• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১৩ অপরাহ্ন |

মাশরুম চাষে স্বাবলম্বী মতিলাল

Masrumহাসানুজ্জামান সিদ্দিকী হাসান, জলঢাকা (নীলফামারী): দিন যায় কথা থাকে, কিন্তু জীবন চলার পথ মানুষের থেমে থাকে না। ঠিক এমনি একটি ঘটনার জন্ম হয় দিন মজুর পরিবারে। পরিবারের দারিদ্রতার কারনে ও প্রাইমারী স্কুল থেকে ঝরে পড়া মতিলাল দারিদ্রতাকে হার মানিয়ে মাশরুম চাষে এখন স্বাবলম্বী। তবু তার প্রয়োজন একটি এসি ল্যাবের। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার প্রত্তন্ত্য অঞ্চল কৈমারী ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী গ্রাম মেলাবর কুটি পাড়ার দরিদ্র দিন মজুর পরেশ চন্দ্র ও সুমিলা রানীর পুত্র মতিলাল (১৬)। পরিবারের দারিদ্রতার কারনে প্রায় ৭ বছর পুর্বে স্থানীয় প্রাইমারী স্কুলের ৪র্থ শ্রেনী থেকে ঝরে পড়লে গত ২০১০ সালে ছাত্র জরিপের মাধ্যমে কৈমারীর রথবাজারে অবস্থিত সি এমই এস এর (এটি এগ্রো) এনামুল হক মতিলালের সাথে দেখা হলে তার সম্পর্কে সবকিছু জেনে ও খবর নিয়ে তাকে ওয়াই  সিতে মাশরুম ট্রেডে ভর্তি করান। সেখানে ৬মাসের প্রশিন নিয়ে ২০১২ সালের এপ্রিলে সে ছাত্র থাকা অবস্থায় তার নিজ বাড়িতে মাশরুম চাষ ও ল্যাব স্থাপন করে শুরু করে চ্যালেজিং ব্যবসা মাশরুম চাষ। স্বাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে মতিলাল প্রথমে মাত্র ১শতটি মাশরুম স্পন প্যাকেট ও ৫হাজার টাকার পুজি দিয়ে নিজ বাড়ীতে সিএমইএস রথবাজার শাখার সব ধরণের সাহায্য সহযোগিতার মাধ্যমে শুরু করে মাশরুম ব্যবসা। বর্তমানে তার এ ব্যবসায় পুজি দাড়িয়েছে প্রায় ৩ ল টাকা। বর্তমানে মাসে গড় প্রতি ১শ থেকে দেড়শ কেজি তাজা মাশরুম প্রায় ৩ হাজার ৫শ স্পন প্যাকেটের মাধ্যমে উৎপাদন করছে। এ উৎপাদিত মাশরুম ৯শ টাকা কেজি দামে বিক্রি করে মাসে ৯ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা আয় করে পরিবারের দারিদ্রতা কিছুটা দূর করেছে। বর্তমানে তার উৎপাদিত মাশরুম দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সরবরাহ করছে। যা কখনও কল্পনা করেননি দরিদ্র পরিবারের মতিলাল। সে জানায়, আমার এই নতুন (মাশরুম) চাষ ও ব্যবসা দেখে সবাই অবাক হলেও পরে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন পরিবারের সদস্য ও এলাকাবাসী। আমার পরিবারকে স্বাবলম্বী করার জন্য সার্বণিক তদারকি ও সাহায্য সহযোগিতা এবং পরামর্শ প্রদান অব্যাহত রেখেছেন সিএমইএস জলঢাকা ইউনিটের অর্গানাইজার মো. আবেদ আলী ও কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ। সে আরও বলেন, বর্তমানে চাহিদা অনুযায়ী আরও বেশি মাশরুম চাষ উৎপাদন করার জন্য প্রয়োজন এসি ল্যাব। যা অর্থ অভাবে করা যাচ্ছে না। তাই এই এসিল্যাব হলেই আমার স্বপ্ন পূরণ হবে এবং অনেক গরীব বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ