• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২২ পূর্বাহ্ন |

জামায়াত ৬১, বিএনপি ০২ !

bnp-jamat2সিসি নিউজ: তৃতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচনে বিএনপির একাংশ পরাজয়ের জন্য জামায়াতকেও কিছুটা দায়ী করে আসছে। অথচ বিশ্নেষনে দেখা যাচ্ছে জামায়াতের বিশাল আকারের ছাড়ের ফলেই বিএনপির আসনগুলোতে জয় অনেকটা ত্বরান্বিত হয়েছে।
তৃতীয় ধাপের মোট ৮৫ টি উপজেলার মধ্যে ০৪টি স্থগিত করায় নির্বাচন হয় ৮১ টি আসনে। এতে জামায়াত চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করে মাত্র ২৪ টি উপজেলায়। অর্থাৎ জামায়াত বিএনপির জন্য ৬১ টি উপজেলায় কোন প্রার্থী দেয় নি। পক্ষান্তরে বিএনপি ৮৩ টি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রাথী দাড় করায়। মাত্র দুটি আসনে তারা জামায়াতকে ছাড় দেয়।
বিএনপির ছাড় না দেওয়ার কারনে জামায়াত ১১ টি আসনে স্পল্প ভোটের ব্যবধানে ২য় স্থানে থেকে পরাজিত হয়। আর এতে জামায়াতের তৃণমূল পর্যায়ে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে জামায়াত কর্মীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ও ব্যাপক সমালোচনা করে।
আবদুল কাদের নামে এক জামায়াত কর্মী ফেসবুক স্ট্যাটাসে বলেন, জামায়াত ভুল করেনি, করেছে বিএনপি, কারন ১১ জায়গায় তো জামায়াত ২য় স্থানে আর বিএনপি ৩য় স্থানে। আপনি দেখেন সীতাকুন্ড, সিলেট মৌলোভীবাজারে জামায়াত লীগের কাছে ১ থেকে দের হাজার ভোটে হেরেছে।
সিলেটের দক্ষিন সুরমা ও মৌলভী বাজারের বড়লেখায় জামায়াত প্রার্থীদের পরাজয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন মোহাম্মদ আহসান হাবিব। তিনি তার স্ট্যাটাসে বলেন, এ দুটি উপজেলায় জামায়াতকে ছাড় না দিয়ে কি এমন লাভ হল বিএনপির? জামায়াতের চেয়ে কম ভোট পেয়ে দল হিসেবে বিএনপিকেই কি লজ্জা দেওয়া হলনা? ২টি উপজেলাতেই ২য় হওয়ায় জামায়াতের সম্মান বরং বেড়েছে আর বিএনপির প্রার্থীরা ৩য় হয়েছে।
সিটি মেয়র নির্বাচনে সিলেট মহানগর জামায়াত আমীল এহসানুল মাহবুব যুবায়েরের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিয়েছিল জামায়াত।বলেছিলো জোটের স্বার্থে এই প্রত্যাহার। আর এবারের উপজেলায় কর্মীরা সেই প্রসঙ্গ এনে ও তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। নুরুল আলম নামে একজন বলেন, জোটের রাজনীতিতে যতই ত্যাগের মহিমা স্থাপন করা হোক না কেন, যারা কথা রাখেনা তারা ভোটের রাজনীতিতে আমাদের কখনো ছাড় দিবে না।
চাই বাস্তব ভিত্তিক ও সময় উপযোগী সিদ্ধান্ত। কারন জোট রক্ষা করার মহান দায়িত্ব শুধুমাত্র জামাতের নয়।
ফয়জুল চৌধুরী ক্ষোভ ও আক্ষেপ প্রকাশ করে তার স্ট্যাটাসে বলেন, “আজ আমাদের বুকে আগুন জ্বলছে । আমরা এত পরিশ্রম করছি কার জন্য । কার স্বার্থে এতগুলো মানুষ আমাদের জীবন দিল । কিসের জোট আর কিসের রাজনীতি । কিসের হেকমত আর কিসের কৌশল । আমাদের রক্তের উপর দিয়ে রাজনীতির ময়দানে টিকে থেকে আজ আমাদের জন্য কি হচ্ছে?। আজ ভাবনার সময় এসেছে । কি করবেন আপনারা ? আর কত লাশ চান, আর কত রক্ত চান ? আমাদের নিরীহ ভাইদের গুলির মুখে ঠেলে দিবন না । ইসলামী আন্দোলনের জন্য আমরা যা যা করার প্রয়োজন আমরা করব কিন্তু কোন মুনাফিকএর জন্য কেন করব” ?
অবশ্য বিএনপি কর্মীরা ভীন্ন মত পোষন করেন। ফোরকান ইকবাল তার স্ট্যাটাসে বলেন, ২৩ টি উপজেলাই প্রার্থী দিয়েই সবচেয়ে বড় ভুলটা করেছে জামায়াত, তারা যদি ১৫ উপজেলায় প্রার্থী দিত বিএনপির আরো ৮ টি চেয়ারম্যান পদ বাড়তো,সীতাকুণ্ড,সিলেট ও আরো কয়েকটি উপজেলা এর নিশ্চিত প্রমান…..
উপজেলা নির্বাচনে বিরুপ পরিবেশ থাকা সত্ত্বেও জামায়াত ফলাফলে তাদের ধারাবাহিকতা রক্ষা করে চলেছে। কিন্তু তৃণমূল পর্যায়ে জামায়াত বিএনপির যে একটি টানাপোড়েন চলছে তা স্পষ্ট। জামায়াত ওয়াদা অনুযায়ী তাদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার, বিএনপি প্রার্থীকে সমর্থন এবং অধিকাংশ জায়গায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দীতা না করলেও বিএনপি আশানুরূপ আসন জামায়াতকে ছাড় দেয়নি। এত ফলাফল তৃতীয় দফায় আ’লীগকেই এগিয়ে দিয়েছে। উৎসঃ   নিউজ ইভেন্ট


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ