• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৬:০৩ অপরাহ্ন |

বীরগঞ্জের বোরো চাষীরা আতংকিত

Kirisiবীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: বীরগঞ্জে সব্জিসহ উৎপাদিত কৃষি পণ্যের ন্যায্য মূল্য না পেয়ে হতাশ কৃষক-কৃষানীরা। বোরো আবাদের মাধ্যমে তাদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। মার্চ প্রথম দিন থেকে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্তের ঘোষনায় স্বপ্ন পুরণে শঙ্কিত হয়ে পড়েছে তারা।
অনুকুল আবহাওয়া ও পর্যাপ্ত সেচ সুবিধা নিশ্চিত হলে লোকসান কাটিয়ে মুনাফার প্রত্যাশা করছেন অনেকেই। কিন্তু হঠাৎ করেই বিদ্যুতের দাম আরেক দফা বৃদ্ধির সিদ্ধান্তের সংবাদ শুনে স্বপ্ন ভাঙ্গার বেদনায় মলিন হতে চলেছে কৃষকদের মুখের হাসি। শঙ্কার দানা বাঁধতে শুরু করেছে তাদের হৃদয়ে ।
উপজেলার নিজপাড়া ইউনিয়নের দামাইক্ষেত্র গ্রামের আনোয়ার হোসেন জানান, বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কতৃপক্ষের গভীর নলকুপ সেচ প্রকল্পের আওতায় ১ একর জমিতে বোরো চাষ করছি। আলু চাষে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় এবার বোরো চাষের মাধ্যমে ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার স্বপ্ন দেখছি। কিন্তু নতুন করে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সরকারী সিদ্ধান্তের ঘোষনায় উৎপাদন খরচ বৃদ্ধির পাবে এবং উৎপাদিত ফসলের ন্যায্য মূল্য না পেলে আবার ক্ষতিগ্রস্থ হতে হবে। তিনি কৃষক ও কৃষির উন্নয়নে জ্বালানী তেল, সার, কীটনাষক ও বিদ্যুতের দাম না বাড়ানোর দাবি জানান।
পলাশবাড়ী ইউনিয়নের উত্তর পলাশবাড়ী গ্রামের মোঃ রবিউল ইসলাম জানান, বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কতৃপক্ষের গভীর নলকুপ সেচ প্রকল্পের আওতায় বিজি-৭৪ নম্বর গভীর নলকুপ এলাকার চাষী। ৫একর জমিতে এবার বোরো চাষ করেছন তিনি। গতবার কুয়াশায় বীজতলা নষ্ট হয়ে যায় এবং আবাদে প্রচুর খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে। সার, বীজ এবং কীটনাশক ছাড়াও সেচেই খরচ হয়েছে ৩হাজার টাকা। সে অনুযায়ি আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। আগের সেই শঙ্কাটি মনের মাঝে গেঁেথ আছে। এখন নতুন করে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্তের ঘোষনায় আবারো  নতুন করে সেই শঙ্কা দেখা দিয়েছে।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৫ হাজার ৭শত ৮০ হেক্টর জমিতে। মোট আবাদ হয়েছে ১৫ হাজার ৮শত ৬০ হেক্টর জমিতে। এদের মধ্যে উচ্চ ফলনশীল ১৫ হাজার ১ হেক্টর এবং উবর্শী ১৪ হাজার ৩শত ৫০ হেক্টর।
উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ৬২ হাজার ১শত ১৮ মেট্রিক টন। এদের মধ্যে উচ্চ ফলনশীল ৬ হাজার ৮শত ৪ মে. টন এবং উবর্শী ৫৫ হাজার ৩শত ১৪ মেট্রিক টন।
উপজেলা কৃষি অফিসার নিখিল চন্দ্র বিশ্বাস জানান, আবহাওয়া যদি অনুকুলে থাকে এবং পাশাপাশি চাহিদা অনুযায়ি বিদ্যুৎ সরবরাহ থাকে তাহলে সন্তোষ জনক উৎপাদ আমরা আশা করতে পারি। তবে বিদুৎতের দাম বাড়লে কৃষককেরা ক্ষতিগ্রস্থ হবে এমনটি মনে করার কোন কারণ নেই। যদি সঠিক ফলন হয় এবং কৃষকদের উৎপাদিত ফসলের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করা যায় তাহলে সকল শংকা কেটে যাবে। তবে এক্ষেত্রে কৃষকদের আরো সচেতন ও কৃষি কাজে এবং অপচয়রোধে যতœশীল হতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ