• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩০ অপরাহ্ন |

পার্বতীপুরে বরখাস্তকৃত প্রধান শিক্ষক এমপিও ভুক্তির চেষ্টা

parbotipurপার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: পার্বতীপুরে মুক্তিযোদ্ধা উচ্চ বিদ্যালয় চূড়ান্ত বরখাস্তকৃত প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক মন্ডল বিশেষ তদবীর ও রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে সংশ্লিষ্ট জেলা শিক্ষা অফিসারসহ বিভিন্ন দপ্তর ম্যানেজ করে এমপিও ভুক্তির অন্তরভূক্তি করার জোর প্রচেষ্টা করছে।
দিনাজপুরের পার্বতীপুর শহরের ৯২ সালে স্থাপিত মুক্তিযোদ্ধা উচ্চ বিদ্যালয়ের চূড়ান্ত বরখাস্তকৃত প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক মন্ডল প্রধান শিক্ষক থাকা অবস্থায় বিদ্যালয়ের সরকারী-বেসরকরী টিউশন ফি’র টাকা ও  সরকারী বরাদ্দ আতœসাতের অভিযোগ গুলি সহকারী কমিশনার ভূমি তদন্ত করেন। এবং নারী ঘটিত কেলেংকারীর অভিযোগে ৯৯ সালে সাময়ীক বরখাস্তের পর ২০০১ সালে ম্যানেজিং কমিটি তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে তাকে চুড়ান্ত বরখাস্ত করেন।
এসময়ে ২০০২ সালে কমিটি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান মিজানুর রহমানকে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়। ২০০৩ সালে মে মাসে প্রধান শিক্ষক হিসেবে এমপিও ভূক্ত হয়। এসময় ৬ ডিসেম্বর ২০০৬ সালে বিদ্যালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক উপ-পরিচালক জসিম উদ্দীন ভূইয়া পরিদর্শন ও নিরীক্ষা আসেন। পরিদর্শনে আপত্তি দাখিল করেন। নিরীক্ষা অধিদপ্তর স্মারক নং-ডিআইএ/দিনাজপুর/১১-এম ৪৭১ রাজঃ ৮৩৫/৫ হইতে ১৬ আগষ্ট ২০০৭ সালে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহ ৬ জনের বিরাদ্ধে আপত্তি করে পত্র প্রেরণ করেন। এ সময় পরিদর্শন প্রতিবেদনে অডিট আপত্তি সমূহ নিষ্পত্তির লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট দপ্তর হইতে ব্রডশীট আকারে জবাব চাহিলে প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে জবাব প্রেরন করেন। অডিট আপত্তির অপব্যাখ্যা ও রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে ০৩/১২/০৮ কমিটি বিহিন অবস্থায় তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুধু মাত্র বেতন বিল উত্তোলনের জন্য সহকারী শিক্ষিকা বিলকিস জাহানকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা হিসাবে দায়িত্ব প্রদান করেন।
এসময়ে কমিটি বিহীন অবস্থায় তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার অডিট আপত্তি কথা উল্লেখ পূর্বক বেতন ভাতা কেন স্থগিত করা হইবে না মর্মে কারন দর্শান। উক্ত কারণ দর্শনের পত্রের বৈধ্যতা চ্যালেঞ্জ করে মিজানুর রহমান দিনাজপুর সহকারী জজ আদালতে ১১৬/২০০৮ অন্য মামলা দায়ের করেন। উক্ত মামলা প্রার্থীত মতে না মঞ্জুর হলে পরবর্তীতে জেলা জজ আদালতে ০৩/২০০৯ অন্য আপিল মামলা দায়ের করিলে প্রার্থীত মতে আদালত আদেশ প্রদান করেন।
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জারীকৃত ০৪/০২/২০১০ইং তারিখে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন ভাতা সরকারী অংশ প্রদান জনবল কাঠামো সম্পর্কিত নির্দেশিকার আলোকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় আইন ও অডিট শাখা-৫ এর সিনিয়র সহকারী সচিব নাজমুন নাহার মানু স্বাক্ষরীত স্মারক নং- শিম/শাঃ /৫/ব্রডশীট/১৫/২০০৯/১১৬তারিখ-০৫/০৪/২০১০ইং এবং পরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর, শিক্ষা ভবন, ঢাকা স্মারক নং- ৯এ/১৩৩৪/অডিট/০৭/৭১২(৫)২৬/০৪/২০১০ইং তারিখে পত্রে প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমানসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে আনিত অডিট আপত্তি হইতে অব্যাহতি প্রদান করেন।
কমিটি সংক্রান্ত  ৯৯/২০০৮ অন্য মামলা বিচারাধীন থাকা আবস্থায় শাখা শিক্ষিকা বিলকিস জাহান গায়ের জোরে ও দলীয় প্রভাবে তার স্বামী সাবেক চেয়ারম্যান এমদাদুল হক সভাপতি করে এডহক কমিটি গঠন করেন। এবং রহস্য জনক কারনে চূড়ান্ত বরখাস্তকৃত আব্দুল মালেক মন্ডলের ২৪/০৮/২০০৯ ও ২৮/০৮/২০০৯ ইং তারিখে বে আইনী ভাবে রেজুলেশন করে চূড়ান্ত বরখাস্তকৃত প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক মন্ডলকে পুন নিয়োগ প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এসময় প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান রেজুলেশন চেলেঞ্জ করে দিনাজপুর আদালতে ১৩৫/০৯ অন্য মামলা দায়ের করেন। বিজ্ঞ আদালত রেজুলেশন দুটি বাতিল সহ বাদীর প্রার্থীতা মতে আদেশ পায়।
প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান ০৩/০৯ আপিল মামলার আদেশের প্রেক্ষিতে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহামান্য হাইকোর্টে ৪৯১৪/১০সিঃরিঃ আপিল মোকদ্দমাটি খারিজ হয় এবং ০৩/০৯ নং মামলার আদেশ বহাল রাখেন। আগষ্ট ০৮ হতে সেপ্টেম্বর ১৩ পর্যন্ত প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান সহ ৬ জন শিক্ষক-কর্মচারী বেতন ভাতাদী উত্তোলন করে আসেন।
বর্তমানে বিদ্যালয় চূড়ান্ত বরখাস্তকৃত প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক মন্ডল বিশেষ তদবীর করে রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে সমস্ত মামলার তথ্য গোপন করে জেলা শিক্ষা অফিসারসহ বিভিন্ন দপ্তর ম্যানেজ করে এমপিও ভুক্তির অন্তরভূক্তি করার জোর প্রচেষ্টা করছে বলে মিজানুর রহমান অভিযোগ করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ