• বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৫০ অপরাহ্ন |

তারেকসহ পলাতকদের ফেরাতে টাস্কফোর্স গঠন

71722_1সিসি নিউজ: বিদেশে অবস্থানরত আসামিদেরকে দেশে ফেরানোর বিষয় পর্যালোচনা এবং এ সম্পর্কে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য টাস্কফোর্স গঠন করেছে সরকার। আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হককে সভাপতি করে দশ সদস্যের এ টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।
টাস্কফোর্সের অন্য সদস্যরা হলেন- পররাষ্ট্র মন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, অ্যাটর্নি জেনারেল, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি), প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তরের (ডিজিএফআই) মহাপরিচালক, আইন সচিব, পররাষ্ট্র সচিব এবং জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) মহাপরিচালক।
টাস্কাফোর্সের কার্যপরিধি হলো- বিদেশে অবস্থানরত আসামিদেরকে (বাংলাদেশের নাগরিক) বিচারার্থে ও দণ্ডদানার্থে বাংলাদেশে আনার উদ্দেশ্যে তাদের নামের তালিকা প্রণয়ন এবং যথাযথ সূত্র ব্যবহার করে বিদেশে আসামিদের অবস্থান চিহ্নিতকরণ; সংশ্লিষ্ট দেশ থেকে আসামিদের ফিরিয়ে আনার উপায় নির্ধারণ এবং ফেরৎ আনার কার্যক্রম তদারকি; কোনো আসামি ইতোমধ্যে বিদেশে নাগরিকত্ব গ্রহণ করে থাকলে তাকে ফিরিয়ে আনার উপায় নির্ধারণ ও এ সংক্রান্ত কার্যক্রম তদারকি।
এছাড়া এ সংক্রান্ত অন্য সব কার্যক্রম পরিচালনার বিষয় এই কার্যপরিধির আওতায় পড়ে।
প্রজ্ঞাপনে আরো বলা হয়েছে, ওই টাস্কফোর্সের কার্যক্রম আগের ধারাবাহিকতায় পররবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ওই টাস্কফোর্সকে সাচিবিক সহায়তা দেবে এবং এ টাস্কফোর্স যে কাউকে কো-অপ্ট (নতুন সদস্য নেয়া) করতে পারবে।
উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় মোট ১২ জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ হয়। তাদের মধ্যে সৈয়দ ফারুক রহমান, সুলতান শাহরিয়ার রশিদ খান, বজলুল হুদা, এ কে এম মহিউদ্দিন আহমেদ ও মুহিউদ্দিন আহমেদের ফাঁসি কার্যকর হয় ২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি। ওই রায় কার্যকরের আগেই ২০০২ সালে পলাতক অবস্থায় জিম্বাবুয়েতে মারা যান আসামি আজিজ পাশা। পলাতক বাকি ছয়জন হলেন- খন্দকার আবদুর রশিদ, শরিফুল হক ডালিম, এস এইচ এম বি নুর চৌধুরী, এ এম রাশেদ চৌধুরী, আবদুল মাজেদ ও মোসলেম উদ্দিন। আসামিরা সবাই সাবেক সেনা কর্মকর্তা।
অপরদিকে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে নিউইয়র্কে অবস্থানরত জামায়াতে নেতা আশরাফুজ্জামান খানের মৃত্যুদণ্ড এবং যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত আরেক নেতা চৌধুরী মুঈনুদ্দীনেরও মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। জামায়াতের সাবেক রুকন মাওলানা আবুল কালাম আজাদ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। তিনিও বিচারের শুরু থেকেই পলাতক।
এছাড়া বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান যুক্তরাজ্যে অবস্থান করছেন। দুর্নীতি ও মানিলন্ডারিং মামলায় তার বিরুদ্ধেও বিচার চলছে। দণ্ডপ্রাপ্ত এই আসামিদের সবার অবস্থান এখনো জানে না সরকার। আর যাদের সম্পর্কে নিশ্চিত তথ্য রয়েছে সেসব দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের বন্দি প্রত্যর্পণ চুক্তি নেই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ