• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৩৮ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত

HSTU PICTUREমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: সারা দেশের ন্যায় দিনাজপুরেও মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত হয়েছে। বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় জেলাবাসি স্মরন করেছে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের। ২৬ মার্চ ভোরে ৩১ বার তোপ ধ্বনির মাধ্যমে দিবসের কার্যক্রম শুরু হয়। এ উপলে সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচী গ্রহন করে। কর্মসুচীর মধ্যে ছিল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ, স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজ, আলোচনা সভা, রক্তদান কর্মসূচী, মসজিদে মসজিদে বিশেষ মুনাজাত ও অন্যান্য উপসনালয়ে প্রার্থনা, হাসপাতাল-কারাগার, ভবঘরে কেন্দ্রসমূহে ও শিশু সদনে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন ইত্যাদি। এদিকে লাখো কন্ঠে জাতীয় সংগীতে অংশ নিয়েছে দিনাজপুরের কয়েক হাজার জনতা।
২৬ মার্চ মঙ্গলবার দিবসের প্রথম প্রহরে রাত ১২.০১ মিনিটে দিনাজপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে অবস্থিত শহীদ স্মতিস্তম্ভে পুস্পাঞ্জলি অর্পণের মাধ্যমে শহীদদের প্রতি প্রথমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি। এর পর জেলা প্রশাসক আহমেদ শামিম আল রাজী ও পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন। এর পর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন জেলা পরিষদের প্রশাসক মোঃ আজিজুল ইমাম চৌধুরী, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার সৈয়দ মোকাদ্দেস হোসেন বাবলুর নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধা নেতৃবৃন্দ, এর পর শদ্ধা নিবেদন করেন দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম ও পৌরসভা কাউন্সিলরবৃন্দ, জেলা আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ, জেলা বিএনপি’র সভাপতি আলহাজ্ব লুৎফর রহমান’র নেতৃত্বে বিএনপি এবং অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, দিনাজপুর প্রেসকাবের সভাপতি মতিউর রহমান’র নেতৃত্বে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক ইউনিয়ন (একাংশের) সভাপতি ওয়াহেদুল আলম আর্টিষ্ট এর নেতৃত্বে ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ, অপর প্রেসকাবের সভাপতি চিত্ত ঘোষের নেতৃত্বে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ, পৌর বিএনপি’র সভাপতি সোলায়মান মোল্লা ও সহ-সভাপতি মোঃ সিরাজ আলীর নেতৃত্বে¡ পৌর বিএনপি নেতৃবৃন্দ, কোতয়ালী বিএনপি, তাঁতীদল, জিয়া পরিষদ, শ্রমিকদল, মহিলাদল, শহর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতৃবৃন্দ, ছাত্রলীগ, মহিলালীগ, জেলা ছাত্রদল, যুবদল।
এ ছাড়া শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন জেলা আইনজীবী সমিতি, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম, দিনাজপুর সিভিল সার্জন, দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালকের নেতৃত্বে কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ, দিনাজপুর শিাবোর্ডের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ, জেলা জাতীয় পার্টি, জেলা ওয়ার্কার্স পার্টি, জেলা জাসদ, কমিউনিষ্ট পার্টি, জেলা জাগপা, যুব জাগপা, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি ন্যাপ, উদীচি, নবরুপী, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, দিগন্ত শিল্পীগোষ্ঠি, নাগরিক ফোরাম, জেলা ক্রীড়া সংস্থা, ইকবাল স্কুল, দিনাজপুর মিউনিসিপ্যাল হাই স্কুল (বাংলা স্কুল), জাতীয় মহিলা সংস্থা, পল্লী শ্রী বালুবাড়ী, নির্মাণ মিস্ত্রি শ্রমিক ইউনিয়ন, বেকারী মালিক সমিতিসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন। চেহেলগাজী মাজারে বিভিন্ন সংগঠন পুস্পাঞ্জলি অর্পনের মাধ্যমে শহীদদের প্রতি শদ্ধা নিবেদন করেন। এদিকে জেলা সদরসহ ১৩ উপজেলায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করা হয়েছে।
এদিকে বেলা ১১টায় দিনাজপুর বড় ময়দান হতে লাখো কন্ঠে জাতীয় সংগীত গাওয়া কর্মসূচীতে অংশগ্রহন করে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীসহ দিনাজপুরের কয়েক হাজার মানুষ।
দিনাজপুর জেলা প্রশাসন: মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলে ২৬ মার্চ গোর-এ-শহীদ বড়মাঠে জেলা প্র্রশাসনের আয়োজনে বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়। কুচকাওয়াজে অংশগ্রহন করে দিনাজপুর জিলা স্কুল, সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পুলিশ লাইন উচ্চ বিদ্যালয়, দিনাজপুর মিউনিসিপ্যাল হাই স্কুল (বাংলা স্কুল), জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়, ইকবাল উচ্চ বিদ্যালয়, দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়, সারদেস্বরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, তফি উদ্দীন মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়, কলেজিয়েট স্কুল এন্ড কলেজ, সেন্ট ফিলিপস্ উচ্চ বিদ্যালয়, মহারাজা উচ্চ বিদ্যালয়সহ শহরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী ও শিশু-কিশোর সংগঠনের সদস্যরা। কুচকাওয়াজে সালাম গ্রহন করেন জেলা প্রশাসক আহমেদ শামিম আল রাজী ও পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন। কুচকাওয়াজে ছাত্র-ছাত্রীরা বিভিন্ন শারিরীক কসরত প্রদর্শন করে। জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিকিক্ষাসহ অন্যান্য সধীবৃন্দ কুচকাওয়াজ উপভোগ করেন।
এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ইউনিট কমান্ড, জেলা বিএনপি, জেলা আওয়ামীলীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন পৃথক পৃথকভাবে আলোচনা সভা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিরের মাধ্যমে মহান স্বাধীনতা দিবস পালন করেছে।
হাবিপ্রবি: যথাযোগ্য মর্যাদা ও দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের মধ্যদিয়ে বুধবার হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস-২০১৪ পালিত হয়েছে। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে একাডেমিক ভবনের সামনে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্যদিয়ে দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। সকাল ৯টায় হাবিপ্রবি’র ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর মো. রুহুল আমিন-এর নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক, কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং ছাত্র-ছাত্রীেেদর নিয়ে স্বাধীনতা র‌্যালীর আয়োজন করা হয়। র‌্যালীটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস প্রদণি করে। সকাল সাড়ে– ৯টায় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর মো. রুহুল আমিন শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে হাবিপ্রবি’র কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। ক্রমান্বয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন শিক সমিতি, প্রগতিশীল শিক ফোরাম, সাদা দল, ডরমিটরি-১,২,৩,৪, কর্মকর্তা সমিতি (হাবিপ্রবি), প্রগতিশীল কর্মকর্তা পরিষদ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ (হাবিপ্রবি শাখা), হাবিপ্রবি ডরমিটরি-১,২,৩,৪-এর ছাত্রলীগ শাখা, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট (হাবিপ্রবি শাখা), সিএসই এসোসিয়েশন (হাবিপ্রবি), ফুড এন্ড প্রসেস ইঞ্জিনিয়ারিং স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন, মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদ, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ, হাবিপ্রবি স্কুলসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ও সামাজিক সংগঠন। এরপর ভিসির ২৬ মার্চের বাণী পাঠ ও বিতরণ করা হয়। বেলা ১১ টায় ভাইস-চ্যান্সেলরের নেতৃত্বে একসঙ্গে লাখো কন্ঠে সোনার বাংলা (জাতীয় সঙ্গীত) গাওয়া হয়।
এর আগে দিবসের তাৎপর্যের উপর ভিত্তি করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. শাহাদৎ হোসেন খান এর সভাপতিত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর মো. রুহুল আমিন প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, ২৫ মার্চ কালরাত্রিতে হানাদার বাহিনী ইতিহাসের বর্বরতম গণহত্যা শুরু করলে বঙ্গবন্ধু ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে প্রিয় বাংলাদেশকে স্বাধীন ঘোষণা করেন এবং দেশকে পাকিস্তানী হানাদার ও দখলদার বাহিনীর হাত থেকে মুক্ত করতে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের আহ্বান জানান। ৩০ ল শহীদের রক্ত, ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রম আর অগণিত মানুষের সীমাহীন দুঃখ কষ্টের বিনিময়ে আমরা পাই স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত আলোকিত বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে জাতি আজ একতাবদ্ধ। অনুষ্ঠানে মূখ্য আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন যশোর সরকারি মহিলা কলেজের বাংলা বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. রুহুল আমিন প্রামানিক। আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. বলরাম রায়, পোস্ট গ্র্যাজুয়েট স্টাডিজ অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মো. আনিস খান, প্রক্টর প্রফেসর ড. এ টি এম শফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ হাবিপ্রবি শাখার সাধারণ সম্পাদক অরুণ কান্তি রায় প্রমূখ।
কর্মসূচির অংশ হিসেবে হাবিপ্রবি’র ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর মো. রুহুল আমিন বৃক্ষরোপণ করেন। পরে শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এরপরই শিক্ষক বনাম শিক্ষক, ছাত্র বনাম ছাত্র, কর্মকর্তা বনাম কর্মকর্তা, কর্মচারী বনাম কর্মচারীদের মধ্যে প্রীতি ভলিবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। ছাত্রী বনাম ছাত্রীদের মধ্যে অনুষ্ঠিত হয় মিউজিক্যাল চেয়ার। খেলাধুলা শেষে ভিসি মহোদয় প্রফেসর মো. রুহুল আমিন বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন। বাদ যোহর শহীদদের রুহের মাগফেরাত কমনা করে কেন্দ্রীয় মসজিদে মিলাদ মাহফিল ও বিশেষ মোনাজাতের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ