• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৬:০০ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে হিন্দু বিধবার বসতভিটা জবর দখল

Gita Raniবিশেষ প্রতিনিধি: আদালতে বিচারাধীন মামলাকে উপেক্ষা করে স্থানীয় প্রভাবশালীরা ভূমি অধিগ্রহণ নীতির ফাঁদে ফেলে এক অসহায় হিন্দু বিধবার বাড়ি দখলে নিয়েছে। প্রাণনাশের হুমকি আর উচ্ছেদ আতঙ্ক নিয়ে বিধবা নিজ জমিতে পরবাসির মতো জীবনযাপন করতে হচ্ছে। ঘটনাটি ঘটেছে নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার পৌর এলাকার ১১নং ওয়ার্ডের কুন্দল দহলা ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায়।
এলাকাবাসী জানায়, সৈয়দপুরের এ এলাকায় একসময় বেশি হিন্দু পরিবার বসবাস করত। অন্যরা চলে গেলেও স্বাধীনতা যুদ্ধের পর পৈত্রিক ওই সম্পত্তিতে গোপাল তাতোয়ার স্ত্রী সন্তানকে নিয়ে থেকে গেছেন নিজ পৈত্রিক ভিটাতে। যত্না প্রধান (৯০) নামে এক বৃদ্ধ জানান, এ বাড়িটিতে গোপালের দাদাকে আমি দেখেছি। আর যতদূর জানি এটি তাদেরই নামীয় সম্পত্তি। তাই এটি সরকারী কিংবা অন্য কোন ব্যক্তির হতে পারে না।
গোপালের বিধবা স্ত্রী গীতা রাণী জানান, স্বামীর জীবদ্দশায় কোন সমস্যা ছিল না। তার মৃত্যুর পরই এখন এ বসতভিটাটুকু আমাদের নয় বলে জবর দখল করেছে শহরের পৌরসভা সড়কের মৃত নিজাম উদ্দিনের পুত্র আজিজ বসুনিয়া। এ নিয়ে বাধা দিতে গিয়ে আমার দু’জামাইকে একমাস করে হাজতবাস করতে হয়েছে। এখন তারা পুরো বাড়িটি দখলে নিয়েছে। শুধু একটি ঘরে মেয়ে জামাই ও নাতি নাতনী ও পঙ্গু ক্যান্সারে আক্রান্ত ছেলেকে নিয়ে কোন রকম আছি। প্রতিদিন নিত্যনতুন লোকজন এসে আমাদের উচ্ছেদ ও প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। এখন আমরা কোথায় যাব? ঝি-এর কাজ কোন রকম বেঁচে আছি। এরপরও যদি স্বামীর রেখে যাওয়াত শেষ আশ্রয়টুকু কেউ কেড়ে নেয়, তাহলে আমাদের কি হবে বলে সাংবাদিকদের সামনে গতকাল নিজ বাড়িতে আর্তনাদে ভেঙ্গে পড়েন এ বিধবা। তার দাবি আমরা হিন্দু বলেই কি ন্যায় বিচার পাই না। না গরিব হওয়ায় কেউ দেখছে না।
গীতা রাণীর জামাই রতন জানান, সিএস ও এসএ রেকর্ডীয় মালিকানায় থাকা সত্বেও বসতভিটাটি খাস জমিতে পরিণত হয়েছে। যা এ পরিবারটির কেউ জানতো না। স্থানীয় ভূমি অফিস গত ১ আগস্ট বাড়িটি ছাড়ার নোটিশ প্রদান করেন। এ নিয়ে প্রতিবাদ করলে প্রশাসনের মাধ্যমে ১ মাস হাজত খাটতে হয় আমাকে। পরে বাড়িটি রক্ষায় আদালতে মামলাও করেছি। তারপরেও প্রতিপক্ষরা স্থানীয় বখাটেসহ প্রশাসনের লোকজনকে লেলিয়ে দিয়ে রাতের আধারে বাড়িটি দখল করে। এখন আমার শ্বাশুড়ীর বাড়িতে তিনিই মেহমান। হয়তো যেকোন দিন লাঞ্চিত করে তাড়াতে পারে দখলকারীরা।
এ নিয়ে সৈয়দপুর পৌরসভার সাবেক তহশীলদার আজিজুল হক জানান, এ জমিটি পরিত্যক্ত তালিকাভূক্ত। তাই সরকার লীজ দিয়েছে। যার কাগজপত্র বর্তমান দখলকারীর রয়েছে এ নিয়ে বলার কিছু নেই। তবে সচেতন মহল মনে করছেন এস.এ ও সি.এস রেকর্ডীয় দাগে সেখানে হিন্দু পরিবারটি মালিকানা ছিল কিভাবে পরিত্যক্ত সম্পত্তিতে লীজ হয়েছে তা বোধগম্য নয়। তবে শহরে জমি হওয়ার কারণে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে হিন্দু পরিবারটিকে বঞ্চিত করতে এ কাজ করা হয়েছে। তাই একমাত্র অবলম্বন বসতভিটাটুকু জবর দখলকারীর কবল থেকে রক্ষায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা চাইছেন সংখ্যালঘু এ অসহায় বিধবা।
নীলফামারী-৪ আসনের সাংসদ ও বিরোধী দলের হুইপ আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী জানান, এদেশে সকল সম্প্রদায়ের সমান অধিকার রয়েছে। সংখ্যালঘু ও গরীব বলে যদি কেহ হিন্দু পরিবারটিকে বঞ্চিত করতে ষড়যন্ত্রের আশ্রয় নিয়েছে তাহলে অবশ্যই তদন্ত সাপেক্ষে এর ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ