• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১১ অপরাহ্ন |

সাধারণ মানুষ যাবে কোথায়?

Sadekসাদেক খান: ১৮ মার্চ দৈনিক পত্রিকায় হেডলাইন: ২৪ ঘণ্টায় ১৩ লাশ। পৃথক পৃথক জায়গায় সেসবের উদ্ধার। লাশ পাওয়া গেছে নদীতে, পুকুরে, খালে ও বিলে। কখনো অজ্ঞাত, কখনো পরিচিত। সবারই মৃত্যু অস্বাভাবিক। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে দেশে। উদ্ধার হওয়া বেশিরভাগ লাশের মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারছে না স্থানীয় থানার পুলিশ ও পরিবারের সদস্যরা। বুঝতে পারছে না, কে বা কারা এভাবে লাশ ফেলে রেখে যাচ্ছে। বেশিরভাগ লাশ পচে-গলে বিকৃত হয়ে গেছে। ফলে শনাক্ত করা যাচ্ছে না। এর আগে নোয়াখালী থেকে খবর: নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার মেঘনা নদীর ডালচর, মৌলভীরচর, বৌবাজার ও চেয়ারম্যানঘাট এলাকায় গত কয়েক দিন ধরেই মানুষের মৃতদেহ ভাসতে দেখার খবর আসে। ১৫ মার্চ মেঘনা নদীতে মাছ ধরার জেলেরা কয়েকটি মৃতদেহ দেখে হাতিয়া থানা পুলিশকে খবর দেয়। দু’দিন ধরে ১৭-১৮টি লাশ ভেসে যেতে দেখা যায়। ১৫ মার্চ বিকেল থেকে ১৬ মার্চ সন্ধ্যা পর্যন্ত সুখচর উপজেলার হরিণ বাজারের পূর্ব দিকে মেঘনার কূলে একটি, একই গ্রামের পশ্চিম পাশে দুটি, বৌবাজারের পশ্চিম পাশে তিনটি, নয়াপাড়া গ্রামে জেলেদের জালে একটি ও আমানুল্যাহ গ্রামের মেঘনার তীরে একটি মৃতদেহ নদীতে ভাসছিল। উদ্ধার না হওয়া মৃতদেহগুলো জোয়ারের পানিতে ভেসে গহিন সাগরে চলে যাচ্ছে। হাতিয়া থানা পুলিশ শেষ পর্যন্ত ৩টি লাশ উদ্ধারের খবর নিশ্চিত করেছে। পুলিশ কোনো ব্যাখ্যা না দেয়ায় লোকজন মনে করছে লাশগুলো জলদস্যুদের। কয়েক দিন আগে পুলিশ, র‌্যাব ও কোস্টগার্ডের সঙ্গে ডাকাতদের গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। আবার কেউ বলছেন, লাশগুলো জেলেদের। মাছ ধরতে গিয়ে জলদস্যুদের হাতে নিহত হয়েছে। হাত-পা বেঁধে তাদের পানিতে ফেলে দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে চট্টগ্রাম মহানগরীর ষোলশহর ২নং গেট মোড় থেকে নিখোঁজ দুই যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তারা এমইএস কলেজের ছাত্র কামরুল হাসান (২০) ও গার্মেন্টসকর্মী ফোরকান (২৩)। দু’দিন ধরে তারা নিখোঁজ ছিল। পিরোজপুরের কাউখালীতে শাওন দীপ মিত্র (১৮) নামে এক কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে স্থানীয় থানার পুলিশ। গলায় গামছা পেঁচানো ও ঝুলন্ত অবস্থায় পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। গাজীপুরে এক পুলিশ হাবিলদারের বাসার ভাড়াটে কল্পনা (২০) নামের গার্মেন্টসকর্মীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। কল্পনার মুখমণ্ডল, পেট, পিঠসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে জখম এবং আগুনের ছেঁকার দাগ পাওয়া যায়। খুলনার ফুলতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য পরিদর্শক ফেরদৌস হোসেন শেখের (৫৮) লাশ ১৭ মার্চ সকাল ৭টার দিকে নগরীর খানজাহান আলী থানা পুলিশ উদ্ধার করেছে। ১৬ মার্চ রাতের খাওয়া-দাওয়া শেষে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফেরেননি ফেরদৌস। পরদিন সকাল ৭টার দিকে তার বাড়ির পাশের বাঁশবাগানের মধ্যে লাশ পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশকে খবর দেয়। বাগেরহাটের ফকিরহাটের সাধের বটতলা এলাকার একটি পুকুর থেকে অজ্ঞাত পরিচয় এক যুবতীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই এলাকার রাস্তার পাশে পুকুরে মৃতদেহটি ভাসতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশে খবর দেয়। ১৭ মার্চ সকালে কচুয়া উপজেলার দোবাড়িয়া এলাকার একটি পুকুর থেকে স্থানীয় হানিফ শিকদারের স্ত্রী ২ সন্তানের জননী বীথি আক্তারের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এদিকে একই দিন রাজধানীর রামপুরা থেকে এক নারী ব্যাংক কর্মকর্তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। বনশ্রী এলাকার বাসা থেকে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করে রামপুরা থানা পুলিশ। নিত্য এমন বেঘোরে মারা যাওয়া অজানা মানুষের লাশ দেখে দেখে হতবাক সাধারণ মানুষ। একটি পাঠক মন্তব্য: ওগুলো লাশ নয়, গণতন্ত্র। আরো মন্তব্য: এই সরকার জনগণের সরকার নয়, এই সরকার বন্দুকনির্ভর সরকার। সারাদেশেই এখন লাশের মিছিল। এভাবে একটা দেশ চলতে পারে না।

১৫ মার্চে অনুষ্ঠিত তৃতীয় দফা উপজেলা নির্বাচনে ভোটদাতারা অবাধ সহিংসতায় সরকারি প্রশ্রয় ও পক্ষপাতের যে নমুনা দেখেছে, তাতে অস্ত্রবাজি, গুম-খুন আর লাশের সঙ্গে গণতন্ত্রকে সমার্থক সাব্যস্ত করে এমন মন্তব্য স্বাভাবিক। প্রকাশিত সংবাদ থেকে একটি উপজেলা নির্বাচনে অবিশ্বাস্য ভোট ডাকাতির নমুনা দেখা যাক: গণসিল, জাল ভোট আর কেন্দ্র দখলের মধ্য দিয়ে ১৫ মার্চ দাগনভূঞা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হয়েছে। ভোট শুরুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই বিএনপি সমর্থিত এবং আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ বিভিন্ন পদের ১১ জন প্রার্থী ‘ভোট ডাকাতি ও প্রহসনের’ নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছেন। তাদের অভিযোগ, ৬২টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে কমপক্ষে ৫০টি ভোট কেন্দ্র আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর লোকজন দখল করে রেখেছিল। গোলযোগের কারণে তিনটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর সশস্ত্র কর্মীরা পুলিশের সহায়তায় রাজাপুর হাইস্কুল কেন্দ্র দখল করে। তারা অন্যসব প্রার্থীর এজেন্টদের বের করে দিয়ে কয়েকশ’ ব্যালট পেপারে সিল মেরে বাক্সে ফেলে। অন্য প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা জড়ো হয়ে কেন্দ্রে ঢুকতে চাইলে পুলিশ তাদের বাধা দেয় ও কাঁদানে গ্যাসের সাতটি শেল নিক্ষেপ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এদিকে ভোটের দিনের আগেই সশস্ত্র বহিরাগত ভাড়াটিয়ারা রাত ৪টার দিকে ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার সিন্দুরপুর ইউনিয়নের অলাতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ঢুকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে জোর করে ব্যালট পেপারে সিল মেরে বাক্স ভর্তি করে। খবর পেয়ে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীসহ অন্য প্রার্থীর কর্মীরা ভোর ৫টার দিকে কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে ব্যালট পেপারভর্তি তিনটি বাক্স জব্দ করে। সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণের জন্য কোনো ব্যালট পেপার না থাকায় প্রিসাইডিং কর্মকর্তা আবদুল কাইয়ুম ওই কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত ঘোষণা করেন। আরো একটি কেন্দ্রে একই রকম ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া সকালে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর কর্মীরা বহিরাগত সশস্ত্র পূর্ব চন্দ্রপুর ইউনিয়নের দরাবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে অন্য প্রার্থীর এজেন্ট এবং ভোটারদের বের করে দিয়ে ব্যালট পেপারে সিল মারে। দুপুরে বিএনপির কর্মীরা ওই কেন্দ্রে ঢুকে ব্যালটভর্তি বাক্স জব্দ করে। পরে ওই কেন্দ্রেরও ভোট স্থগিত করা হয়। সিন্দুরপুর ইউনিয়নের অদুদিয়া মাদরাসা কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সশস্ত্র বাহিনীর হাতে ব্যালট পেপার দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় আওয়ামী লীগের কর্মীরা প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে লাঞ্ছিত করে। এভাবে জোর করে ব্যালট পেপার কব্জা করে তারা সব ব্যালটে সিল মারে। প্রিসাইডিং কর্মকর্তার মুঠোফোন কেড়ে নেয়া হয়। ব্যালট পেপার বাক্সে ঢোকানো শেষ হলে তার মুঠোফোন ফেরত দেয়া হয়। সিন্দুরপুর ইউনিয়নের সুজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায় পুরো কেন্দ্র আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর দখলে। এক বৃদ্ধ ভোটার অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগের কর্মীরা তার হাত থেকে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের পক্ষে সিল মেরেছে। একই ধরনের অনিয়ম ও জবরদস্তির চিত্র দেখা যায় কৌশল্যা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, কোরবানপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, কোরেশ মুন্সি মাদরাসা কেন্দ্র, বাতশিরি হাইস্কুল কেন্দ্র, লতিফপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, ভবানীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ও সেকান্দরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে।

উত্তর সেকান্দরপুর বশিরিয়া মাদরাসা কেন্দ্রের পাশের বাসিন্দা একজন ভোটারের অভিযোগ, সকালে আওয়ামী লীগের কর্মীরা জোর করে সব ব্যালট পেপারে সিল মারে। সকাল সাড়ে ১০টায় দেখা যায়, একজন সহকারী প্রিসাইডিং ও একজন পোলিং কর্মকর্তা বাক্সভর্তি ব্যালট পাহারা দিচ্ছেন। আরেকজন পোলিং কর্মকর্তা দেয়ালে হেলান দিয়ে ঝিমুচ্ছেন। দুপুর ১২টায় দাগনভূঞা উপজেলা সদরে সংবাদ সম্মেলনে ভোট ডাকাতির শিকার প্রার্থীরা বলেন, আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী দিদারুল কবিরের পক্ষে ফেনী সদর, সোনাগাজী, মিরসরাই ও কোম্পানীগঞ্জ থেকে শত শত লোক আনা হয়। প্রতি কেন্দ্রে ২০০-২৫০ জন বহিরাগত জড়ো করে কমপক্ষে ৫০টি কেন্দ্র আগের রাতেই দখল করা হয়। সারা রাত বোমা ফাটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করা হয়। ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে বাধা দেয়া হয় এবং কেন্দ্র দখল করে অন্য প্রার্থীদের এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়। তারা ‘প্রহসনের’ নির্বাচন বাতিল করে আবারো নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার দাবি জানান। দাগনভূঞা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জানান, বিভিন্ন কেন্দ্রে গোলযোগ নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৯০টি বিভিন্ন অস্ত্রের গুলি ও সাতটি কাঁদানে গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করেছে।

পুলিশের অমনোযোগে বা যোগসাজশে ভয়ঙ্কর অপরাধ বেড়েই চলেছে। আর ভোটে জেতার গ্যারান্টি হিসেবে সশস্ত্র অপরাধীদের ব্যবহারের পলিসি নিয়েছেন সরকারদলীয় রাজনীতিবিদরা। সাধারণ মানুষ কোথায় যাবে? ১৯ দলীয় জোটনেত্রী খালেদা জিয়া বলছেন, ‘অবৈধ’ শাসকগোষ্ঠী প্রতিনিয়ত বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের বেছে বেছে গুম, খুন আর পাইকারি হারে গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে গোটা দেশকেই এক ‘ভয়ঙ্কর বন্দিশালায় পরিণত করেছে।’ পাঠক মন্তব্যে এসেছে, দেশ বন্দিশালার দশা থেকে আরো ভয়ঙ্কর দশায় প্রমোশন পেয়ে এখন সারিবন্দি মানুষ বলির হাঁড়িকাঠে পরিণত হয়েছে। দেশ এখন মৃত্যুপুরী। এমন মৃত্যুপুরীতে অসার গণতন্ত্রের মুখোশ ভেদ করে বিষে বিষক্ষয়ের জন্য উদভ্রান্ত তরুণ সমাজ যে সহিংসতাকেই একমাত্র পথ মনে করবে, সেটা আর এমন বিচিত্র কি?
লেখক: প্রবীণ সাংবাদিক ও কলামিস্ট
(মানব কণ্ঠ, ২৪/০৩/২০১৪)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ