• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন |

ঘর গোছানোর সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি

BNP Flagসিসি ডেস্ক: চলতি মাসে উপজেলা নির্বাচন শেষে আগামী এপ্রিল মাসজুড়েই দল গোছাবে বিএনপি। বিশেষ করে ঢাকা মহানগর বিএনপি, ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, কৃষক দলসহ মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি পুনর্গঠন ছাড়াও দলের কাউন্সিল করার নীতিগত সিদ্ধান্ত রয়েছে। এরই মধ্যে জেলা ও থানা পর্যায়ে অসমাপ্ত কমিটিগুলোও পূর্ণাঙ্গ করা হবে। এরপর মে মাস থেকে ধাপে ধাপে নতুন করে সরকারবিরোধী আন্দোলনের যাত্রা শুরু করবে বিএনপি। এ বছরের শেষ দিকে সরকারকে বড় ধরনের ধাক্কা দিতে চায় দলটি। সেই প্রস্তুতি নিয়েই দল গোছানোর পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে। অবশ্য এপ্রিলে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বেশকয়েকটি জেলা সফর করবেন। এ ছাড়া বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধি, নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে অনাস্থা- এতে আন্দোলনের অংশ হিসেবে এপ্রিলে দু-একদিন হরতালসহ প্রতিবাদ-সমাবেশ কর্মসূচি থাকতে পারে। দলীয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সম্প্রতি একাধিক অনুষ্ঠানে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, উপজেলা নির্বাচনের পর দল গুছিয়ে সরকারবিরোধী আন্দোলনে যাবে তার দল। সর্বশেষ দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকেও এপ্রিলে দল গোছানো বিশেষ করে ঢাকা মহানগর কমিটি পুনর্গঠনসহ বেগম জিয়ার জেলা সফর নিয়ে আলোচনা হয়। জানা গেছে, অঙ্গ-সংগঠনের কমিটি বিশেষ করে ছাত্রদল ও যুবদলের কমিটি করার ক্ষেত্রে বেগম জিয়া দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পরামর্শ নেবেন। এ প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, সরকারবিরোধী আন্দোলনের অংশ হিসেবেই আমরা উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। মাঠপর্যায়ের নেতা-কর্মীদের সুসংগঠিত করাই ছিল আমাদের লক্ষ্য। উপজেলা নির্বাচন শেষে আমরা দল গুছিয়ে সরকারবিরোধী আন্দোলনে যাব। মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিগুলো পুনর্গঠন করা হবে। চলতি মাসেই মহানগর বিএনপির কমিটি দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত ছিল বিএনপির। তবে কমিটি দেওয়ার আগ মুহূর্তে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাসসহ বেশ কয়েকজন নেতা গ্রেফতার হন। তাই মহানগর কমিটি দেওয়া থেকে বিরত রয়েছেন বেগম জিয়া। তবে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব আশা করছে, চলতি মাসেই মির্জা ফখরুল মুক্তি পাবেন। ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বেরোলেই দল গোছানোর কাজ শুরু হবে। বিশেষ করে ঢাকা মহানগর কমিটি দেওয়া হবে বলে জানা গেছে। সূত্র জানায়, ঢাকা মহানগর কমিটি নিয়ে বেশ নাটকীয়তা সৃষ্টি হয়েছে বিএনপিতে। প্রথম দিকে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আ স ম হান্নান শাহের নেতৃত্বে মহানগরের কমিটি হওয়ার আলোচনায় থাকলেও এখন আবার আহ্বায়কের তালিকায় সাদেক হোসেন খোকার নাম শোনা যাচ্ছে। মহানগরের সদস্য সচিব হিসেবে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল সভাপতি হাবিব-উন নবী খান সোহেলের নাম আলোচনায় রয়েছে। বর্তমান সদস্য সচিব আবদুস সালামকে কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক করার চিন্তাভাবনা চলছে। এপ্রিলের শুরুর দিকেই মহানগর কমিটি ঘোষণা করা হবে বলে জানা গেছে। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান মনে করেন, ঢাকা মহানগর বিএনপিকে অগোছালো রেখে ভবিষ্যতে চূড়ান্ত আন্দোলন করা যাবে না। তাই শীঘ্রই মহানগর কমিটি দিতে প্রক্রিয়াও অনেকদূর এগিয়েছিল। এর মধ্যে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবসহ মহানগরের প্রভাবশালী নেতা মির্জা আব্বাস গ্রেফতার হন। আশা করছি, তারা শীঘ্রই মুক্তি পাবেন। এরই মধ্যে বিএনপিসহ অঙ্গ-সংগঠনগুলোও পুনর্গঠন করা হবে। এর পরই চূড়ান্ত আন্দোলনে যাবে বিএনপি। এদিকে ছাত্রদল সূত্রে জানা গেছে, সংগঠনটির নতুন কমিটি গঠন করতে বেগম জিয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপি সমর্থিত শিক্ষকদের একটি অংশ এবং গুলশান কার্যালয়ের কিছু নেতাকে দায়িত্ব দিয়েছেন। ইতোমধ্যে তারা কাজও শুরু করেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কমিটি ও হল কমিটি দেওয়ার জন্য বায়োডাটাও সংগ্রহের কাজ চলছে। সদ্য উচ্চতর ডিগ্রি শেষ করেছেন কিংবা শেষ করে ভিন্ন কোর্সে ভর্তি হয়েছেন এমন নেতাদের দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কমিটি করার চিন্তাভাবনা চলছে। এ ছাড়া নিয়মিত ছাত্রদের দিয়ে হল কমিটি করার কথাও আলোচনা চলছে। তবে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি ৩০ থেকে ৩৬ বছরের মধ্যে রাখার কথা ভাবছেন বিএনপির নীতিনির্ধারকরা। সেক্ষেত্রেও অন্তত সিনিয়র প্রায় ৬০ থেকে ৭০ জন ছাত্রনেতা কমিটি থেকে সরে যেতে পারেন। তাদের যুবদলসহ বিএনপির অন্য অঙ্গ-সংগঠনগুলোতে নেওয়ার চিন্তাভাবনা রয়েছে।

উৎসঃ   বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ