• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৭:০৬ অপরাহ্ন |

বঙ্গবন্ধুর জন্য এক বছর রোজা রাখেন কুড়িগ্রামের সোবাহান

1111সিসি ডেস্ক: বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান- জাতির জনক। আমাদের ভালোবাসা আর শ্রদ্ধায় জড়ানো একটি নাম। তবে এ ক্ষেত্রে আবদুস সোবাহান অন্য অনেককেই ছাড়িয়ে। বঙ্গবন্ধুর জন্য টানা এক বছর রোজা করেছেন। আল্লাহর দরবারে দুই হাত তুলে মিনতি জানিয়েছেন, ‘পাকিস্তানি হানাদার

বাহিনীর হাত থেকে তুমি তাঁকে রক্ষা করো।’ আজও ৮৫ বছর বয়সে প্রতি ওয়াক্ত নামাজ শেষে দুই রাকাত করে নফল নামাজ আদায় করেন এবং প্রিয় ব্যক্তিত্ব বঙ্গবন্ধুর রুহের মাগফিরাত কামনায় মোনাজাত করেন।
একাত্তরের ২৫ মার্চ কালরাতে বঙ্গবন্ধু গ্রেপ্তার হওয়ার খবর আবদুস সোবাহান প্রথম জানতে পারেন রেডিওতে। তাৎক্ষণিক তিনি নিয়ত করেন, মহান আল্লাহ প্রিয় নেতাকে হেফাজত করলে তিনি টানা এক বছর রোজা রাখবেন। এদিকে গ্রেপ্তারের পর বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে যাওয়া হয় পশ্চিম পাকিস্তানে। আর তাঁর ভক্ত আবদুস সোবাহান ২৭ মার্চ থেকে রোজা রাখা শুরু করেন। ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহার দিন বাদে তিনি পুরো বছর রোজা রাখেন।
কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলার ব্রহ্মপুত্র নদের দক্ষিণ বড়বেড় দ্বীপ চরে আবদুস সোবাহানের বাড়ি। তাঁর দুই ছেলে ও ছয় মেয়ে। সবাই বিয়ে করে আলাদা সংসার পেতেছেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় আবদুস সোবাহানের পারিবারিক অবস্থা বেশ সচ্ছল ছিল। সেই জায়গাজমি আর গোয়াল ভরা গরু আজ আর নেই। বারবার ব্রহ্মপুত্রের ভাঙনে সব হারিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছেন। দুই ছেলের একজন ট্রাকচালক, আরেকজন ইটভাটায় কাজ করেন।
বঙ্গবন্ধুর ভক্ত আবদুস সোবাহানের কথা এ প্রতিবেদক জানতে পারেন রাজীবপুর মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলহাজ আজিম উদ্দিনের কাছে। প্রধান শিক্ষক জানালেন, বঙ্গবন্ধুর প্রতি এমন বিরল ভালোবাসার বিষয়টি তিনি জানতে পেরেছেন নির্বাচনে ভোট চাইতে গিয়ে।
সম্প্রতি দুর্গম বড়বেড় চরে গিয়ে আবদুস সোবাহানের কাছে জানতে চাওয়া হয় মুক্তিযুদ্ধের সময় তাঁর ব্যক্তিগত ঘটনাবলি সম্পর্কে। তিনি বলেন, ‘আমি কোনো নেহাপড়া জানি না। যুদ্ধের আগে ঊনসত্তরে আমার বয়স ৩০-৩২ বছর। রেডিওতে শেখ সাহেবের ভাষণ আর তাঁর দেশপ্রেমের ঘটনা শুনতাম। ২৬ মার্চ রেডিওতে শুনতে পাই শেখ সাহেবকে পাকিস্তানিরা ধইরা নিয়া গেছে। দেশে যুদ্ধ শুরু হইয়া গেছে। এই খবর শোনার পর আমার শরীর যেন কেমন করতে লাগল। পরে আমি বিছানায় শুইয়া ছিলাম। আবার শুনলাম শেখ সাহেবকে নাকি মাইরা ফেলছে পাকিস্তানিরা। এমন নানা কথায় জোহরের নামাজ আদায়ের সময় আল্লাহর কাছে দুই হাত তুলে আবদার জানাইলাম- আল্লাহ, তুমি শেখ সাহেবকে বাঁচিয়ে রাখিও। এ জন্য তোমার জন্য আমি পুরো এক বছর রোজা করমু।’
আবদুস সোবাহান বলে চলেন, ‘তহন ছিল চৈত্র মাস। তারিখটা আমার মনে নাই। পরের দিন থিকা আমি রোজা থাকা শুরু করলাম। একনাগাড়ে পুরা এক বছর রোজা করেছি। দেশ স্বাধীন হইছে। শেখ সাহেবও দেশে ফিরা আইছেন। তার পরও আমি রোজা নষ্ট করিনি। কারণ আল্লাহ তায়ালার কাছে ওয়াদা করেছিলাম এক বছর রোজা করব। তাই আমি পুরো এক বছরই রোজা আদায় করেছি। না খাইয়াও রোজা রাখছি। তবে মাঝে দুই ঈদে রোজা ছিলাম না।’
আবদুস সোবাহান জানান, দেশ স্বাধীন হওয়ার দিনই নিজ বাড়িতে তিনি মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেন। গরু জবাই করে গ্রামবাসীকে দাওয়াত দিয়ে খাওয়ান। সবাইকে বলেন, ‘শেখ সাহেব যেন সুস্থভাবে দেশে ফিরা আসেন এ জন্য আপনারা দোয়া কইরেন।’
শোকভরা কণ্ঠে আবদুস সোবাহান বলেন, ‘১৫ আগস্ট রাতে শেখ সাহেব ও তাঁর পরিবারের সবাইকে নির্মমভাবে হত্যার খবর শোনার পর দুই দিন বিছানা থেকে উঠতে পারিনি। পুরো এক মাস অসুস্থ ছিলাম।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এহন বয়স অইছে। কহন জানি মইরা যাই। ইচ্ছা করে, শেখ সাহেবের মেয়ে শেখ হাসিনাকে যদি একবার কাছে থিকা দেখবার পাইতাম।’
চরনেওয়াজী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শহীদুল্লাহ হক বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর জন্য আবদুস সোবাহান যে রোজা করেছেন, এটা আমরা জানি।’
ওই চরের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরন্নবী হোসেন, ওছিমুজ্জামান, আবুল কাশেম, মমহাজুর রহমান ও সাবেক ইউপি মেম্বার নুরুল হক বলেন, ‘সোবাহান বঙ্গবন্ধুর জন্য পুরো এক বছর রোজা করেছেন। বাড়ি থেকে রান্না করে আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের খাবার দিয়েছেন। আমরা তাঁকে খাইতে বললে বলতেন, আমি রোজা আছি।’
উৎসঃ   কালের কন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ