• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৫১ পূর্বাহ্ন |

নাটের গুরু সুপার!

Badarganj Madrasha Photo 01বদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের বদরগঞ্জ সীমান্তে রংপুর সদর উপজেলার মমিনপুরহাট দাখিল মাদ্রাসার সুপার মকছেদ আলীর বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাত, এফডিআর জালিয়াতি, জাল স্বাক্ষরসহ নানা অনিয়ম-দূর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এলাকাবাসীদের লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, ওই মাদ্রাসার সুপার প্রকৃত অভিভাবকদের বাদ দিয়ে বেআইনিভাবে মনগড়া কমিটি গঠন করেছেন। এছাড়াও মাদ্রাসার শ্রেনী কক্ষ ভাড়া দেয়া, মাদ্রাসার জমি লিজ দেওয়া, ওই জমির গাছ কাটা ও দীর্ঘদিন ধরে লক্ষ লক্ষ টাকার নিয়োগ বাণিজ্য করে আসছেন। এ ঘটনায় এলাকাবাসী ওই সুপারিনটেনডেন্ট (সুপার) এর বিরুদ্ধে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ জেলা প্রশাসকের কাছে একাধিক অভিযোগ করেও কোন ফল পায়নি। সুপার মকছেদ আলী তার খুঁটির জোরে নিজের খেয়াল খুশিমত প্রতিষ্ঠানটি চালিয়ে আসছেন। আর এসব করছেন তিনি নাটের গুরু ওই প্রতিষ্ঠানের সভাপতি রংপুর জেলা পরিষদের সহকারী প্রকৌশলী ফজলার রহমানের দৌরাত্বে। তাদের এমন স্বেচ্ছারিতার কারণেই মাদ্রাসাটি ডুবতে বসেছে। এছাড়াও সভাপতির বড় ভাই সাব রেজিস্ট্রার্ড আনারুল হক বাবু ওই প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৪ বিঘা চাষাবাদি জমি অন্যত্র লিজ দিয়ে বছরের পর বছর অর্থ আত্মসাত করে আসছেন।  এলাকায় তারা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে সাহস পায় না।
জানা যায়, মমিনপুরহাট দাখিল মাদ্রাসার সুপার মকছেদ আলী নিজের ওই পদটির জন্য  ভারপ্রাপ্ত সুপার মতিউর রহমানের স্বাক্ষর জাল করে নিয়োগ নেন। তিনি ওই প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটিতে অভিভাবকদের সুযোগ না দিয়ে তার পছন্দের লোকজন দিয়ে মনগড়া কমিটি গঠন করে মাদ্রাসায় দূনীতির পাহাড় গড়ে তুলেছেন। এছাড়াও ওই সুপার মাদ্রাসার এফডিআর ফান্ডে থাকা ৭৪ হাজার টাকা কাজের নামে উত্তোলন করে ভুয়া ভাউচার দিয়ে সমুদয় অর্থ আত্মসাত করেন। এমনকি তিনি মাদ্রাসার শ্রেনী কক্ষটি এক ব্যবসায়ীর কাছে গোডাউন ঘর হিসাবে ভাড়া দিয়েছেন। প্রতিষ্ঠানটির অনেক গাছ-পালা নির্বিচারে কেটে প্রায় দুই লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিয়েছে সুপার মকছেদ আলী। ওই প্রতিষ্ঠানের জায়গা গোপনে লিজ দিয়ে মহিলা মাদ্রাসার মোহতামীম আব্দুল মমিনের নিকট মোটা অংকের উৎকোচ নিয়েছে ওই সুপার। তার ওই লিজ দেওয়া জায়গায় তৈরি করা হচ্ছে মহিলা মাদ্রাসার দ্বিতল ভবন। ওই প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগের প্রকৃত আবেদকারীদের সাক্ষাৎকার পত্র গোপন রেখে, তার মনোনিত ৬ প্রার্থীকে অবৈধ ভাবে নিয়োগ দিয়েছেন। নিয়োগ বানিজ্যে সে প্রায় ২৫লক্ষাধিক টাকা আত্মসাত করেন। এতকিছুর পরও তিনি নিয়মিত মাদ্রাসায় আসেন না।
এদিকে ওই প্রতিষ্ঠানে অফিস সহকারী পদে ২০০০ সালে নিয়োগ প্রাপ্ত হন সাদেকুল ইসলাম।  ২০০১ সালে এমপিওভুক্ত হন অফিস সহকারী সাদেকুল। এক পর্যায়ে গত ১৯ জানুয়ারী ২০১৩ ইং সালে সুপার মকছেদ আলী তার মনগড়া কমিটির লোকজনদের সাথে যোগসাজস করে রেজুলেশনের মাধ্যমে অফিস সহকারী পদটি শুন্য ঘোষণা করে এবং ওই পদে আবারও সুলতানা রাজিয়া নামে একজনকে নিয়োগ দেন। এঘটনায় অফিস সহকারী সাদেকুল এর প্রতিবাদে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা অফিসে অভিযোগ করেন। বিষয়টি ধামাচাপা দিতে সুপার মকছেদ আলী সাদেকুলকে এবতেদায়ী শাখায় শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়ার আশ্বস্ত করেন। এছাড়াও ওই মাদ্রাসার ২০ বছর ধরে মঞ্জুরি নবায়ন নেই। ২০১২ সাল হতে ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৪ইং পর্যন্ত তার মনোনীত ব্যক্তিদের নিয়ে কমিটি গঠন করলেও তাদের ছেলে মেয়েরা এ মাদ্রাসার কোন শিক্ষার্থী নয়। কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার ৮০দিন পূর্বে  নুতন কমিটি গঠনের কার্যক্রমের নিয়ম থাকলেও ওই সুপার তা না করে আবারো একই কায়দায় কমিটি গঠনের চেষ্টা করছেন। এদিকে সুপারের মদদে ওই প্রতিষ্ঠানের কয়েকজন শিক্ষক ও কর্মচারী জাল সনদপত্র দিয়ে চাকুরী নিয়ে বহাল তবিয়তে রয়েছেন।
সোমবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তখন সময় সকাল সাড়ে দশটা। মাদ্রাসার পিয়ন তোজাম্মেল হক শ্রেণী কক্ষের তালা খুলছে। এর কিছুক্ষণ পর হতে দু একজন করে শিক্ষক ও শিক্ষার্থী ওই মাদ্রাসায় আসতে থাকেন। ওই মাদ্রাসায় শিক্ষার্থীদের মাঝে মধ্যে জাতীয় সংগীত করা হলেও জাতীয় পতাকার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা হয় না। ওই মাদ্রাসায় এবতেদায়ী ১ম শ্রেণী হতে দাখিল দশম শ্রেণী পর্যন্ত ২৫জন শিক্ষার্থী মাত্র। ছাত্র ছাত্রীরা যে যার মতে মাঠে খেলছে। এমনকি এবারের চলমান দাখিল পরীক্ষায় ওই মাদ্রাসা থেকে মাত্র ৩জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করেছে। মাদ্রাসার পাশেই মমিনপুরহাট। সেখানে শিক্ষকরা চায়ের দোকানে খোস গল্প করে সময় কাটাচ্ছেন। মাদ্রাসার সদর গেটের দুইধারে দোকান-পাট ভাড়া দেওয়া হয়েছে। এমনকি মাদ্রাসার শ্রেণী কক্ষও ভাড়া দেওয়া হয়েছে। ওই শ্রেণী কক্ষটি ব্যবসায়ীরা গোডাউন ঘর হিসাবে ব্যবহার করছে। সুপারের অফিস কক্ষে গিয়ে দেখা যায়, সুপার মকছেদ আলী অনুপস্থিত। সহকারী সুপার আব্দুর রশিদসহ কয়েকজন সহকারী শিক্ষকের উপস্থিতে ওই শিক্ষার্থীদের পাঠদান চলছে। এসময় ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী আছমা বলেন, স্যারেরা নিয়োমিত মাদ্রাসায় না আসায় আমাদের পড়াশুনা ভালোমতো হয় না। এ কারনেই এই মাদ্রাসায় অনেক শিক্ষার্থীরা আসে না।
প্রতিষ্ঠানের দাতা সদস্য শাহবুদ্দিন মন্ডল জানান, ওই দূর্নীতিবাজ সুপারের বিরুদ্ধে অচিরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা না নিলে বৃহত্তর আন্দোলন করা হবে।
সহকারী সুপার আব্দুর রশিদ ও অন্যান্য শিক্ষকরা বলেন সব কিছুই নিয়ন্ত্রণ করেন সুপার মুকছেদ আলী ও সভাপতি ফজলার রহমান। তাদের নির্দেশ ছাড়া মাদ্রাসার পাতাও নড়ে না। এসময় তথ্য জানতে চাইলে সুপারের নির্দেশ ছাড়া দেওয়া যাবে না বলে জানান।
সুপার মকছেদ আলী তার বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, একটি চক্র মাদ্রাসাকে ধ্বংসের পায়তারা করছেন। সভাপতি ফজলার রহমানের সাথে ০১৮২৪৩৯২৮৩৭ নং মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্ঠা করা হলে ফোন না ধরায় তার কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ