• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪৪ পূর্বাহ্ন |

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগে দ্বন্দ্ব-বিবাদ বাড়ছে

Awamili Flagসিসি নিউজ: আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগরীর থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন সম্মেলন এবং কমিটি গঠন নিয়ে দ্বন্দ্ব-ফ্যাসাদ বেড়েই চলেছে। দীর্ঘ বিরতির পর তৃণমূলের এসব সম্মেলন শুরু হলেও কোথাও কমিটি ঘোষণা করা হচ্ছে না। সংশ্লিষ্ট এলাকার এমপিসহ থানা ও ওয়ার্ড নেতাদের চাপ মোকাবেলায় কমিটিগুলো গঠনের বেলায় সময়ক্ষেপণের নীতি নিয়েছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত নগর নেতারা। পাশাপাশি দলীয় অন্তর্দ্বন্দ্ব-কোন্দল আরও প্রকাশ্য হয়ে পড়াসহ সংঘাত-সহিংসতা সৃষ্টির আশঙ্কায় এখনই কমিটি ঘোষণার ঝুঁকিও নিতে চাইছেন না তারা। কমিটি গঠন নিয়ে এমন দীর্ঘসূত্রতায় মহানগরীর তৃণমূল নেতাদের মধ্যে অসন্তোষও ছড়িয়ে পড়ছে।অবশ্য সব সম্মেলন শেষ হওয়ার পরই একযোগে বিভিন্ন থানা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটি ঘোষণা করা হবে বলেও দাবি করেছেন নগর নেতারা। তাদের দাবি, এখন সম্মেলনগুলো শেষ করারপ্রক্রিয়ায় রয়েছেন তারা। এ প্রক্রিয়া শেষ হলেই সংশ্লিষ্ট এলাকার দলীয় এমপি, থানা ও ওয়ার্ড নেতাদের মতামতের ভিত্তিতেই সব কমিটি চূড়ান্ত করা হবে। এরপর দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদন নিয়ে দ্রুততম সময়ের মধ্যেই সব কমিটিই ঘোষণা করা হবে।তৃণমূল সম্মেলন ও কমিটি গঠন নিয়ে দ্বন্দ্ব-বিবাদ বাড়ছে
২০১২ সালের ২৭ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠানের পরই নগরীর ৪৯টি থানা, ১০৩টি ওয়ার্ড ও ১৭টি ইউনিয়ন সম্মেলন শুরুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। তবে দশম জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজনৈতিক অস্থিরতা ও নানা কারণে দফায় দফায় উদ্যোগ নিয়েও এসব সম্মেলন শুরুই করা যায়নি। এ অবস্থায় গত বছরের সেপ্টেম্বরে নগরীর ৪টি থানা ও ১২টি ওয়ার্ডের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। আর গত ফেব্রুয়ারি থেকে একযোগে শুরু হয় বাকি সম্মেলনগুলো। এখন পর্যন্ত ৪২টি থানা, ৮০টির মতো ওয়ার্ড ও ১০/১২টির মতো ইউনিয়ন সম্মেলন শেষ হয়েছে। বাকি রয়েছে ডেমরা, যাত্রাবাড়ী, শ্যামপুর, কদমতলী, বংশাল, কোতোয়ালি ও রামপুরা থানা এবং এসব থানার অন্তর্গত ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন সম্মেলন।
তৃণমূলের অধিকাংশ সম্মেলন শেষ হলেও গত বছর অনুষ্ঠিত ধানমণ্ডি, কলাবাগান, নিউমার্কেট ও হাজারীবাগ থানা এবং এ বছর অনুষ্ঠিত কামরাঙ্গীরচর থানা ও এসব থানার ওয়ার্ডগুলো ছাড়া অন্য কোনো ইউনিটের কমিটিই গঠন কিংবা ঘোষণা করা হয়নি। আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে বাকি ৭টি থানাসহ ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন সম্মেলনগুলো শেষ হওয়ার পরই কমিটি গঠন ও ঘোষণার প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে নগর নেতাদের দাবি।
সূত্রমতে, অতীত অভিজ্ঞতার আলোকেই নগর নেতারা এবার সম্মেলন শেষ হওয়ার পরই কিংবা সম্মেলনস্থলে কমিটি ঘোষণার ঝুঁকি নিতে চাইছেন না। এর বদলে কমিটি ঘোষণার দায়িত্ব নগরের ওপর অর্পণ সংক্রান্ত সংশ্লিষ্টদের অঙ্গীকার নিয়ে নিচ্ছেন তারা। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট এলাকার এমপিদের পরামর্শ নিয়ে নগরের কাছে প্রস্তাবিত কমিটি জমাও দিতে থানা নেতাদের বলা হচ্ছে।
এদিকে সম্মেলন শেষ হওয়া থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিয়নগুলোর পক্ষ থেকে নগর আওয়ামী লীগের কাছে প্রস্তাবিত কমিটি জমা দেওয়া শুরু হলেও এ নিয়ে দ্বন্দ্ব-ফ্যাসাদ দেখা দিয়েছে। তৃণমূলের এসব ইউনিটের অধিকাংশের পক্ষেই পাল্টাপাল্টি ও একাধিক কমিটি জমা দেওয়া হয়েছে। দেখা গেছে, এমপির পক্ষে একটি কমিটি দেওয়া হয়েছে তো থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন নেতারা দিয়েছেন আরেকটি কমিটি। মহানগরীর মিরপুর, বাড্ডা, উত্তরা পূর্ব, উত্তরা পশ্চিম, তুরাগ, উত্তরখান, দক্ষিণখান, বিমানবন্দর ও খিলক্ষেতসহ অনেক থানায়ই এমন একাধিক কমিটি জমা দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। দ্বন্দ্বের জের ধরে এমনকি কোথাও কোথাও তিন-চারটি কমিটিও জমা পড়েছে। আর অসংখ্য প্রস্তাবিত কমিটি জমা পড়ায় নগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এখন ‘কমিটির স্তূপ’ দেখা দিয়েছে বলেও মন্তব্য করেছেন নগর আওয়ামী লীগের একজন নেতা।
এর আগে বিএনপি নেতৃত্বাধীন বিরোধী জোটের সম্ভাব্য সরকারবিরোধী আন্দোলন-সংগ্রাম মোকাবেলায় প্রস্তুতির লক্ষ্যে মহানগরীতে দল গোছানোসহ সব থানা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটি ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়। গত জানুয়ারিতে দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনাও ঢাকা মহানগরে দলীয় রাজনীতিকে সচল করতে সব পর্যায়ের সম্মেলন শেষ করার নির্দেশ দেন। ফেব্রুয়ারির মধ্যে নগরীর থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিয়নের সম্মেলন শেষ করে নতুন নেতৃত্বের হাতে দায়িত্ব তুলে দেওয়ার নির্দেশও দেন তিনি। তবে দ্বন্দ্ব-কোন্দলের কারণেই দলীয় সভাপতির বেঁধে দেওয়া সেই সময়সীমার মধ্যে সম্মেলন শেষ করতে পারেনি নগর আওয়ামী লীগ। অবশ্য এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে যেসব থানা, ওয়ার্ড কিংবা ইউনিয়ন সম্মেলন অনুষ্ঠানে ব্যর্থ হবে_ সেসব কমিটি ভেঙে দিয়ে নগর থেকেই সম্মেলন ও কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারিও দিয়ে রেখেছেন নগর নেতারা।
এদিকে সম্মেলন হলেও কমিটি না হওয়ায় নগরীর তৃণমূল নেতাদের মধ্যেও কিছুটা অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। তৃণমূল নেতাদের অভিযোগ, কেন্দ্রীয় ও নগর নেতারা নিজ নিজ থানা ও ওয়ার্ডে সম্মেলনের নামে কেবল সমাবেশ করেই ফিরে আসছেন। তারা কমিটি গঠন বিষয়ে নানা অজুহাত দাঁড় করিয়ে তৃণমূল নেতাদের বুঝ দেওয়ার চেষ্টা করছেন এবং এ দায়িত্ব নিজেদের ওপর নিয়ে নিচ্ছেন। এতে কমিটি গঠন ও ঘোষণার বেলায় তৃণমূলের মতামত প্রতিফলিত না হওয়ার আশঙ্কাই রয়েছে। আর দলীয় রাজনীতিতে অবদান রাখা নেতারা বাদ পড়ে যাওয়ার আশঙ্কায় অনেকটা হতাশও হয়ে পড়ছেন।
জানতে চাইলে নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজ মহানগরীর তৃণমূল সম্মেলন ও কমিটি গঠন ঘিরে কোনো রকম দ্বন্দ্ব-ফ্যাসাদ কিংবা চাপ নেই বলে দাবি করেছেন। সমকালকে তিনি বলেন, সব সম্মেলন শেষ করেই সংশ্লিষ্ট এমপি ও নেতাদের সঙ্গে পরামর্শ করেই থানা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটিগুলো ঘোষণা করবেন তারা। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট নেতাদের যোগ্যতা, দক্ষতা, সততা, দলীয় রাজনীতিতে অবদান এবং আন্দোলন-সংগ্রাম ও সভা-সমাবেশে জনসমাগম সৃষ্টির সক্ষমতাকে প্রাধান্য দেওয়া হবে। আর সবকিছুর ওপরে দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার নির্দেশ ও অনুমোদন নিয়েই কমিটিগুলো গঠন করা হবে। উৎসঃ   সমকাল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ