• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৩১ পূর্বাহ্ন |

বিএনপির হাতে নেতৃত্ব না থাকার আশঙ্কা- পিয়াস করিম

Piasঢাকা: বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নের্তৃত্ব যদি জনগণের ভাষা না বোঝে তবে আগামী দিনে তাদের হাতে নেতৃত্ব থাকবে না বলে মন্তব্য করেছেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. পিয়াস করিম।
তিনি বলেন, বিএনপি আন্দোলন না করলে জনগণের আন্দোলন থেমে থাকবে না। তিনি জানান, যে ছেলেটি যশোর কিংবা সাতক্ষীরায় গুলি খেয়েছে সে অবশ্যই আন্দোলন করবে। এক সময় তাদের হাতে চলে যাবে আগামী দিনের নের্তৃত্ব। তার এ বক্তব্যের সময় বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া উপস্থিত ছিলেন।
শনিবার বিকেলে ভাসানী স্মৃতি সংসদ আয়োজিত ‘স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ ও মাওলানা ভাসানী’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
পিয়াস করিম বলেন, অত্যাচারী স্বৈরাচার সরকারের বিরুদ্ধে জনগণের আন্দোলন থেমে থাকবে না। বিএনপি যদি আন্দোলন না করে তবে অন্য কারো হাতে চলে যাবে সে আন্দোলন।
তিনি বলেন, যুগে যুগে বিশ্বের স্বৈরাচারী শাসকদের বিরুদ্ধে শান্তিকামী আন্দোলন করে তাদের পতন ঘটিয়েছে। আগামী দিনে শেখ হাসিনা বিরুদ্ধেও জনগণ
দাঁড়াবে। জনগণের আন্দোলনের মুখে এই স্বৈরাচার সরকারের পতন হবে নিশ্চয়।
মাওলানা ভাসানীর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে সকলকে সজাগ হতে হবে উল্লেখ করে পিয়াস করিম বলেন, এই সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হলে শুধু শেখ হাসিনাকে স্বৈরাচার বললে হবে না, জনগণকে নতুন স্বপ্ন দেখাতে হবে। না হয় মানুষ পুলিশ-বিজিবি’র গুলির সামনে রাস্তায় নামবে না।
আইসিসি টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের উদ্বোধনী ম্যাচে ভারতীয় সংস্কৃতির প্রতিফলন হয়েছে অভিযোগ করে পিয়াস করিম বলেন, আজকের তরুণ ছেলেদের গায়ের জার্সিতে ভারতীয় কোম্পানি সাহারা’র লোগা ঝুলছে। এটা স্বাধীন দেশের প্রতি অবমাননাকর।
আমাদের পোশাক শিল্পকে ধ্বংস করতে ভারতের অনুপ্রবেশকারী ঢুকেছে। এই শিল্পকে ধ্বংস করতে বিদেশি একটি শক্তি সক্রিয় আছে বলেও জানান তিনি।
মাওলানা ভাসানীকে আ’লীগ মেনে নিতে পারে না কারণ তিনি কোন দেশ থেকে স্বাধীন হয়ে অন্যকোন কোন দেশের আওতায় যেতে চাননি।
ধর্মের উপর প্রবল বিশ্বাস রেখেও কীভাবে অসম্প্রাদায়িক হওয়া যায় তার অস‍াধারণ উদাহরণ হলো মাওলানা ভাসানী। তিনি কমিউনিস্ট ছিলেন না কিন্তু কমিউনিস্টদের সঙ্গে তার সখ্যতা ছিল প্রবল। তিনি বিশ্বাস করতেন ধর্ম মানুষের মাঝে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করতে পারে।
সংগঠনের সভাপতি জিয়াউর হক মিলুর সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন, সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপি নেতা নূর মোহাম্মদ খান, ভাসানী স্মৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদক কাজী মুনিরুল হুদা, এডভোকেট নাজমুল হক নান্নু, ছড়াকার আবু সালেহ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ