• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫৫ অপরাহ্ন |

ভোট দেবে না দাঙ্গার শিকার মুসলিমরা

1111আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে ভারতের উত্তর প্রদেশের মুজাফফরনগরে হিন্দু-মুসলমান দাঙ্গায় অন্তত ৬৫ জন নিহত এবং প্রায় ৫১ হাজার মানুষ শহর ছাড়তে বাধ্য হয়েছিল। নিহত হওয়া এবং শহর ত্যাগ করা ব্যক্তিদের একটি বড় অংশ ছিল মুসলমান। ভারতে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিবিসির নিতিন শ্রীবাস্তব সম্প্রতি একটি শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করেছেন, যেখানে এখনো প্রাণের আশঙ্কায় বাড়ি না-ফেরা দাঙ্গাগ্রস্ত অসহায় মানুষের একটি বড় অংশ বাস করে।
৪২ বছর বয়স্ক রিহানা তার সাত সদস্যের পরিবার নিয়ে শরণার্থী শিবিরের খানিকটা জায়গা নিয়ে বাস করেন। এক পড়ন্ত বিকেলে পরিবারের বাকিদের নিয়ে তিনি তাদের রাতের খাবারের আয়োজন করছিলেন। ছোট্ট একটি ভ্রাম্যমাণ ঘরে মাটির তৈরি একটি অস্থায়ী স্টোভে খাবার রান্না করছিলেন তারা। তাদের বর্তমান ‘বাসস্থান’ থেকে বেশ কাছেই লাগোয়া গ্রামটিতে সেই ভয়াবহ দাঙ্গার সময় রিহানার স্বামী গুরুতর আহত হন। প্রায় চার মাস একটি সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর তিনি বাড়ি ফিরতে পারেননি, পরিবারের কাছে ফিরে এসেছেন। কিন্তু স্বামী তার কর্মক্ষমতা পুরোপুরি হারিয়ে ফেলায় রিহানার পুরো পরিবারের জীবিকা অর্জন এখন অনেকটাই অনিশ্চিত। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ভীষণ অসহায় অবস্থার মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছে পরিবারটি।
রিহানার সঙ্গে কথা বলে বোঝা যায়, ভারতের আসন্ন নির্বাচন নিয়ে তার কোনো রকম মাথাব্যথা নেই। রিহানার ভাষ্য, “প্রায় ছয় মাস আগে ঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছিলাম আমরা। এখন যাযাবরের মতো জীবনযাপন করি। পালিয়ে আসার সময় সঙ্গে করে শুধু বাচ্চাদেরই নিয়ে আসতে পেরেছিলাম। এখন আমাদের কোনো পরিচয় নেই, আমরা যে বেঁচে আছি বা আমরা যে মানুষ, সেই অস্তিত্বে কোনো প্রমাণও নেই। এতগুলো দিন পার হয়ে গেলেও এখনো পর্যন্ত কোনো সাহায্য আসেনি এখানে। নির্বাচনে ভোট দেব কীভাবে?”
ভারতের সবচেয়ে জনবহুল রাজ্য উত্তর প্রদেশে গত বছরের এই দাঙ্গাকে গত এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ হিসেবে আখ্যায়িত করেন অনেকেই। সেই দাঙ্গার শিকার অসহায় মানুষগুলো যে শরণার্থী শিবিরে বর্তমানে বাস করছে, সেখানে তাদের মাথার ওপর কোনো স্থায়ী ছাদও নেই- এমন পরিবারের সংখ্যা তিন শতাধিক। আসন্ন নির্বাচন নিয়ে কথা হলেই এখানকার অধিকাংশ বাসিন্দার মাথায় এমন একটি স্মৃতি বারবার ফিরে আসে, যা তারা পুরোপুরি ভুলে যেতে চান।
৭৬ বছর বয়স্ক বিধবা আখতারানের পরিবারে সদস্য নয়জন। দাঙ্গার সময় কুতবা গ্রামে তার বাড়িটি পুড়িয়ে দেয়া হয়। এখন আখতারানের দুই ছেলেই বেকার। নেতাদের প্রতি আখতারানের এখন বিন্দুমাত্র বিশ্বাস বা আস্থা অবশিষ্ট নেই। আখাতারান বলেন, “দশবারের বেশি সাধারণ নির্বাচনে অংশ নিয়েছি আমি, ভোটও দিয়েছি। আর বিনিময়ে যা পেয়েছি তা হলো শুধুই অসহায়ত্ব আর ক্ষতি। বাড়িও নেই এখন আমার। এখন কোথায় ভোট দেয়া উচিত আমার? আর কীভাবে ভোট দেব আমি? আমি তো আমার বাড়ি থেকে আসার আগে কোনো ছবি বা কোনো দলিল, কাগজ কিছুই আনতে পারিনি।”
গত কয়েক মাসে দাঙ্গাগ্রস্ত সহস্রাধিক মানুষের মধ্যে মাত্র কয়েক শ জন অসহায় মানুষ ক্ষতিপূরণ পেয়েছে এবং পুনর্বাসিত হয়েছে। কিন্তু এখনো অসহায় অবস্থাতেই দিন কাটাচ্ছে হাজারো মানুষ।
শরণার্থী শিবিরে এখনো বাস করছে, এমন ব্যক্তিদের মধ্যে একধরনের পরিচয়পত্র সরবরাহ করছে রাজ্য সরকার আর নির্বাচন কমিশন। মুজাফফরনগরের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা কৌশল রাজ শর্মা জানান, শিবিরের অধিকাংশ লোকজন কোনো কাগজপত্রই দেখাতে পারেনি। নিবন্ধনের শেষ দিন গত ৯ মার্চ পর্যন্ত তিন হাজারের কিছু বেশি ভোটার পরিচয়পত্র সরবরাহ করা হয়েছে।
অবশ্য শিবিরে বসবাসকারী শতাধিক ব্যক্তি, যারা কোনো ধরনের পরিচয়পত্র ছাড়াই বাস করছেন, কোনো ধরনের নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
সিসৌলি গ্রামের অধিবাসী বর্তমানে শরণার্থী শিবিরের এক বাসিন্দা আমান জানান, গত বছর মাঠে কাজ করার সময় কয়েকজন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি তার ওপর হামলা করেছিল। হামলায় গুরুতর আহত হওয়ার পর যখন তিনি একটি সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন, তখন তার পরিবার বাড়ি ছেড়ে শরণার্থী শিবিরে চলে যেতে বাধ্য হয়। রাজনৈতিক নেতাদের ওপর থেকে ন্যূনতম আত্মবিশ্বাসটুকুও হারিয়ে ফেলেছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, “আমাদের সুদিনেও তাদের কখনো আমরা দেখি না, আমাদের দুর্দিনেও তারা আমাদের কোনো সাহায্য করেননি। এমনকি যখন মাত্র আমরা সবকিছু হারিয়ে অসহায়ত্বের ভয়াবহতা দেখছিলাম, তখনো মানবতার খাতিরে আমাদের সামান্য আশ্বস্ত করতেও তারা ব্যর্থ হয়েছেন। আমি তো নতুন পরিচয়পত্রের জন্য আবেদনও করেনি।
শরণার্থী শিবিরে দুই সহস্রাধিক আশ্রয়হীন মানুষ এখনো বসবাস করছে। তারা প্রত্যেকেই অভিযোগ করেছেন, ন্যূনতম স্বাস্থ্য ও স্যানিটেশনের মতো মৌলিক অধিকারটুকুও তারা পান না। তাদের এই অবস্থার জন্য তারা রাজনৈতিক দলগুলোকেই দায়ী করেন।
গত ডিসেম্বর মাসে সরকারের নিয়োগ করা একটি প্যানেল জানিয়েছে, ডায়রিয়া ও কলেরায় আক্রান্ত হয়ে শরণার্থী শিবিরে প্রাণ হারিয়েছে ১৫ বছরের কম বয়স্ক অন্তত ১২ জন শিশু। সূত্র: বিবিসি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ