপজেলার মনি চাকমা। যিনি জনসংহতি সমিতির সমর্থিত প্রার্থী ছিলেন।

এবার পার্বত্য অঞ্চলে ক্ষমতাসীন দলের কোনো নেতা চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী না হলেও বান্দরবানে দুই উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন বিএনপি নেতারা।

বিএনপি বিহীন সংসদে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি প্রথম দুই পর্বে দুটি উপজেলায় চেয়ারম্যানের পদ পেলেও এবার তাদের কোনো নেতাই চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে পারেননি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ