• শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ১১:৪৮ পূর্বাহ্ন |

নারকেল তেলের বাজারে পিছিয়ে দেশী উদ্যোক্তারা

Coconuteঅর্থনীতি ডেস্ক: দেশে ক্রমেই নারকেল তেলের চাহিদা বাড়ছে। এ তেল তৈরির প্রধান কাঁচামাল নারকেল আমদানির পাশাপাশি দেশেও উৎপাদন হয়। তবে বাজার দখলে পিছিয়ে দেশী উদ্যোক্তারা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বহুজাতিক কোম্পানির কারখানায় উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার হচ্ছে। পণ্যের প্রচারণা ও বাজারজাতকরণ কৌশলেও তারা এগিয়ে। তাই পিছিয়ে পড়ছেন দেশী উদ্যোক্তারা।
বাজার সংশ্লিষ্টরা জানান, দেশে প্যাকেটজাত নারকেল তেল বাজারের দুই-তৃতীয়াংশের বেশি দখলে রয়েছে বহুজাতিক কোম্পানি মেরিকো বাংলাদেশ লিমিটেডের প্যারাসুট ব্র্যান্ডের। দেশী কোম্পানির মধ্যে রয়েছে— স্কয়ার ট্রয়লেট্রিজের জুঁই নারকেল তেল, লালবাগ কেমিক্যালের মালিকানাধীন হাঁস মার্কা গন্ধরাজ তেল, মৌসুমী এন্টারপ্রাইজের কিউট নারকেল তেল, তিব্বত কোম্পানির কদুর তেল। এছাড়া খোলা নারকেল তেল বাজারজাতকারী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রাজা, তীর, তিন ডাব, চার ডাব, মদিনা, ডায়মন্ড ও কর্ণফুলী উল্লেখযোগ্য।
বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশে লাইসেন্সধারী নারকেল তেল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান দুই শতাধিক। অধিকাংশ কারখানা রয়েছে খুলনায়। এছাড়া রাজশাহী, চট্টগ্রাম, বরিশাল ও রাজধানীর পুরান ঢাকায় কয়েকটি লাইসেন্সধারী প্রতিষ্ঠান রয়েছে।
ব্যবসায়ীরা জানান, একসময় সনাতন পদ্ধতিতে ঘানি থেকে নারকেল তেলের সরবরাহ আসত। পরে প্রযুক্তির সুবিধা কাজে লাগিয়ে দেশী উদ্যোক্তারা নারকেল তেল উৎপাদনে বিনিয়োগ করেন। তখন দেশী বিভিন্ন ব্র্যান্ড গড়ে ওঠে। তবে বহুজাতিক কোম্পানির পণ্য আসার পর দেশী উদ্যোক্তারা পিছিয়ে পড়ছেন।
এ সম্পর্কে মৌসুমী ইন্টারপ্রাইজের কর্মকর্তা (সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং) কাজী নেওয়াজ ইবনে মাহবুব বণিক বার্তাকে বলেন, দেশী কোম্পানির ক্রেতার সংখ্যা কমেনি, বরং দিন দিন বাড়ছে। তবে বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারছে না। উন্নত প্রযুক্তি ও বাজারজাত ব্যবস্থা ওইসব কোম্পানিকে এগিয়ে রাখছে। নারকেল তেলের বাজারে এগিয়ে যাওয়ার জন্য দেশী উদ্যোক্তাদের নতুন কৌশল নির্ধারণের সময় এসেছে।
লালবাগ কেমিক্যালের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, নারকেল তেলের বাজারে দেশী কোম্পানির বিক্রি ক্রমেই বাড়ছে। তবে বহুজাতিক কোম্পানিগুলো আরো বেশি এগিয়ে যাচ্ছে।
একচেটিয়া বাজার থাকায় প্যারাসুট ব্র্যান্ডের নারকেল তেলের দাম দফায় দফায় বাড়ছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। বর্তমানে বাজারে প্যারাসুট ব্র্যান্ডের ৫০০ গ্রাম তেলের বোতল বিক্রি হচ্ছে ২৪০ টাকায়। কেরানীগঞ্জের আগানগর এলাকার মুদি দোকানি সৌরভ আহমেদ বলেন, প্যারাসুট নারকেল তেলের দাম দফায় দফায় বাড়ছে। কিছুদিন আগেও ৫০০ গ্রামের কৌটা ছিল ২২০ টাকা। হঠাৎ করে তা ২৪০ টাকা করা হয়েছে। এরপর অন্য কোম্পানিগুলোও দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। বর্তমানে ৪০০ গ্রামের জুঁই তেল ১৯০-২১০, গন্ধরাজ ১৮৫-২০০ ও কিউট ১৭০-১৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
মেরিকো বাংলাদেশ লিমিটেডের পরিচালক ইকবাল বলেন, প্রতিটি কোম্পানির নিজস্ব নীতি রয়েছে। পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির বিষয়ে কোম্পানির নীতিনির্ধারকরাই সিদ্ধান্ত নেন। কেবলত্র তারাই এ বিষয়ে জানাতে পারবেন। এর চেয়ে বেশি আর কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।
এদিকে খোলা তেলের তুলনায় বোতল ও কৌটাজাত ব্র্যান্ডের তেল বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। বর্তমানে প্রতি কেজি খোলা নারকেল তেল বিক্রি হচ্ছে ২০০-২৪০ টাকায়। একই পরিমাণ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের প্যাকেটজাত নারকেল তেলের দাম ৪২০-৪৮০ টাকা। পুরান ঢাকার মৌলভীবাজারের পাইকারি নারকেল তেল বিক্রেতা শুভ এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী সাইফুল ইসলাম বলেন, চার-পাঁচ বছরের ব্যবধানে খোলা নারকেল তেলে কেজিপ্রতি দাম ৩০-৪০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। কিন্তু কৌটার তেলের দাম অস্বাভাবিক বেড়েছে। কোম্পানিগুলো নানা ধরনের বিজ্ঞাপন দিয়ে ক্রেতাদের আকর্ষণ করছে। এ তেলের চাহিদাও দিন দিন বাড়ছে। কোম্পানিগুলো এর সুযোগ নিচ্ছে।
নারকেল তেল উৎপাদনকারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গড়ে ১০০ নারকেল থেকে সাড়ে ৮ কেজি তেল উত্পন্ন হয়। মৌসুমের শুরুতে প্রতি ১০০ নারকেল বিক্রি হয় ১ হাজার ৫০০ থেকে ১ হাজার ৬০০ টাকায়। এ হিসাবে প্রতি কেজি নারকেল তেলের দাম পড়ে ১৭৬-১৮৮ টাকা। তবে মৌসুমের শেষে নারকেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রতি কেজি তেলের দাম ২০০ টাকা ছাড়িয়ে যায়। বণিকবার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ