• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১২:১৩ অপরাহ্ন |

ধর্মনিরপেক্ষতা বনাম সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি

Parbatipur_(Dinajpur)_Photo_ROKUNUZZAMAN_-14-2-14ড. মিহির কুমার রায়: সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ বাংলাদেশ এ কথাটি ইদানীং রাজনীতির অঙ্গনে যত শোভা পায় বাস্তব জীবনে বিষয়টি এতটা আশাপ্রদ নয়। কারণ হিসেবে উল্লেখ বলা হয় ধর্মকে রাজনীতির হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করা। বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ধারায় এই অনুশীলনটি একেবারেই নতুন নয় এবং এর ফল হিসেবে সংখ্যাগুরুরা কতটুকু উপকৃত তা নির্ণয় হয়েছে বলে জানা নেই। তবে সংখ্যালঘুরা যে বিভিন্ন পর্যায়ে ভবিষ্যত থেকে বর্তমান পর্যন্ত ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে চলছে তা দেশের মোট জনসংখ্যায় তাদের ক্রমানুপাতিক হার হ্রাস পাওয়া চিত্র থেকেই অনুধাবন করা যায়।

অনেকে ধারণা করছেন এমন এক সময় আসবে যখন সংখ্যালঘুদের খুঁজে পাওয়া যাবে না দেশের মাটিতে। অতীত এবং সাম্প্রতিক নির্যাতনের চিত্র থেকে দেখা যায় যে, প্রশাসনিকভাবে সরকারী কাজে মাঠ প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিগণই ঘটনা সংগঠিত হওয়ার পর পরই নিরাপত্তার আয়োজন নিয়ে উপস্থিত হয় ঘটনাস্থলে বহিরাগত হিসেবে অথচ সামাজিকভাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত স্থানীয় নেতৃবৃন্দ তথা স্থানীয় সরকার একেবারেই নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে। যদিও স্থানীয়ভাবে এই সকল জীবন তথা সুনাম ক্ষুন্নকারী সমস্যাগুলো নিরসনে তাদেরই মুখ্য ভূমিকা পালন করার কথা। অথচ এই অঞ্চলেই বিশেষত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলো যারা আমাদের তুলনায় অনেকদূর এগিয়ে গেছে তারা এই বিষয়টিকে সুষ্ঠু নেতৃত্বের সঙ্গে এমনভাবে নিয়ন্ত্রণ করেছে যা কোনভাবেই তাদের সামাজিক কিংবা রাষ্ট্রীয় জীবনে প্রভাব ফেলছে না।

এ ব্যাপারে উৎসাহ এবং একাগ্রতা একটি বড় বিষয় এবং সরকারী পর্যায়ে যে আয়োজন বিশেষত আইনগত সহায়তা তা একেবারেই অপর্যাপ্ত রয়ে গেছে কাঠামোগতভাবে যা আবার নতুন করে সংস্কারের দাবি উঠেছে মানবতাবাদী সংগঠনগুলোর কাছ থেকে। কারণ সমস্যাটি এত বেশি প্রকট যে এখন থেকে যদি এর পরিচর্যা না হয় তাহলে ইতিহাসের পাতায় এটা কালো অধ্যায় হিসেবে স্থান করে নেবে। যে আদর্শের ভিত্তিতে দেশে মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল বিগত চার দশক তা হোঁচট খেয়েছে বার বার বিশেষত মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তির কাছে এবং দেশে এখন যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এগিয়ে চলছে জাতিকে কলঙ্কের কালিমা থেকে মুক্ত করার জন্য যা মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দলের প্রধান শরিক বাংলাদেশে আওয়ামী আমলেই পরিচালিত হচ্ছে। এই কাজটি দেশ থেকে সাম্প্রদায়িক শক্তি নির্মূল করার অনেক পদক্ষেপের মধ্যে একটি এবং তাহলে প্রশ্ন আসে বাকি কাজগুলো কি কি।

এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে দেখা যায় যে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর মোট দশটি জাতীয় সংসদ নির্বাচন সাংবিধানিক কাঠামোতে সম্পন্ন হয়েছিল এবং তার মধ্যে নব্বই পরবর্তী যে পাঁচটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল তাতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট দুটিতে এবং আওয়ামী নেতৃত্বাধীন জোট তিনটিতে জয়লাভ করে সরকার পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করে গণতান্ত্রিক উপায়ে। কিন্তু প্রতিটি নির্বাচন পূর্ব এবং পরবর্তী সময়ে দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায় যারা দেশের মোট জনসংখ্যার নয় ভাগে নেমে এসেছে তারা কোনভাবে স্বস্তিতে থাকতে পারেনি কেবল রাজনৈতিক সহিংসতার কারণে।

এখন আবার প্রশ্ন আসে এই অনৈতিক সহিংসতার ঝড়টি বিশেষ সময়ে বিশেষ সম্প্রদায়ের ওপর দিয়ে বয়ে যায় কেন এবং কোন কোন রাজনৈতিক দল মনে করে থাকে যে এই সকল সংখ্যালঘু সম্প্রদায় বিশেষ রাজনৈতিক দলের ভোট ব্যাংক হিসেবে পরিচিত। আবার রাজনৈতিক মঞ্চ থেকে শোনা যায় যে বাংলাদেশে সংখ্যালঘু বলতে কিছু নেই সকলই বাংলাদেশী হিসাবে সম সুযোগের অধিকারী। আবার কোন কোন বিশ্লেষক মনে করে যে বাংলাদেশে ভারতবিদ্বেষী মনোভাব সময় সময় মাথাচারা দিয়ে ওঠে যা দেশের ভিতরে সংখ্যালঘু হিন্দু নির্যাতনের আরও একটি কারণ। যে যাই মনে করুক না কেন দেশের এই সম্প্রদায় যে নির্বাচনোত্তর সাম্প্রদায়িক নির্যাতনের শিকার যা সম্প্রতি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন পরবর্তী ঘটনা থেকে প্রমাণিত হয়েছে দেশের যশোর, দিনাজপুর, রংপুর, গাইবান্ধা ও লক্ষ্মীপুরে।

সহিংসতার ধরনগুলো ছিল ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগ, লোন্টন, শারীরিক নির্যাতন, ভয়ভীতি ইত্যাদি এবং নির্যাতনের কারণ হলো জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট প্রদান যা প্রথম থেকে অপর দলীয় জোট প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়ে আসছিল। এ ঘটনাগুলো সংঘটিত হওয়ার পর পরই দেশব্যাপী সমালোচনার ঝড় ওঠে এবং বিভিন্ন মিডিয়ার টকশো সামাজিক সংগঠনসহ সুশীল সমাজে প্রতিবাদে মুখর হয়ে ওঠে। প্রশ্ন আসে ৫ জানুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত এই সকল পরিস্থিতির মোকাবেলায় সরকার কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে এবং এর মধ্যে গণজাগরণ মঞ্চ ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলোতে সরেজমিনে দেখতে গিয়ে প্রতিরোধের সম্মুখীন হয়েছে। তার অর্থ এই দাঁড়ায় যে সাম্প্রদায়িক শক্তি এখনও সজাগ রয়েছে এবং ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটিসহ সমধর্মী সংগঠনগুলো এই সকল অপরাধের বিচারের জন্য বিশেষ ট্রাইব্যুনালের দাবি করে আসছে অনেকদিন থেকে। সঙ্গে সঙ্গে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদসহ সংখ্যালঘুদের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠনগুলো দেশব্যাপী প্রতিবাদমুখর এবং দেশের রাজনীতিবিদগণ এখন আর সভাসমিতিতে এ কথা বলার অধিকার হারিয়েছে যে বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অপূর্ব মিলনক্ষেত্র।

তাহলে করণীয় কি হতে পারে তা নিয়ে এখনই ভাবনার সময়। প্রথমত, রাজনীতিই দেশে সংঘটিত সহিংসতার প্রধান কারণ হিসেবে চিহ্নিত যা ধর্মের দোহাই দিয়ে বা অন্য কোন অজুহাতে হোক।

সম্প্রতি নির্বাচন পরবর্তী সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ব্যাপারে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সংসদ বা দেশের বিদেশী মিশনের কূটনীতিকদের কাছে বিষয়টি পরিষ্কার হয়েছে যে দেশে ধর্মীয় সাম্প্রদায়িক সংগঠনগুলোই এই সহিংসতার জন্য মূলত দায়ী যাদের রাজনীতি কার্য বন্ধ করা প্রয়োজন। দ্বিতীয়ত, সাম্প্রদায়িক সহিংসতা সংক্রান্ত অপরাধগুলোকে সাধারণ বিচারিকের কাঠগড়ায় দাঁড় করলে আক্রান্তরা আর কোনদিন বিচার পাবে না যা এতদিন সকলই দেখে এসেছে। কারণ রাজনীতিবিদরা একে অন্যকে দোষারোপের ফলে প্রকৃত অপরাধীরা আর ধরা পড়ে না যার জ্বলন্ত উদাহরণ প্রায় এক বছর আগে রামুর বৌদ্ধ মন্দির জ্বালিয়ে দেয়ার ঘটনার বিচারিক কাজের মন্থর গতি। তৃতীয়ত, যারা ধর্মনিরপেক্ষতা নীতিকে বিশ্বাস করে না তারাই বিভিন্ন সময়ে ধর্মকে রাজনীতির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টিতে ইন্ধন যোগায় যার উদাহরণ বাংলাদেশে অসংখ্য রয়েছে।

লেখক : ডিন, সিটি ইউনিভার্সিটি, ঢাকা

দৈনিক জনকন্ঠ, ২১ মার্চ ২০১৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ