• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫৮ অপরাহ্ন |

ডিমলায় বিএনপি কার্যালয়ে তালা

BNP Office, Dimlaনীলফামারী প্রতিনিধি: দলীয় নেতাকর্মীদের অববমূল্যায়ন, স্বেচ্ছাচারীতাসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি অধ্যাপক রইছুল আলম চৌধুরীর পদত্যাগ দাবি করে দলীয় কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা। সোমবার রাতে অফিসে তালা দিয়ে তার বিরুদ্ধে একটি ব্যানারও টানিয়ে দেয়া হয় মঙ্গলবার দুপুরে।
বিক্ষুব্ধনেতাকর্মীরা জানান, ‘দলের সভাপতি রইছুল আলম চৌধুরী বির্তকিতভাবে সভাপিত হওয়ার পর থেকে সংগঠন বিরোধী কার্যকলাপ শুরুর করেন। এরই মধ্যে তিনি দলের গণতন্ত্রকে উপপেক্ষা করে স্বেচ্ছাচারিতা, দলীয় নেতাকর্মীদের অবমূল্যয়ন করে আসছেন। তার স্বেচ্ছাচারীতার কারনে অনেক ত্যাগী নেতা-কর্মী ঝিমিয়ে পড়েছে। ফলে গত ১৯ ফেব্র“য়ারী অনুষ্ঠিত উপজেলা নির্বাচনের মাঠে এসব নেতাকর্মীকে দেখা যায়নি কিংবা তাদের মাঠে নামানোর জন্যও তিনি কোন ভূমিকাও রাখেনি। এমনকি দশম সংসদ নির্বাচনে আগে দলের চেয়ারর্পসন বেগম খালেদা জিয়া ঘোষিত সরকার বিরোধী আন্দোলন-সংগ্রামেও এসব নেতাকর্মীরা মাঠে ছিলোনা শুধু মাত্র রইছুল আলমের একনায়কতন্ত্রের কারণে। এমনকি তিনি নিজেও কোন কর্মসূচি পালন করেনি।’
নেতাকর্মীরা আরো জানান, সর্বশেষ গত ১৯ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করে তিনি মাত্র নয় হাজার ৩২ ভোট পেয়ে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছেন। এ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী তবিবুল ইসলাম ৩৮ হাজার ৯৫ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এবং তার নিকটতম জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী আব্দুর সাত্তার পেয়েছেন ৩৭ হাজার ২৫৩ ভোট।
ডিমলা উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আরিফ-উল ইসলাম লিটন জানান, ‘রইসুল আলম চৌধুরী জাতীয়তাবাদাী দল (বিএনপি) কে তিনি তার পারিবারিক দল মনে করেই তার হাতে গোনা কয়েকজন বির্তকিত নেতা-কর্মীদের নিয়ে নিজ বাসায় বসে মাঝে মধ্যে দু’একটি মিটিংয়ের মাধ্যমে দল চালিয়ে আসছেন। যার পলে দলের সাংগঠনিক শক্তি হাস্র পেয়েছে।’
ডিমলা উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আশিকুজ্জামান লিমন ও সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আইয়ুব আলী বলেন, ‘রইছুল আলমের কারনে দলের মধ্যে বর্তমানে কোন শৃংখলাবোধ বলতে কিছুই নেই। ফলে বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা বেশ কয়েক ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। আবার অনেকেই দল ছেড়ে ভিন্নদলে যোগদান করার চিন্তাভাবনাও করছেন। তাই তাকে ওই পদ থেকে না সরানো পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে। তিনি সড়ে গেলেই বিএনপিসহ তার অঙ্গ সংগঠন গুলো আবার চঙ্গা হয়ে দাড়াবে। আর যারা দল ছেড়ে যেত চাইছেন তারাও ফিরে আসবেন।’
উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আমিনুজ্জামান গাজী বলেন, বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠনের শৃংখলা ফিরিয়ে আনাসহ দলকে শক্তিশালী হিসেবে গড়ে তুলে আগামী দিনে সরকার বিরোধী অন্দোলনে সফল হতে হলে বর্তমান সভাপতি রইছুল আলম চৌধুরীর পদত্যাগের কোন বিকল্প নেই।
এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য উপজেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক রইছুল আলম চৌধুরীর মোবাইলে (০১৭১২-৫২১৫৫১) বার বার ফোন দেয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
তবে উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম তালা লাগানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘উপজেলা নির্বাচন চলাকালীন দলীয় কিছু নেতাকর্মীদের সাথে তিনি (রইছুল) অসদাচরণ করেন। এ নিয়ে তাদের সাথে সভাপতির মতবিরোধ দেখা দেয় এবং এ ঘটনায় সহযোগী সংগঠনের কিছু নেতাকর্মীকে তিনি বহিষ্কার করেন। এসব কারনে তারা বিক্ষুব্ধ হয়ে তালা দলের কার্যলয়ে তালা দিয়েছেন। তবে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ