• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১১:৩১ পূর্বাহ্ন |

নিখোঁজ বিমান রহস্য : সন্দেহের তীর দুই পাইলট

pilotssআন্তর্জাতিক ডেস্ক: নয় দিন আগে নিখোঁজ হওয়া মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের বোয়িং বিমানটির রহস্যের অবসান হয়নি এখনো। ১৪টি দেশের প্রায় ১০০ বিমান, নৌযান, উপগ্রহ সম্মিলিত চেষ্টাও কোনো চিহ্ন খুঁজে পায়নি। একেক সময় একেক দিকে জোর দেয়া হচ্ছে। এবার বিমানের দুই পাইলটের দিকে নজর নিবদ্ধ করা হয়েছে। এই দুই পাইলটই বিমানটিকে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গেছেন বলে সন্দেহ উঠেছে। আর বিমানটি প্রধান পাইলট মালয়েশিয়ার বিরোধী দলীয় নেতা আনোয়ার ইব্রাহিমের সমর্থক বলে অভিযোগ ওঠেছে। সম্প্রতি বিতর্কিত একটি অভিযোগে তার পাঁচ বছর কারাদণ্ড হওয়ায় পাইলট এ কাজ করে থাকতে পারেন বলেও কেউ কেউ সন্দেহ করছেন।
গত ৭ মার্চ শুক্রবার মধ্যরাতের পর ২৩৯ যাত্রী নিয়ে কুয়ালামপুর থেকে বেইজিং যাওয়ার পথে বিমানটি হাওয়া হয়ে যায়।
মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, বিমানটি পূর্ব পেনিনসুলা উপকূলে পৌঁছতেই এয়ারক্র্যাফট অ্যাড্রেসিং অ্যান্ড রিপোর্টিং সিস্টেম বিকল করে দেওয়া হয় বলে জানিয়েছেন নাজিব রজক।
অন্যদিকে, একটি ব্রিটিশ উপগ্রহ যোগাযোগ সংস্থা দাবি করেছে তারা নিঁখোজ বিমানটি থেকে ইলেক্ট্রনিক পিং সিগন্যাল পেয়েছে। এর সাহায্যে বিমানটির অবস্থান খুঁজে পেতে সুবিধা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।
স্যাটেলাইট রিপোর্টে দেখা যায়, রাডারকে ধোঁকা দিতে বারবার বিমানের গতিপথ বদলানো হয়েছে। বিমানকে একাধিকবার বিভিন্ন উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে এবং সেখান থেকে নামিয়ে আনা হয়েছ। যা দেখে তদন্তকারীদের অনুমান, খুব দ পাইলট ছাড়া এ কাজ কারো পে সম্ভব নয়।
মার্কিন গোয়েন্দারাও মনে করছন, ককপিটে বসে থাকা লোকেরাই ওই বিমানটিকে ভিন্ন দিকে নিয়ে গেছেন।
পাইলটদের দিকে সন্দেহ নিবদ্ধ হওয়ার প্রোপটে মালয়েশিয়া পুলিশ শনিবার দুই পাইলটের বাড়িতে তল্লাসি চালিয়েছে। তবে সন্দেহজনক কিছু পাওয়া গেছে কি না তা জানা যায়নি।
প্রধান পাইলট জাহারি আহমদ শাহ (৫৩) ও কো-পাইলট ফার্ক আবু হামিদের (২৭) পরিবারের পক্ষ থেকে অবশ্য এ ব্যাপারে কিছু বলা হয়নি।  টেমস নদী : ফাইল ছবি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ