• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:১৮ অপরাহ্ন |

নিখোঁজ বিমানের অনুসন্ধান নতুন ১২২ বস্তুর সন্ধান

Bimanআন্তর্জাতিক ডেস্ক: নিখোঁজ মালয়েশিয়ান বিমানের সম্ভাব্য আরো ১২২টি বস্তুর সন্ধান মিলেছে বলে জানিয়েছেন মালয়েশিয়ার ভারপ্রাপ্ত পরিবহনমন্ত্রী হিশামুদ্দিন হোসাইন। তবে এখনো কোনো বস্তু সংগ্রহ করা সম্ভব হয়নি। ফলে জানা যাচ্ছে না, এসব বস্তু আসলেই নিখোঁজ বিমানের কি না। তা ছাড়া বিমানটি কিভাবে সেখানে গেল সে প্রশ্নেরও কোনো জবাব মেলেনি। তবে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। খবর সিএনএন, বিবিসি, এএফপি ও অন্যান্য মাধ্যমের।
গতকাল সংবাদ সম্মেলনে মালয়েশিয়ান মন্ত্রী বলেন, নতুন সন্ধান পাওয়া ১২২টি বস্তুর ছবি নেয়া হয়েছিল ২৩ মার্চ। এসব ছবির অনেকগুলো নিয়েছে ফ্রেঞ্চ এয়ারবাস স্যাটেলাইট।
গত ৮ মার্চ ২৩৯ আরোহী নিয়ে কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিং যাওয়ার পথে বিমানটি নিখোঁজ হয়।
গত সোমবার মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক বিমানটি দক্ষিণ  ভারত মহাসাগরে বিধ্বস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছিলেন। ওই এলাকায় এখন ব্যাপক অনুসন্ধান তৎপরতা চলছে। অস্ট্রেলিয়া ও চীনও ওই এলাকায় উপগ্রহের সাহায্যে বেশ কিছু বস্তু পাওয়ার দাবি করেছে। কিন্তু এখনো একটি বস্তুও সংগ্রহ করা সম্ভব হয়নি।
হিশামুদ্দিন হোসাইন বলেন, নতুন সন্ধান পাওয়া বস্তুগুলোর মধ্যে কয়েকটি এক মিটার লম্বা, অনেকগুলো ২৩ মিটার পর্যন্ত লম্বা। কোনো কোনোটি ধাতব বস্তু বলেও মনে করা হচ্ছে।
তিনি বলেন, অস্ট্রেলিয়ার পার্থ থেকে ২,৫৫৭ কিলোমিটার দূরে মহাসাগরে প্রায় ৪০০ বর্গ কিলোমিটারজুড়ে বস্তুগুলো ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে।
তিনি বলেন, এগুলো যে ওই বিমানেরই তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।
সাগরের যে স্থানে এগুলোর সন্ধান মিলেছে, তা অত্যন্ত দুর্গম এলাকা। সাগর উত্তাল থাকায় অনেক সময়ই অভিযান বন্ধ রাখতে হচ্ছে।
অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবোট বুধবার তার দেশের পার্লামেন্টে বলেছেন, রাডার তথ্য বিশ্লেষণ করে বিমানটি যে এলাকায় বিধ্বস্ত হয়েছিল বলে মনে হয়েছে, সেখানে অনেক ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গেছে। তিনি বলেন, খারাপ আবহাওয়া এবং সেখানে যাওয়া অত্যন্ত কঠিন হওয়ায় কোনো কিছু উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। তবে কিছু পাবো বলে আমরা আত্মবিশ্বাসী।
ব্ল্যাক বক্স উদ্ধার হবে অনেক কঠিন
পৃথিবীর অন্যতম দুর্গম ও প্রত্যন্ত অঞ্চলে মালয়েশিয়ার বিধ্বস্ত ফাইট এমএইচ-৩৭০’র ‘ব্ল্যাক বক্স’ অনুসন্ধান করতে গিয়ে অনুসন্ধানকারীদের সাগরে আগ্নেয়গিরি থেকে শুরু করে পর্বতময় সাগর তলদেশ পর্যন্ত কঠিন সব বাধা-বিপত্তির সম্মুখীন হতে হচ্ছে।
কিন্তু তার পরও অনুসন্ধানকারীরা গত ৮ মার্চ ২৩৯ জন আরোহী নিয়ে নিখোঁজ হয়ে যাওয়া মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের এমএইচ৩৭০ ফাইটটির কোনো ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পাবেন এমন কোনো নিশ্চয়তা দিতে পারছেন না।
অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবট বুধবার বলেছেন, দক্ষিণ ভারত মহাসাগরে আড়াই হাজার বর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে অনুসন্ধান জোনে পরিচালিত তৎপরতায় এখনো কোনো ফলোদয় হয়নি।
ইউনিভার্সিটি অব নিউ সাউথ ওয়েলসের সাগর তত্ত্ববিদ এরিক ভ্যান সেবিলে বলেন, বিধ্বস্ত হওয়ার স্থানটি ‘ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ সমুদ্রাঞ্চল’ নামক বিপজ্জনক এলাকায় অবস্থিত।
তিনি বলেন, সাধারণভাবে এটি মহাসাগরের সবচেয়ে উঁচু-নিচু তলদেশসম্পন্ন ও তরঙ্গসঙ্কুল মহাসাগর। শীতকালে এ অঞ্চল দিয়ে কোনো ঝড় বয়ে গেলে ১০ থেকে ১৫ মিটার উঁচু ঢেউ সৃষ্টি হয়।
যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক কৌশলগত নিরাপত্তা গোয়েন্দা পরামর্শক প্রতিষ্ঠান সুকান গ্র“প এই অবস্থায় বিধ্বস্ত বিমানটির ধ্বংসাবশেষ খোঁজাকে বিশৃঙ্খল, রঙ বদলানো, ধরন পরিবর্তনশীল গতি-অসুস্থতা জাগানিয়া খড়ের গাদায় সুচ খোঁজার সাথে তুলনা করেছেন।
সংস্থাটি জানায়, এমন পরিস্থিতিতে একেবারে হাতের কাছে পেয়েও কাক্সিত ধ্বংসাবশেষ চিহ্নিত করার সুযোগ হাতছাড়া হয়ে পড়তে পারে।
ভূতত্ত্ববিদ রবিন বিম্যান বলেন, শনাক্ত করা যায় এমন ভগ্নাংশ পাওয়া গেলেও সাগরের গভীর থেকে ফাইটের ব্ল্যাক বক্স উদ্ধার জলমগ্ন আগ্নেয়গিরির কারণে বিঘিœত হতে পারে।
বিম্যান বলেন, অনুসন্ধান এলাকার সাগরের তলদেশ খুবই এবড়ো-থেবড়ো এবং ম্যাগমা প্রবাহের কারণে এর আকার আকৃতি সব সময় বদলে যেতে থাকে।
তিনি বলেন, এলাকাটির গড় গভীরতা তিন হাজার মিটার এবং এটি একটি এন্টার্কটিকা ও অস্ট্রেলিয়ান প্লেটের সংযোগস্থলে অবস্থিত। এ অঞ্চলে বেশ কিছু চরম সক্রিয় আগ্নেয়গিরি রয়েছে।
ফলে বিমানটি কী কারণে তার মূল গতিপথ থেকে বিচ্যুত হয়ে ভুল পথে কয়েক হাজার মাইল সরে গিয়েছিল তা জানতে বিমানটির ককপিটের ভয়েস ডাটা উদ্ধার করা প্রয়োজন। কিন্তু সে কাজ অনেকটা অসম্ভব বলেই মনে হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ