• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৭:১০ পূর্বাহ্ন |

বিএনপির ওয়েবসাইটেই জিয়া সপ্তম রাষ্ট্রপতি

BNP WEBসিসি ডেস্ক: প্রয়াত জিয়াউর রহমানকে বাংলাদেশের ‘প্রথম’ রাষ্ট্রপতি হিসেবে দাবি করা নিয়ে রাজনীতিতে নতুন বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। জিয়াউর রহমানের বড় ছেলে তারেক রহমান হয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার কণ্ঠে এ সুর ওঠার পর জবাব এসেছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মুখ থেকে।
খোদ বিএনপির ওয়েবসাইটেও জিয়াউর রহমানকে বাংলাদেশের সপ্তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে দেখানো হয়েছে।
গত মঙ্গলবার লন্ডনে এক অনুষ্ঠানে তারেক রহমান দাবি করেন, তার পিতা জিয়াউর রহমান ছিলেন বাংলাদেশের ‘প্রথম’ রাষ্ট্রপতি ও ‘স্বাধীনতার ঘোষক’।
সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে এ দাবির সমালোচনার মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাজধানীতে অপর এক অনুষ্ঠানে তারেক জিয়ার মা খালেদা জিয়া বলেন, তার স্বামীই ছিলেন দেশের ‘প্রথম’ রাষ্ট্রপতি।
বিএনপির দলীয় ওয়েবসাইটের (https://bangladeshnationalistparty-bnp.org) তথ্যই দলটির দুই কাণ্ডারি খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বক্তব্যকে মিথ্যা প্রমাণ করেছে।
বিএনপিকে বলা হয়েছে, ‘১৯৭৮ সালে বাংলাদেশের সপ্তম রাষ্ট্রপতি মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান দ্বারা প্রতিষ্ঠিত দলটি দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম শক্তিশালী দল।’
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঢাকায় ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স (আইডিবি) মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের এক অনুষ্ঠানে খালেদা বলেন, ‘তারা যতোই বলুক, কিন্তু প্রকৃত ইতিহাস হচ্ছে, ‘স্বাধীনতার ঘোষক’ ও ‘প্রথম রাষ্ট্রপতি’ জিয়াউর রহমান।’
একই দিন বিকেলে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত দলের আলোচনা সভায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, তারা (বিএনপি নেতারা) এখন ফর্মুলা পাল্টেছেন। এতোদিন তারা বলেছেন, জিয়া স্বাধীনতার ‘ঘোষক’; এখন বলছেন, ‘প্রথম রাষ্ট্রপতি’। স্বাধীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রথম রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
তিনি বলেন, সত্তরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিলো। সেই নির্বাচিত প্রতিনিধিরা ১০ এপ্রিল সরকার গঠন করেন। ১৭ এপ্রিল শপথগ্রহণ করেন। সে সরকারে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রাষ্ট্রপতি, সৈয়দ নজরুল ইসলাম উপ ও অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি, তাজউদ্দিন আহমেদ প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রথম রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ।
শেখ হাসিনা আরো বলেন, পঁচাত্তরের পর জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে রাজাকার শাহ আজিজুর রহমানকে প্রধানমন্ত্রী বানালেন, মান্নান খানকে মন্ত্রী বানালেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের পুনর্বাসন করলেন। জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষক হলে কিভাবে তিনি এদের জন্য এসব করেছেন?
তিনি বলেন, টিআইএসহ বিদেশি বিভিন্ন সংস্থা, দেশি-বিদেশি পত্র-পত্রিকা সব জায়গাতেই আছে কে ২৬ মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন।
আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, তারা কিছু অর্বাচীন কথা বলছেন মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য, মানুষের মনে সন্দেহ নিয়ে আসার জন্য। মিথ্যাচার করা যাদের অভ্যেস, মিথ্যার ওপর যাদের জন্ম, অবৈধভাবে যাদের জন্ম, অসাংবিধানিকভাবে যাদের জন্ম তাদের কাছ থেকে ভালো কথা আশা করা যায় না।
একাত্তরের ২৫ মার্চ কালরাতে হানাদার পাকিস্তানি সামরিক জান্তা নিরস্ত্র বাঙালির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে বিশ্বের ইতিহাসের নৃশংসতম নারকীয় গণহত্যা চালায়। তারা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করে পাকিস্তানে নিয়ে যায়। গ্রেফতার বরণের আগে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করে গেলে পুরো জাতি দখলদার পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। বঙ্গবন্ধুকে রাষ্ট্রপতি, সৈয়দ নজরুল ইসলামকে উপ ও অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি, তাজউদ্দিন আহমেদকে প্রধানমন্ত্রী করে গঠিত স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী সরকারের নেতৃত্বে নয় মাসের রক্তক্ষয়ী সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রথম রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান- এ কথা তাই ইতিহাসের অমোঘ সত্য।
অন্যদিকে খালেদা জিয়ার স্বামী মুক্তিযুদ্ধের সময়কার মেজর জিয়াউর রহমান ১ নম্বর সেক্টরের অধিনায়ক ছিলেন। পরে তিনি জেড ফোর্সের অধিনায়ক নিযুক্ত হন। ২৭ মার্চ তিনি স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রে বঙ্গবন্ধুর নামে স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করেন। পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর ক্ষমতার কেন্দ্রে আসেন জিয়াউর রহমান। পরে তিনি বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হন।     উৎসঃ   বাংলানিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ