• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৪:২৪ অপরাহ্ন |

জন্মদিনে তোমাকে স্মরি হে বঙ্গবন্ধু

হাফিজুর রহমান হাফিজ:

Mojib-2প্রখ্যাত সাহিত্যিক শওকত ওসমান বলেছেন, শ্রেষ্ঠ সন্তানদের জন্মদিবস থাকে, মৃত্যুদিবস থাকে না। তাঁর কথার সূত্র ধরে আমরাও বলতে পারি, বঙ্গবন্ধুর জন্মদিবস আছে, মৃত্যুদিবস নেই। কেননা, কালের চাকা ঘুরে, ইতিহাসের পাতা ওল্টিয়ে নিয়ত ১৭ই মার্চ আসে। বিশ্বের এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত পর্যন্ত সুতীব্র ঝংকারে ধ্বনিত হয় একটি শাশ্বত নাম শেখ মুজিবুর রহমান। ছোট বেলায় মা-বাবা তাঁকে আদর করে ডাকতেন খোকা বলে। আমরা ডাকি বঙ্গবন্ধু নামে। আর ঐতিহাসিকরা ঔদায্য দেখিয়ে নাম দিয়েছেন রাখাল রাজা।

বঙ্গবন্ধু ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জ জেলার পাটগাতি ইউনিয়নের টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পিতার নাম শেখ লুৎফর রহমান। মাতার নাম সাহেরা খাতুন। শেখ লুৎফর রহমানের ছয় ছেলে, চার মেয়ে। ছেলেদের মধ্যে শেখ মুজিবুর রহমান সবার বড়।

বঙ্গবন্ধু তাঁর অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে কৃতজ্ঞসহকারে তাঁর পূর্বপুরুষদের কথা উল্লেখ করেছেন। উল্লেখ করেছেন পূর্ব পুরুষ শেখ কুদরত উল্লাহ, শেখ একরামুল্লাহ, শেখ আব্দুল মজিদ এবং শেখ আব্দুল হামিদের কথা। তাঁরা কখন, কিভাবে এসে টুঙ্গিপাড়ায় বসতি স্থাপন করেছিলেন এবং আভিজাত্যের সঙ্গে দিনাতিপাত করেছিলেন সে সব কথা আমরা তাঁর গ্রন্থ থেকে জানতে পারি। অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে একই সঙ্গে তিনি অকপটে তাঁর জন্ম, শিক্ষা, বিবাহ, রাজনীতি, সংগ্রাম এবং দেশ ও জনগণের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালবাসার কথাও বর্ণনা করেছেন অত্যন্ত নিখুঁতভাবে। সে বর্ণনা যেমন হৃদয়গ্রাহী তেমনি আকর্ষনীয়। বঙ্গবন্ধুর নিখুঁত বর্ণনা আমাদেরকে শুধু অনুপ্রাণিত করে না, তাঁর নীতি ও আদর্শের প্রতিও আকৃষ্ট করে অবলীলায়।

বলতে দ্বিধা নেই যে, বঙ্গবন্ধু একটি সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করলেও তাঁর জীবন ছিল নানা দিক দিয়ে বর্ণাঢ্য, অনন্যসাধারণ এবং এক অর্থে ব্যতিক্রমী। তাঁর ২৪ বছরের রাজনৈতিক জীবনে ১২ বছর কারাগারের অন্ধপ্রকষ্টে কাটানো আমাদেরকে সে কথাই স্বরণ করিয়ে দেয়। বাঙ্গালী রাজনীতিবিদদের মধ্যে তিনিই একমাত্র ব্যক্তিত্ব যাকে ২৪টি ষড়যন্ত্রমূলক মামলার মোকাবেলা করতে হয়েছিল। দুবার ফাঁসির আদেশ শুনতে হয়েছিল। তাছাড়া তিনি ৫২ এর ভাষা আন্দোলনের প্রতি অকুন্ঠ সমর্থন জ্ঞাপন করতে গিয়ে অনশন করেন। নিজের জীবনকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছিলেন। আর এসব বিষয় পর্যালোচনা করে তাঁকে বাংলার ইদানিং কালের আপোষহীন নেলসন ম্যান্ডোলা নামেও আখ্যায়িত করলে অতুক্তি হবে না।

বঙ্গবন্ধু “ক্রিম কালার” রাজনীতিক ছিলেন না। তিনি ছিলেন প্রকৃত অর্থেই মাটি ও মানুষের নেতা। বিটপী যেমন রৌদ্রে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে, শাখা-প্রশাখা মেলায়, কালের প্রবাহে শতবর্ষী অভিধা লাভ করে তেমনি বঙ্গবন্ধু অক্লান্ত পরিশ্রম করে, সাধনা, সংগ্রাম ও ত্যাগের মহিমা ছড়িয়ে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী, জাতির জনকের মত উপাধি তিলক ললাটে ধারণ করতে পেরেছেন। তাঁর ছিল অপরিসীম সাহস, প্রজ্ঞা আর নিষ্ঠা। তাঁর রাজনৈতিক জীবনে অসংখ্য ঘটনা প্রমাণ করে যে, তিনি ন্যায্য কথা বলতে কখনও দ্বিধা করেননি। দুএকটা উদারহণ দেব।

একবার ছাত্র লীগের বাৎসরিক সম্মেলনে বাংলার অবিংসবাদিত নেতা হোসেন শহীদ সোহরাওয়াদী তাঁকে কুটুক্তি করে বলেন, ‘Who are you? You are nobody.’ শেখ মুজিব উচ্চ স্বরে বলেন, ‘If I’m nobody, then why you have invited me. You have no right to insult me. I will prove that I am somebody.’ তাঁর সাহসিকতায় মুগ্ধ হয়ে সোহরাওয়াদী সাহেব তাঁকে বুকে টেনে নিয়ে আলিঙ্গন করেন। ১৯৪৮ সালে ঢাকায় কার্জন হলে পাকিস্তানের জনক মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা হিসেবে ঘোষণা করলে উপস্থিত ছাত্র সমাজের মধ্য থেকে তিনি নো, নো, বলে প্রতিবাদ মুখর হয়েছিলেন। আরও উদাহরণ আছে। একবার বন্দী অবস্থায় পাকিস্তানী পুলিশ অফিসার তাঁর দেহ তল্লাশী করতে চাইলে তিনি ক্রুদ্ধকন্ঠে বলেছিলেন, ‘Don’t touch me. I am a state Prisoner ‘ তাঁর সাহস দেখে খ্যান্ত দেন পুলিশ অফিসার।

বলতে গেলে সত্যের সঙ্গে, ন্যায়ের সঙ্গে আপোষহীনতা ছিল বঙ্গবন্ধুর চরিত্রের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। তাঁর দীঘ রাজনৈতিক জীবনে তিনি ভারতের বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু, শেরে বাংলা আবুল কাশেম ফজলুল হক, মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, মহাত্মা গান্ধী, আবুল হাসেম, মাওলানা আকরাম খাঁ এর মত শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিদের সংস্পর্শে এসেছিলেন। তাঁদের বিরল চারিত্রিক গুণাবলি বঙ্গবন্ধুকে অনুপ্রাণিত করেছিল ভীষণভাবে। পুষ্ট করে ছিল তাঁর নীতি ও আদর্শকে। নইলে তিনি বাইসাইকেলে চড়ে মাইলের পর মাইল ঘুরে, খেয়ে না খেয়ে দল গঠন, ঠেলা গাড়ী নিজে ঠেলে দুর্ভিক্ষ পীড়িত মানুষের কাছে রিলিফের মাল পৌছানোর মত আয়াস সাধ্যক কাজ করতে উৎসাহিত হবেন কেন?

বঙ্গবন্ধু ছিলেন দুরদর্শী নেতা। ছাত্র অবস্থায়ই তিনি পাকিস্তানিদের মনোভাব বুঝতে পেরেছিলেন, ধরতে পেরেছিলেন তাদের নীল নকশার কারসাজি। তাই তাদের শাসন শোষনের বিরুদ্ধে অসম্ভব প্রতিবাদী হয়ে উঠেন। বাঙ্গালীদেরকে মুক্ত করার ব্রত গ্রহণ করেন। আর সেমত পরিকল্পনাও করেন। তাঁর প্রণীত ছয় দফা (Six Point Programme) সেই পরিকল্পনারই অংশ যা বাংলার স্বাধীনতা অর্জনের চাবিকাঠি। সুখের বিষয় এই যে, বাঙ্গালী জনগণও তাঁকে বুঝতে পেরেছিলেন, আপন করে নিয়েছিলেন প্রিয় নেতাকে ভালবাসায়, শ্রদ্ধায়। তাদের দেয়া “বঙ্গবন্ধু” উপাধি নিছক কোন আবেগ তাড়িত বিষয় নয়। এর পিছনে রয়েছে একজন মহান নেতার প্রতি জনগণের গভীর আস্থা ও ভালবাসার স্বীকৃতি।

বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাও তাঁর পিতার আর্দশ ও সংগ্রামী জীবন মূল্যায়ন করে বলেছেন- “মানুষের দুঃখে তাঁর মন কাঁদতো। বাংলার দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফুটানো, সোনার বাংলা গড়বেন এটাই ছিল তাঁর জীবনের একমাত্র ব্রত।…. যে কারণে তিনি জীবনের সব সুখ, আরাম-আয়েশ ত্যাগ করে জনগণের দাবীর আদায়ের জন্য এক আদর্শবাদী ও আত্মত্যাগী রাজনৈতিক নেতা হিসেবে আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন।”

বঙ্গবন্ধুর শ্রেষ্ঠ অবদান এই যে, তিনি বাঙ্গালী জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছেন, স্বাধীনতার মূলমন্ত্রে উজ্জীবিত করেছেন। তাঁর ৭১’ এর ৭ মার্চের ভাষণে সাড়া দিয়ে বাঙ্গালী জাতি হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছে এবং নয় মাসের সশস্ত্র যুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছে। সফল নেতৃত্বের এমন নজির পৃথিবীর ইতিহাসে সত্যিই বিরল।

বঙ্গবন্ধু শুধু একজন সফল রাজনীতিবিদই ছিলেন না, তিনি একজন সফল রাষ্ট্র নায়কও ছিলেন। তাঁর মাত্র সাড়ে তিন বছরের শাসনকাল অভূতপূর্ব সাফল্যে সমুজ্জল। স্বল্প সময়ের মধ্যে তিনি জাতিকে একটি উত্তম সংবিধান উপহার দিয়েছেন, এক কোটি শরণার্থীকে পুর্ণবাসন করেছেন, ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা ঘাট, ব্রীজ ও কল-কারখানা মেরামত করেছেন, ২৫ বিঘা জমির খাজনা মাফ করেছেন, কল-কারখানায় উৎপাদন বৃদ্ধি করেছেন, গোটা প্রাইমারী শিক্ষা ব্যবস্থাকে জাতীয়করণ করেছেন, ৬৭৬ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে বিভিন্ন ক্যাটাগরীতে খেতাব দিয়ে সম্মানিত করেছেন, বিশ্বের প্রায় সকল রাষ্ট্রের স্বীকৃতি আদায় করেছেন এবং সর্বোপরি জাতিসংঘে বাংলায় ভাষণ দিয়ে বাঙ্গালী জাতিকে গর্বিত করেছেন। বলা বাহুল্য, এ সকল সাফল্য তাঁর অগণিত সাফল্যের নমুনামাত্র।

বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশের শাসন ক্ষমতার শীর্ষে অবস্থান করলেও সহজ সরল জীবন যাপন করতেন। অতি সাধারণ পোষাক পরতেন এবং সাধারণ খাবার গ্রহণ করতেন। অনেক হিতৈষীর উপদেশ সত্বেও ধানমন্ডির ৩২নং সাদামাটা বাড়ী ত্যাগ করে বঙ্গভবনে বাস করতে উৎসাহবোধ করেননি। প্রকৃতপক্ষে তিনি দেশের মানুষকে গভীরভাবে ভালবাসতেন এবং তাদের মধ্যে মিশে থাকতে পছন্দ করতেন। বস্তুতঃ তাঁর নিঃস্বার্থ দেশ প্রেম, ভালবাসা আর মানুষকে আপন করার বিরল ব্যক্তিত্বই তাঁকে সমকালীন বিশ্ব রাজনীতিতে অসম্ভব জনপ্রিয় করে তুলেছিল।

কিন্তু সাম্রাজ্যবাদী গোষ্ঠি তাঁর এই বিশাল জনপ্রিয়তাকে সহ্য করতে পারেনি আদৌ। তারা নানাভাবে তাঁকে খতম করার নীল নকশা প্রণয়ন করে। আর সে নীল নকশা বাস্তবায়নে সহায়তা করে বাংলাদেশের দ্বিতীয় মীর জাফর খন্দকার মোস্তাক আহমেদ। তার একান্ত মদদে ও উৎসাহে কতিপয় বিপদগামী সেনা অফিসার কর্তৃত্ব ৭৫ এর ১৫ আগষ্ট সপরিবারে নিহত হন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

তবে ইতিহাসকে কেউ কোন দিন অস্বীকার করতে পারেনি, পারবেও না। বঙ্গবন্ধুর ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম হবে কেন? বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হত কিনা সন্দেহ। আজ বঙ্গবন্ধু এবং বাংলাদেশ একান্তই সমার্থক। সময় গড়িয়ে যতই ১৭ই মার্চ আসবে, যাবে ততই শেখ মুজিবুর রহমানের নাম বাংলার পলি মাটিতে, বাঙ্গালীর হৃদয়ে, মন মননে উজ্জল থেকে উজ্জলতর হয়ে ওঠবে। তাই কবির কথায় বলতে হয়-

“হে মহামানব,
আজও এই তোমার স্মরণ তীর্থে এসেছে সবাই।
তুমি অবিনাশী, তুমি সকলের প্রিয়,
অমর মানব তুমি, নিত্য স্মরনীয়।”

লেখক: অধ্যক্ষ, সৈয়দপুর মহাবিদ্যালয়


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ