• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৪৩ অপরাহ্ন |

অপশক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়াই লক্ষ্য – আসাদুজ্জামান নূর

Nurঢাকা : সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, ২৬ মার্চ লাখো কণ্ঠে জাতীয় সংগীত গাওয়ার আয়োজন শুধু ইতিহাস কিংবা রেকর্ড গড়ার জন্য নয়, অপশক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়াই আয়োজনের অন্যতম লক্ষ্য।
তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন, নির্বাচনের আগে বিএনপি-জামায়াত ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড করে মানুষ হত্যা করেছে, নারী হত্যা করেছে, পুলিশ হত্যা করেছে। সেই অপশক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস হিসেবে জাতীয় সংগীত গাইবার এই আয়োজন।’
শুক্রবার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে এক প্রস্তুতি সভায় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে এসব কথা বলেন তিনি।
আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের ডেকে যখন এই পরিকল্পনার কথা বলেন, তখন আমরা অনেকে বলেছিলাম, লাখো লোকের জমায়েত করে জাতীয় সংগীত গাওয়া কি এতই জরুরি? কিন্তু এর উত্তরে তিনি আমাদের যা বলেছিলেন, তা হলো এতে আমাদের ঐতিহ্য সৃষ্টি হবে, চেতনা তৈরি হবে, নতুন প্রজন্মের দেশ ও মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে আগ্রহ তৈরি হবে। এটাই আমাদের লক্ষ্য।’
ইতিমধ্যে এই অনুষ্ঠান ঘিরে রাজধানীর স্কুলগুলোতে অনুশীলন শুরু হয়েছে, রাজনৈতিক নেতারা অনুশীলন করছেন, কারখানার শ্রমিকরা অনুশীলন করছেন, আনসাররা অনুশীলন করছেন, অনুশীলন করছেন সরকারি কর্মকর্তারাও। এমনকি সংসদ সদস্যরাও সংসদ প্লাজায় দাঁড়িয়ে জাতীয় সংগীত গাইবার অনুশীলন করেছেন বলেও সংস্কৃতিমন্ত্রী জানান। তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের মনে রাখতে হবে, জাতীয় সংগীত গাইবার সময় যদি ১০০ জনের মধ্যে পাঁচজনও না গায়, তাহলেও আমাদের সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ হবে। এজন্য সবাইকেই গাইতে হবে। কারণ জাতীয় সংগীত গাইবার সময় ইউনেসকো থেকে পাঠানো প্রতিনিধিদল এসব বিষয় পর্যবেক্ষণ করবে। আমরা সবাই শেখ হাসিনার সৈনিক। তার দেওয়া নির্দেশ সঠিকভাবে পালন করব।’
মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনামন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, ‘আমরা ঐতিহাসিক চ্যালেঞ্জ নিয়েছি। চ্যালেঞ্জ সফল করব। তবে এমন কোনো কাজ যাতে না হয়, যা দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করে।’
সংশ্লিষ্ট নেতাদের প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে ৫০০ জন লোক নিয়ে প্যারেড গ্রাউন্ডে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়ে মায়া বলেন, ‘এখানে যারা আছেন, তারা অনেকেই কোনো-না-কোনো স্কুলের সভাপতি বা গর্ভনিং বডিতে আছেন। মন্ত্রণালয় থেকে সব স্কুলকে নির্দেশ দেওয়া আছে। আপনারা শুধু গিয়ে নির্দেশ দেবেন শিক্ষার্থীদের নিয়ে আসতে।’
মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনাদের কারো এ রকম অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার অভিজ্ঞতা নেই। তাই শৃঙ্খলা মানবেন। কেউ এমন কিছু করবেন না, যাতে কারো মান ক্ষুণ্ণ হয়।’
কামরুল ইসলাম আরো বলেন, ‘আগামী ২৬ মার্চ আমরা একটি ইতিহাস সৃষ্টি করতে যাচ্ছি। এই ইতিহাস স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির বিরুদ্ধে এক লড়াইয়ের শক্তি।’
মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজ সভাপতিত্ব করেন প্রস্তুতি সভায়। মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুল হক সবুজ পরিচালনা করেন। বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি কামাল আহমেদ মজুমদার, মুকুল চৌধুরী, ফয়েজ উদ্দিন মিয়া, বজলুর রশিদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজি মোহাম্মদ সেলিম এমপি, আওলাদ হোসেন ও সাংগঠনিক সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ