• বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৩৩ অপরাহ্ন |

মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সংবর্ধনা পেলেন খালেদা জিয়া

Khalada-1ঢাকা: মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সংবর্ধনা পেলেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল তাকে এ সংবর্ধনা দিল।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে তার হাতে এ সম্মাননা স্মারক তুলে দেন সংগঠনের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত এবং এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ।

‘মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস’ উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য আরো ৬ মুক্তিযোদ্ধাকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

খালেদা জিয়াকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সম্মাননা দেওয়ার আগে দলটির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার পরে জিয়াউর রহমানের সহধর্মিনী হিসেবে খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারের জন্য পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী হন্যে হয়ে খুঁজেছে। মার্চ থেকে মে পর্যন্ত চট্টগ্রামের বিভিন্ন বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে গ্রেফতার করা হয় তাকে।’

অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য মরোণত্তর সম্মাননা ক্রেস্ট দেওয়া হয় বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে। তার পক্ষে খালেদা জিয়ার হাতে স্মারক তুলে দেন মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত।

এছাড়াও মুক্তিযুদ্ধের সময়ে বিবিসিতে (ব্রিটিশ ব্রডকাস্টিং করপোরেশন) কর্মরত সাংবাদিক সিরাজুর রহমান, ল্যান্স নায়েক আবুল হাসেম (বীর বিক্রম), ক্যাপ্টেন আবদুল হাই (বীর বিক্রম), মুক্তিযুদ্ধে ৯ নম্বর সেক্টরে যুদ্ধে অংশ নেওয়া নারী মুক্তিযোদ্ধা আলম তাজ বেগম ছবি এবং মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলামকে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন খালেদা জিয়া।

এর মধ্যে নুরুল ইসলাম রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন ও তাজ বেগম ক্যান্সারে আক্রান্ত। তাদের আর্থিক সহায়তা ও চিকিৎসার জন্য সম্মাননা স্মারকের পাশাপাশি নগদ ১ লাখ টাকা আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়। সাংবাদিক সিরাজুর রহমান ও তাজ বেগমের পক্ষে তানিমা রহমান খান পুরস্কার গ্রহণ করেন।

মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত সোমবার রাইজিংবিডিকে বলেছিলেন, ক্যান্টনমেন্ট থেকে জিয়াউর রহমান যখন যুদ্ধে যান, তখন তিনি (জিয়াউর রহমান) তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাননি। তাকে প্রশ্ন করা হলে তিনি উত্তর দিয়েছিলেন, ‘আমি ইচ্ছে করলেই ক্যান্টনমেন্টে আমার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে পারব। কিন্তু আমার সঙ্গে থাকা এত মানুষ কীভাবে তাদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করবেন? এর পর থেকে যুদ্ধ চলাকালীন প্রায় নয় মাস খালেদা জিয়া তার পরিবার নিয়ে এক প্রকার অবরুদ্ধ জীবনযাপন করেছেন। যা একজন মুক্তিযোদ্ধার চেয়ে কোনো অংশে কম নয়। এজন্য আমরা তাকে সংবর্ধনা দেওয়ার জন্য নির্বাচিত করেছি। এটা ম্যাডামও জানেন।’

উলফাত আরো জানিয়েছেন, মুক্তিযোদ্ধাদের এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানটি আরো বড় করে করার পরিকল্পনা ছিল। মুক্তিযুদ্ধকালীন যেসব বিদেশি ও প্রবাসী মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কাজ করেছেন, তাদেরও সংবর্ধনা দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু সুযোগ ও সময় স্বল্পতার কারণে তা করা সম্ভব হয়নি। ভবিষ্যতে আরো ব্যাপকভাবে এ অনুষ্ঠান করা হবে।

অনুষ্ঠানে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ব্যারিষ্টার শাহজাহান ওমর, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিম, মুক্তিযোদ্ধা দলের উপদেষ্টা ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। সভায় বাংলাদেশ পলিসি ফোরাম ক্যামব্রিজ নির্মিত ‘দি লিজেন্ড অফ শহীদ জিয়া এন্ড দি ইন্ডিপেন্ডেন্স অব বাংলাদেশ’ শীর্ষক একটি প্রামাণ্য চিত্র উপাস্থাপন করা হয়।
রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ