• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩৬ পূর্বাহ্ন |

ইউক্রেন ভাঙ্গছে, রাশিয়ার সঙ্গে যাচ্ছে ক্রিমিয়া

70487_1আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ক্রিমিয়ার সিংহভাগ ভোটারই ইউক্রেন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে রাশিয়া ফেডারেশনে সঙ্গে যুক্ত হবার পক্ষে মত দিয়েছে। ভোট গণনা শেষ হওয়ার আগেই এ ফলাফল পাওয়া যায়। কর্মকর্তারা জানাচ্ছেন, এ পর্যন্ত অর্ধেক ভোট গণনা করা হয়েছে এবং এর মধ্যে ৯৫ দশমিক ৫ ভাগ পঁচানব্বই শতাংশেরও বেশি ভোটার রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত হবার পক্ষে মত দিয়েছে। রোববার ওই অঞ্চলে গণভোট অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপ এই গণভোটের কঠোর সমালোচনা করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা জানিয়েছেন, এই গণভোট অবৈধ এবং তারা এক স্বীকৃতি দেবে না। যুক্তরাষ্ট্র এবং তাদের পশ্চিমা মিত্ররা রাশিয়ার ওপর অবরোধ আরোপের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

তবে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এই গণভোটকে আন্তর্জাতিক আইনের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ বলে দাবী করেছেন।

গণভোটের পর রোববার রাতে ক্রিমিয়ার মুল শহর সিমফেরোপোলের লেনিন স্কয়ারে সমবেত হয়ে হাজার হাজার মানুষ আনন্দ উৎসব করেছে। ক্রিমিয়ার ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী সের্গেই আকসেনভ ইন্টারফ্যাক্স নিউজ এজেন্সিকে জানিয়েছেন, ক্রিমিয়া যত দ্রুত সম্ভব রাশিয়ার সাথে সংযুক্ত হবে।

আকসেনভ জানিয়েছেন, সোমবার ক্রাইমিয়ার পার্লামেন্ট সদস্যদের একটি দল নিয়ে তিনি মস্কো যাবেন এবং সেখানে গিয়ে তিনি রুশ ফেডারেশনে আনুষ্ঠানিকভাবে যুক্ত হবার প্রক্রিয়া শুরু করবেন। এছাড়া ক্রিমিয়াতে সামনের সপ্তাহের মধ্যে ইউক্রেনের মুদ্রা হৃভনিয়ার সাথে সাথে রুশ মুদ্রা রুবল চালু করা হবে বলেও তিনি জানিয়েছেন। তবে ক্রিমিয়ার তাতার বংশোদ্ভূতদের জন্য রোববার ছিল সাদামাটা একটি দিন। কেননা তাদের অধিকাংশই এই গণভোট বর্জন করেছিল।

রোববার গণভোটের দিন দাবা খেলায় ব্যস্ত দুই তাতার
যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের হুমকি উপেক্ষা করেই ইউক্রেন থেকে বিছিন্ন হয়ে রুশ ফেডারেশনে যোগ দেয়ার পক্ষে গণভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার পর, ব্রাসেলসে ইইউ’র পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এক বৈঠকে নেতৃবৃন্দ জানিয়েছেন ,তারা রাশিয়ার বিরুদ্ধে অবরোধ আরোপের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ডাচ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রানস টিমেরম্যান বলেছেন, এখন পর্যন্ত রাশিয়ার আচরণ সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য। এর জবাবে এখন অবরোধ আরোপের কথা ভাবা হচ্ছে। এ ধরণের অবরোধে সব সময় সাধারণ মানুষ ভুক্তভোগী হয়। কিন্তু এখন একমাত্র রুশ নাগরিকেরাই এই পরিস্থিতি ঠেকাতে পারে।

তবে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ক্রাইমিয়ার জনগণের ইচ্ছার প্রতি সম্মান দেখাবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন ।

অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে এই গণভোট ইউক্রেন সঙ্কটকে আরো জটিল করে তুলবে।

এক নজরে ইউক্রেন সঙ্কট

২১ নভেম্বর ২০১৩: ইইউ’র সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরে অস্বীকৃতি জানান প্রেসিডেন্ট ভিক্তর ইয়ানুকোভিচ।
ডিসেম্বর: বিক্ষোভকারীরা কিয়েভ সিটি হল দখল করে নেয়। প্রেসিডেন্ট ইয়ানুকোভিচের পদত্যাগের দাবিতে রাজধানীর ইনডিপেন্ডেন্ট স্কয়ারে একটানা বিক্ষোভ চলতে থাকে।

২০-২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৪: কিয়েভ সংঘাতে কমপক্ষে ৮৮ জন নিহত।

২২ ফেব্রুয়ারি: প্রেসিডেন্ট ইয়ানুকোভিচের পলায়ন। তাকে ক্ষমতাচ্যূত করে ইউক্রেন পার্লামেন্টে নতুন নির্বাচনী তারিখ ঘোষণা।

২৭-২৮ ফেব্রুয়ারি: রুশপন্থী বন্দুকধারীদের ক্রিমিয়ার গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ভবন দখল।

৬মার্চ: রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত হওয়ার পক্ষে ক্রিমিয়া পার্লামেন্টে ভোট অনুষ্ঠিত।

১৬ মার্চ: ক্রিমিয়ায় গণভোট অনুষ্ঠিত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ