• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১১:২৯ অপরাহ্ন |

প্রার্থী নিয়ে সিলেট জামায়াতে বিভক্তি

jamat-1সিসি নিউজ: সিলেটের কানাইঘাট উপজেলা নির্বাচনে জোটের প্রার্থী নির্ধারণ নিয়ে গোটা সিলেটে জামায়াত-শিবিরের কর্মীদের মধ্যে বিভক্তি দেখা দিয়েছে। জেলা থেকে শুরু করে দলটির তৃণমূল পর্যায়ের সিংহভাগ নেতাকর্মীই চাইছেন সম্প্রতি দল থেকে বহিষ্কার হওয়া নগর জামায়াতের রুকন অব্দুর রহিমের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে তাকে দলীয় সমর্থন দেয়া হোক। কিন্তু কয়েকজন সিনিয়র নেতার ব্যক্তিগত একগুঁয়েমির কারণে তা সম্ভব হচ্ছেনা। ফলে পুরো জেলাজুড়ে এর প্রভাব পড়েছে।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় বর্তমান চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা মাও. লোকমান আহমদ আওয়ামী লীগের কাছে পরাজিত হন। এখানে বিএনপির প্রার্থীকে বহিষ্কার করে নাটকীয়ভাবে প্রত্যাহারও করা হয়। এজন্য জামায়াতের একটি বড় অংশ কানাইঘাটে দক্ষিণ সুরমার প্রতিশোধ নিতে চায়। আর এমনিতেই কানাইঘাটে জামায়াত-শিবিরের ৯৫ শতাংশ নেতাকর্মী আব্দুর রহিমের পক্ষে মাঠে কাজ করছেন।
তবে দলটির সিনিয়র নেতাদের যুক্তি কানাইঘাটে বিএনপি নির্বাচন করবে, এটি জোটের সিদ্ধান্ত। কিন্তু তৃণমূল নেতাকর্মীরা বলছেন বিএনপি তো দক্ষিণ সুরমায় জোটের সিদ্ধান্ত মানেনি। তাছাড়া জোটের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে বিয়ানীবাজারে প্রার্থী দিয়েছে জামায়াত। সিদ্ধান্ত সব উপজেলার জন্য সমান হওয়া উচিৎ। বিয়ানীবাজারের বেলায় এক আর কানাইঘাটের বেলায় ভিন্ন এটি মেনে নিতে পারছেন না দলটির নেতাকর্মীরা। এতে করে দলের অভ্যন্তরে বিদ্রোহ দেখা দিয়েছে।
আর এতে করে দলটির জেলা আমিরসহ কয়েকজন সিনিয়র নেতার উপর থেকে আস্থা হারাচ্ছেন তৃণমূলের নেতারা। আর দিন দিন এই বিদ্রোহ চরম আকার ধারণ করছে। ফলে এ প্রভাব আগামী সংসদ নির্বাচনেও পড়বে এমন অভিমত দলটির সাধারণ নেতাকর্মীদের।
সূত্র মতে, সাম্প্রতিক বিষয়টি নিয়ে বৈঠক করেন দলটির সিলেটের শীর্ষ নেতারা। বৈঠকে বেশ কয়েকজন নেতা আব্দুর রহিমকে দলীয় সমর্থন প্রদানের পক্ষে মত দিলেও সিনিয়র কয়েক নেতার কারণে তাদের মতামতের প্রতিফলন ঘটেনি। এ নিয়ে ভেতরে ভেতরে বিক্ষোভ বিরাজ করছে।
দলের অধিকাংশ নেতার মতে, আব্দুর রহিম দলের জন্য অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন থাকাকালে দুর্বৃত্তদের হামলায় তার ছোট ভাই আবদুল করিম নিহত হন। তাছাড়া জামায়াত নেতা অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী সংসদ সদস্য থাকাকালে আব্দুর রহিম তার একান্ত সচিব ছিলেন। সেই থেকে গোটা উপজেলাজুড়ে তার একটি শক্ত অবস্থান রয়েছে। আর কানাইঘাট জামায়াত অধ্যুষিত এলাকা এখানে আব্দুর রহিমকে দলের সমর্থন দিলে বিজয়ী হওয়া সম্ভব।
কানাইঘাট জামায়াত-শিবিরের একাধিক দ্বায়িত্বশীল নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, দলের হাইকমান্ড আ. রহিমকে সমর্থন না দেয়ায় আগামী সংসদ নির্বাচনে এর মারাত্মক প্রভাব পড়বে। তার সঙ্গে থাকা জনশক্তি তখন জামায়াত প্রার্থী ফরিদ উদ্দিন চৌধুরীর পক্ষে মাঠে কাজ করবেনা। তখন দলটিকে চরম মূল্য দিতে হবে।
কানাইঘাট নাগরিক কমিটির সচিব ও গাছবাড়ি শিবিরের সাবেক সভাপতি মাও. মুক্তার আহমদ বলেন, দলমত নির্বিশেষে আব্দুর রহিমের আনারস মার্কার পক্ষে গণজোয়ার বইছে। তাই সংগঠনের উচিৎ তাকে সমর্থন দেয়া।
সিলেট জেলা শিবিরের সাবেক এইচআরডি সম্পাদক মাও. আবুল খায়ের বলেন, যদিও কানাইঘাটের ১৯ দলীয় জোটের প্রার্থী রয়েছে তারপরও জামায়াত-শিবিরের তৃণমূল জনশক্তি শিবিরের ৯৫তম শহীদ আব্দুল করিমের ভাই আব্দুর রহিমের পক্ষে মাঠে কাজ করছে।
দক্ষিণ সুরমা উপজেলা জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির ও ইউপি চেয়ারম্যান মাও. সুলাইমান হোসাইন বলেন, দক্ষিণ সুরমায় জোটের সিদ্ধান্তের বাহিরে জেলা বিএনপির সাংঠনিক সম্পাদক আলী আহমদ বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচন করায় জামায়াত প্রার্থীর পরাজয় হয়েছে। এই প্রেক্ষাপটে সংগঠনের উচিত কানাইঘাটে আব্দুর রহিমকে সমর্থন দেয়া।
এ ব্যাপারে সিলেট জেলা উত্তরের জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির উপাধ্যক্ষ ফয়জুল্লাহ বাহার বলেন, আমরা আশিক চৌধুরীকে জোটের সমর্থন দিয়েছি। আব্দুর রহিমকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। যারা তার সঙ্গে আছেন তারা দু’একদিনের মধ্যেই আশিক চৌধুরীর সঙ্গে চলে আসবেন।
দক্ষিণ সুরমার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষন করা হলে তিনি বলেন, দক্ষিণ সুরমায় বিএনপি আমাদের ডিস্টার্ব করেছে এজন্য আমরা বিয়ানীবাজারে প্রার্থী দিয়েছি।
জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও কানাইঘাট-জকিগঞ্জ আসনের সাবেক এমপি অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দিন চৌধুরীর কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমিতো আব্দুর রহিমের পক্ষে কাজ করছিনা। এজন্য আমি কোন মন্তব্য করব না।’
উল্লেখ্য, ১৯ দলের বৈঠকে সিলেটের বালাগঞ্জ, বিশ্বনাথ, সদর, গোলাপগঞ্জ, গোয়াইঘাট, বিয়ানীবাজার, জকিগঞ্জ, কানাইঘাট ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় বিএনপি এবং জৈন্তাপুর, দক্ষিণ সুরমা ও ফেন্সুগঞ্জ উপজেলায় জামায়াত প্রার্থীর নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত হয়। তারপরও একাধিক উপজেলায় জামায়াত ও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীরা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। কিন্তু কোন জামায়াত প্রার্থীকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়নি।
কানাইঘাট উপজেলায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরীর চাচাতো ভাই আশিক চৌধুরীর সঙ্গে চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ায় নগর জামায়াতের রুকন আব্দুর রহিমকে বহিষ্কার করা হয়
উৎসঃ   ঢাকাটাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ