• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৫৮ পূর্বাহ্ন |

সুইপারের হাতে মার খেল এএসআই

Policবদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের বদরগঞ্জে নেশাখোরদের ধরতে গিয়ে সাধারন মানুষকে পিটানোর ঘটনায় সুইপার ও জনতার হাতে মার খেলেন থানার উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আব্দুর রহিম। এসময় এএসআই আব্দুর রহিম জনতার ধাওয়া খেয়ে তার ব্যবহৃত মোটর সাইকেলটি ফেলে পালিয়ে গেলেও তার পরিবর্তে জনতার রোষানলে পড়েন এক ডিএসবি পুলিশ সদস্য। এ ঘটনার পর পরই স্থানীয় লোকজন অভিযুক্ত কর্মকর্তার শাস্তির দাবিতে থানা ঘেরাও করেন। রোববার রাত ৮টায় পৌর শহরের স্টেশন এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটেছে।
প্রত্যদর্শী সূত্রে জানা গেছে, রাত ৮টায় সাদা পোশাক পরিহিত বদরগঞ্জ থানার সহকারি উপ-পরিদশক (এএসআই) আব্দুর রহিম হাতে লাঠি নিয়ে স্টেশন এলাকায় নেশাখোরদের ধরতে  এসে সাধারণ মানুষের ওপর চড়াও হন। তাঁর সাথে ছিলেন (ডিএসবি) পুলিশের এক সদস্য। এসময় এএসআই আব্দুর রহিম স্কুল ছাত্র নুর হাসান (১৩), পথচারী সবুজ মিয়া (১৮) ও সুমন মিয়াসহ(৩০) অন্তত্য ৩০জনকে পিটিয়েছে। তার এহেন কর্মকান্ড দেখে সাধারন পথচারী ও সুইপাররা একেত্রিত হয়ে ওই এএসআইকে ধাওয়া করেন। এ সময় তিনি পালিয়ে গেলেও ুব্ধ পথচারী ও সুইপাররা তার সাথে থাকা ডিএসবি পুলিশ খালেককে মারপিট করেন। এরপর থানার পুলিশ খবর পেয়ে ডিএসবি পুলিশ খালেককে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যান।
স্টেশন এলাকার শফিকুল ইসলাম ও আব্দুস সালাম(৪০) বলেন, ওই পুলিশ কর্মকর্তা সাদা পোশাকে এসে লাঠি হাতে নিয়ে যাকে সামনে পেয়েছেন তাকেই মারছেন। গৃহবধূ অহেদা বেগম (৪৫) বলেন, ‘ওই পুলিশ চোর-নেশাখোরদের ধরতে আসেননি, আসছেন নিরিহ মানুষকে মারতে।’ পুলিশের লাঠির পিটুনীতে আহত স্কুল ছাত্র নুর হাসান বলে, ‘আমি বাসার সামনে দাড়িয়ে ছিলাম, একজন এসে কোন কথা না বলে আমাকে মারপিট করেন। পরে শুনি তিনি পুলিশ।’
জানা গেছে, ওই পুলিশ কর্মকর্তা বদরগঞ্জ থানায় যোগ দেওয়ার পর থেকে নেশাখোর ও জুয়াড়ুদের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলেন। তাদেরকে মোটর সাইকেলে তুলে এলাকায় চলাফেরা করেন। এছারাও তিনি জুয়াড়–, নেশাখোর ও অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগে অনেককে থানায় ধরে এসে অর্থের বিনিময়ে ছেড়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। আরো অভিযোগ উঠে ওই পুলিশ কর্মকর্তা এসব করেছেন থানার ওসি জাহিদুর রহমানের ছত্র ছায়ায়। এছাড়াও সম্প্রতি ওই এলাকায় রেলের জায়গায় আবুহোসেন নামে এক পান ব্যবসায়ীকে এএসআই আব্দুর রহিম প্রতিপক্ষের টাকা খেয়ে থানা হাজতের ভয় দেখিয়ে উচ্ছেদ করেন।
অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা আব্দুর রহিমের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তাঁর ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। বদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহিদুর রহমান চৌধুরী, এএসআই আব্দুর রহিম মাদক সেবন করলে তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ