• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৪৩ পূর্বাহ্ন |

শিশুখেকো নারায়ণগঞ্জ!

narayanganj-mapসিসি নিউজ: তথ্যটা শিউরে ওঠার মতো। শিশুটি গেছে স্কুলে, গেছে খেলতে বা বন্ধুদের সঙ্গে খানিকটা সময় কাটাতে। কিন্তু শিশুটি আর ফেরে না। এক দিন যায়, দুই দিন যায়, ঘরের মানুষরা কেবল কাঁদে। সাত-দিন, আট-দিন পর সে কান্না আরও বাড়ে। শিশুটিকে পাওয়া যায় শীতলক্ষ্যার খালে। হাত-পা বাঁধা, গলায়, বুকে বা সারা শরীরে জখম।
কারও আদরের সন্তান, প্রাণপ্রিয় ভাই বা ভাগ্নে-ভাস্তের এমন পরিণতির কথা ভাবাও মানুষের সাধ্যের বাইরে। অথচ রাজধানী লাগোয়া জনপদ নারায়ণগঞ্জে যেন নিয়মিত ঘটনায় পরিণত হয়েছে এভাবে শিশুহত্যা। একটি-দুটি নয়, ২১টি শিশুকে হত্যা করা হয়েছে সেখানে। তবে ২০১৩ সালের মার্চে কিশোর ত্বকী হত্যার ঘটনাটি যেভাবে আলোড়ন তুলেছে বাকি হত্যাগুলো আলোচনায় আসেনি তেমন। আর সব চেয়ে আলোচিত ত্বকি হত্যার যেখানে বিচার শুরু হয়নি, সেখানে বাকিগুলোর তদন্ত কোন পর্যায়ে আছে তা সহজেই অনুমেয়।
এভাবে একের পর এক শিশু হত্যা নিয়ে বন্দরনগরীতে ছড়াচ্ছে আতঙ্ক। এমনিতে জনপদটি সন্ত্রাসকবলিত হিসেবে চিহ্নিত। এ অবস্থায় গত এক বছরের এ পরিসংখ্যানটি নিঃসন্দেহে ভয় জাগানিয়া। জেলার অভিভাবকরা শিশুদেরকে এখন চোখের আড়াল করতে চান না। এতে শিশুদের স্বাভাবিক জীবন যাপন, যেমন খেলাধুলা আর বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটাতে দিতে চান না অভিভাবকরা। এতে শিশুদের স্বাভাবিক বিকাশও বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।
কথা হচ্ছে শিশুরা কেন আক্রমণের শিকার। অন্যদের মতো নারায়ণগঞ্জবাসীও বুঝতে পারছে না এ রকম নৃশংসতার কী মানে। তবে একাধিক ক্ষেত্রে দেখা গেছে, বড়দের ওপর প্রতিশোধ নিতেই খুন করা হয়েছে শিশুদেরকে। যদিও পুলিশ সব কটি হত্যা একসঙ্গে মেলাতে চায় না। তারা বলছে, প্রতিটি হত্যাই বিচ্ছিন্ন ঘটনা।
স্থানীয় সাংবাদিক শরিফ উদ্দিন সবুজ বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে শিশু হত্যার প্রবণতা কখনই ছিল না। মেধাবী ছাত্র ত্বকী হত্যার পর থেকেই শিশু হত্যার প্রবণতা বাড়ছে।’
হত্যার শিকার কিশোর ত্বকীর বাবা রফিউর রাব্বী বলেন, ‘খুনের পর পার পেয়ে যাবার সংস্কৃতিই খুনিদের উৎসাহিত করছে।’ সংস্কৃতিকর্মী আরিফ বুলবুল বলেন, যখন একজন আরেকজনকে চাপে ফেলতে চাচ্ছে, দেখে নিতে চাচ্ছে, এসব ক্ষেত্রে তারা প্রতিপক্ষের শিশুটিকে লক্ষ্যবস্তু করছে।
নারায়ণগঞ্জ তোলারাম কলেজের দর্শন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জীবন কৃষ্ণ মোদক বলেন, ‘শিশুদের নিরাপত্তায় রাষ্ট্র এবং সমাজকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে হবে।’
নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার নুরুল ইসলাম বলেন, ২০১২ সালের তুলনায় ২০১৩ সালে নারায়ণগঞ্জে হত্যার সংখ্যা এবং মামলার সংখ্যা কমলেও শিশু হত্যার সংখ্যা বেড়েছে। কী কারণে এমনটা হচ্ছে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন. ‘আসলে একেকটা ঘটনার গতি-প্রকৃতি আলাদা। সব ঘটনাকে এক সাথে মেলালে চলবে না। আমরা সব ঘটনার রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা চালাচ্ছি। আশা করছি দোষী ব্যক্তিরা শাস্তির আওতায় আসবে।’ উৎস: ঢাকাটাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ