• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন |

কম ঘুম মৃত্যু ডেকে আনতে পারে

ঘুমস্বাস্থ্য ডেস্ক: অনিদ্রা বা কম ঘুমানো স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক। এ অভ্যাসটি এতটাই বিপজ্জনক যে, অনেক সময় এতে আপনার মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। একজন চিকিৎসা বিশেষজ্ঞের বরাত দিয়ে গালফ নিউজ এ খবর জানিয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিশুবিভাগের চেয়ারম্যান ডা. ডেভিড গোজাল বলেন,‘মাত্র কয়েক ঘণ্টার ঘুমালেই আপনি সুস্থ থাকবেন এ ধারণা সত্যি নয়। ঘুম মানুষের জীবনের একটি অন্যতম প্রধান উপাদান। দীর্ঘদিন অপুষ্টিতে ভুগলে একজন মানুষ মারা যেতে পারে। পানি শূণ্যতার ফলে একজন ডায়রিয়ায় আক্রা্ত যেমন মারা যায় তেমনি অনেক দিনের কম ঘুম আপনার মৃত্যু ডেকে আনতে পারে।’
তিন দিনের এক চিকিৎসা সংক্রান্ত সম্মেলনে অংশ নিতে সম্প্রতি দুবাই এসেছিলেন ডা. গোজাল। এসময় তিনি গালফ নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন।
ডা. গোজালের মতে পর্যাপ্ত ঘুম না হওয়ার নানা কারণ থাকতে পারে। যেমন, মানুষের জীবনযাপনের ধরন, স্থূলতা, বিষন্নতা এবং শিশুবয়সেই স্বল্পঘুমে অভ্যস্ত হওয়া।
বাচ্চাদের ঘুম সংক্রান্ত সমস্যা সম্পর্কে তিনি বলেন,‘ সকাল বেলা আপনি আপনার বাচ্চটিকে ডেকে তুললেন। এতে তার মন খারাপ হল। ঘুম কম হওয়ার কারণে সে শরীরে পর্যাপ্ত শক্তিও পেলোনা। প্রতিদিন একটু একটু কম ঘুমাতে ঘুমাতে একসময় সে এতে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে।
ডা. গোজালের মতে একজন শিশুর প্রতিদিন ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা ঘুমানো প্রয়োজন। কিন্তু দু:খের বিষয় আজকাল বৈদ্যুতিক সামগ্রির কুপ্রভাবের কারণে অনেক শিশুই বেশি ঘুমাতে চায়না। তারা বিছানায় পড়ে পড়ে ঘুমানোর বদলে টেলিভিশন, কম্পিউটার, মোবাইল, আইপড এসব নিয়ে সময় কাটাতেই বেশি পছন্দ করছে। কম ঘুমানোর কারনে শিশুদের বৃদ্ধিজনিত সমস্যা দেখা দেয়। এছাড়া তাদের মধ্যে আচারণগত সমস্যাও দেখা যাচ্ছে।
শুধু ছোটরাই নয়, কম ঘুমানোর কারণে প্রাপ্তবয়স্করাও নানা সমস্যায় আক্রান্ত হতে পারেন। এ সম্পর্কে সংযুক্ত আরব আমীরাতের চিকিৎসক আল সুফৌহ বলেন, ঘুম কম হলে রক্তে প্রেসার এবং সুগার বেড়ে যায়। এছাড়া হতাশা, বিষন্নতা এবং উদ্বেগের মতো মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থেকে যায়।
সংযুক্তি আরব আমিরাতে নির্ঘুম বা স্বল্পঘুম অতি সাধারণ সমস্যা। স্থানীয় চিকিৎসক ডা. ললিত উচিল বলেন, প্রতিদিন তার কাছে যেসব রুগী এসে থাকে তাদের বেশিরভাগই দুর্বলতা, অমনোযোগীতা এবং অবসাদজনিত সমস্যায় আক্রান্ত। তারা এতটাই ক্লান্ত থাকেন যে, নিজেদের জন্য মানসিক আনন্দ খুঁজে পাওয়ার মতো কাজ করার মতো শক্তিও তারা খুঁজে পাননা। দীর্ঘদিন ধরে কম ঘুমানোর অভ্যাস রপ্ত করায় তার এসব সমস্যায় ভুগতে থাকেন।
তিনি মনে করেন, অনিয়মিত ঘুমের অভ্যাস থেকে অনিদ্রার মতো মারাত্মক রোগটি দেখা দেয়। আর ত্রিশোর্ধ বয়সের যে কোনো ব্যক্তি এ রোগে আক্রান্ত হতে পারেন।
সাধারণত: ঘুম সমস্যায় আক্রান্তদের ঘাড় খাটো হয় এবং তাদের অধিকাংশই ঘুমের মধ্যে নাক ডাকেন। ঘুমন্ত অবস্থায় তাদের শ্বাসনালীতে পর্যাপ্ত অক্সিজেন প্রবেশ না করায় কখনো কখনো তাদের শ্বাস-প্রশ্বাস ১৫ থেকে ২০ মিনিট বন্ধ থাকে। এদের জন্য মাথাব্যাথা, অমনোযোগিতা এবং দিবানিদ্রা বা তন্দ্রায় আক্রান্ত হওয়াটাও অতি স্বাভাবিক ঘটনা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ