• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩৬ পূর্বাহ্ন |

আ.লীগের শরীর ঘেঁষে জামায়াত, ধরা-ছোয়ার বাইরে বিএনপি

111সিসি ডেস্ক: তৃতীয় দফায় এসে উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি চেয়ারম্যান পদে পিছিয়ে পড়লেও ভাইস চেয়ারম্যান পদে ঠিকই এগিয়ে রয়েছে। সংঘাত, মামলা-হামলা, কেন্দ্র দখল ও ব্যালট বাক্স চুরির পরও ভাইস-চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের চেয়ে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা বেশি উপজেলায় বিজয়ী হয়েছেন।

তৃতীয় দফা নির্বাচনে ৭৮টি উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদ থেকে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী জিতেছে ৫৮টিতে। দলটির মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হয়েছে ৩৯ জন। আর আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী জিতেছে ৫৪টিতে, তাদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ২৭ জন।

জামায়াতে ইসলাম সমর্থিত প্রার্থীরা জয় পেয়েছে ২৪টিতে। তাদেরও ৫ জন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। স্থানীয় রাজনীতিতে বিলীনের পথে জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা একটিতেও জিতে আসতে পারেনি।

প্রথম দুদফা উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীদের চেয়ে বেশি চেয়ারম্যান পদ জিতেছিল বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা। কিন্তু তৃতীয়বারে এসে তারা পিছিয়ে পড়েছে। তারপরও সব মিলিয়ে এখনও এগিয়ে রয়েছে বিএনপি।

ইংরেজি দৈনিক ‘ডেইলি স্টার’ এক প্রতিবেদনে দেখিয়েছে, তিন দফায় ২৯১ উপজেলায় ভোট হয়েছে। এখানে ৫৮২টি ভাইস চেয়ারম্যানের পদ। এর মধ্যে বিএনপি পেয়েছে ২২১টি। বিপরীতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা জয় পেয়েছে ১১৮টিতে।

চমক দেখিয়ে আওয়ামী লীগের শরীর ঘেঁষেই রয়েছে জামায়াতে ইসলামে। তাদের সমর্থন নিয়ে ১০৩ জন ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছে। আর এরশাদের নেতৃত্বে বেগম রওশনের বিরোধী দল জাতীয় পার্টি মাত্র ১২টিতে জয় পেয়েছে। ৬১টিতে জিতেছে অন্যরা।

নারী প্রার্থীদের নির্বাচনে ভালো করার কারণ ব্যাখ্যা করে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভি বলেছেন, বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা মানুষের কাছে বেশি গ্রহণযোগ্য। এজন্য জনগণ আওয়ামী সমর্থনপুষ্ঠদের চেয়ে বিএনপি সমর্থিতদের বাছাই করেছেন।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ক্যাডারা ৩০-৪০টি উপজেলায় ভোটকেন্দ্র দখল না করলে চেয়ারম্যান পদে তাদের প্রার্থীরা আরও ভালো করতো।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন, তাদের দল মূলত চেয়ারম্যান পদে জোর দিয়েছে। ভাইস চেয়ারম্যান পদে একেবারেই খেয়াল করেনি।

তিনি বলেন, ‘এই সুযোগটি নিয়েছে বিরোধিরা। তারা প্রত্যেকটি ভাইস চেয়ারম্যান পদে একজন প্রার্থী দিয়ে বিজয়ী হয়েছে।’

এবারের নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ছিল ৬৩ দশমিক ৫২ শতাংশ, যেখানে আগের দুবারে ছিল যথাক্রমে ৬২ দশমিক ৪৪ ও ৬২ দশমিক ১৯ শতাংশ।

পাঁচ বছর আগের উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা ৯৬টি ভাইস চেয়ারম্যান পদ জিতেছিল। এর মধ্যে ৪৮টি সংরক্ষিত আসনও পেয়েছিল নারীরা। সেখানে বিরোধী বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা পেয়েছিল মাত্র ৩৩টি পদ। জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীরা জিতেছিল মাত্র ৫টি ভাইস চেয়ারম্যান পদে।

উপজেলা নির্বাচনকে নির্দলীয় বলা হলেও এবার প্রধান দলগুলোর কাছে তা রীতিমত যুদ্ধ। প্রেস্টিজ রক্ষার এই যুদ্ধে জিততে তারা সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে।

আগামী ২৩ মার্চ ৯৩টি উপজেলায় এবং ৩১ মার্চ হবে আরও ৭৪টি উপজেলায় নির্বাচন হবে।

উৎসঃ   আরটিএনএন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ