• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৪৩ পূর্বাহ্ন |

বিএনপি-জামায়াতকে চাপে রাখতে আ.লীগের নানা কৌশল

Awamili Flagসিসি নিউজ: উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতের সাফল্যে আওয়ামী লীগে শঙ্কা বিরাজ করছে। দলটির নেতাদের ধারণা, নির্বাচনী সাফল্যকে কাজে লাগিয়ে আবার আন্দোলনের মাঠ গরম করতে পারে বিরোধী জোট। আর উপজেলা নির্বাচনের পরও যেন বিরোধী জোট মেরুদন্ড সোজা করে দাঁড়াতে না পারে এই লক্ষে সরকারী দল নানান কৌশল হাতে নিয়েছে।
আওয়ামী লীগের কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তারা বিরোধী জোটের আন্দোলনের হুমকিকে একেবারে হালকা করে দেখছে না। এ কারণে আন্দোলন মোকাবেলায় আগেভাগেই প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হচ্ছে।
সারাদেশে বিরোধী জোট ব্যাপক আন্দোলন করলেও ঢাকা ছিল সবসময়ই আওয়ামী লীগের নিয়ন্ত্রণে। অপর পক্ষে ঢাকাতে আন্দোলন জমাতে না পেরে খালেদা জিয়া ঘোষণা দিয়েছে যে দল গুছিয়ে আবার আন্দোলন শুরু করবেন। কিন্তু জাতীয় নির্বাচনের পর থেকে এখন পর্যন্ত বিএনপি ঢাকায় নতুন কমিটি দিতে ব্যর্থ হয়েছে।
বিএনপি ব্যর্থ হলেও আওয়ামী লীগ ঢাকায় কাউন্সিল শুরু করেছে এবং তা প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে। সবগুলো কাউন্সিল শেষ হয়ে গেলে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা নিজেই এই নতুন কমিটির অনুমোদন করবেন।
কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সাম্প্রতিক উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত সম্মিলিতভাবে কিছুটা এগিয়ে রয়েছে। আর এই সাফল্যের জের ধরে তারা নির্বাচনের পর আবার আন্দোলন শুরু করতে পারে। সেই আন্দোলনে বিএনপি একা আওয়ামী লীগ সরকারের কিছু করতে পারবে না। তারা জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে সহিংস আন্দোলন করবে বলে আওয়ামী লীগের আশঙ্কা। এ কারণে জামায়াতকে ক্ষমতাসীন দল যেভাবেই হোক দমিয়ে রাখতে চায়।
সূত্র জানায়, জামায়াতকে দমন করতে পারলে বিএনপিকে দমন করা একেবারেই সহজ হয়ে যাবে বলে মনে করছে আওয়ামী লীগ। এই লক্ষে আগামী সংসদেই জামায়াত নিষিদ্ধের বিল তোলা হবে।
বিএনপিও যেন কিছু করতে না পারে সেই জন্য খালেদা জিয়া ও তারেক জিয়ার বিরুদ্ধেও মামলার গতি বেড়েছে। এছাড়া বিএনপির আন্দোলন করার মত নেতাদের বিভিন্ন মামলায় ব্যস্ত রাখা হবে যেন তারা মাঠে নামতে না পারেন।
এছাড়া টিআইবি, সুজনসহ কিছু এনজিওর কর্মকান্ডের ফলাফল সব সময় বিএনপি-জামায়াতের পক্ষে যাচ্ছে বলে তাদের দিকেও বিশেষ নজর দেয়া হবে।
ইতিমধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এক সভায় খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলামকে বলেছেন, মন্ত্রিপরিষদ বৈঠকে এই এনজিওগুলোর আয়ের উৎস খতিয়ে দেখার জন্য। এসময় তিনি বলেন, আপনি এদের আয়ের উৎস খতিয়ে দেখার প্রশ্ন তুলবেন। আমি সেই প্রশ্নে সমর্থন করব।
এ ব্যাপারে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, কোনো নির্দিষ্ট জোটকে দমন করা গণতন্ত্রের সাথে মানানসই নয়,এটা অত্যন্ত গর্হিত কাজ।
তিনি বলেন, ‘আমাদের আয়ের উৎস সব সময় সরকারের জন্য উন্মূক্ত। যে কোনো সময় তারা চাইলেই দেখতে পারে। তবে পরামর্শ দেব-প্রতিবেদন প্রকাশকারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার চেয়ে প্রতিবেদনে কি বলা হচ্ছে সেটাই আমলে নেয়া উচিৎ হবে। তাহলেই তা দেশের জন্য এবং সরকারী দলের জন্য কল্যাণকর হবে।’
তিনি বলেন, ‘আমাদের প্রতিবেদন প্রকাশের পর অতীতে অনেকের থলের বিড়াল বেরিয়ে গেছে। আশা করছি আগামীতেও বের হবে।’
তবে বিরোধী জোটকে চাপে রাখতে সরকারীদলের এই কৌশলগুলোকে সরাসরি প্রয়োগ করা হবে না।আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে চাপের মধ্যে রাখা হবে বিরোধী জোটের আন্দোলনকে।
তবে বিরোধী জোটকে চাপে রাখার কথা সরাসরি স্বীকার করতে নারাজ আওয়ামী লীগের নেতারা।
দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘বিএনপি আন্দোলন করবে এটা এখন হাস্যকর কথায় পরিণত হয়ে গেছে। তারা যে আন্দোলন করবে তা আমাদের বিশ্বাস হয় না।আর করলেও তা মোকাবেলার জন্য আমরা প্রস্তুত আছি। তাদেরকে আগামীতে আমরা কোন পাত্তা দেব না।’
টিআইবির মন্তব্যের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘টিআইবি সুজনসহ কিছু এনজিও ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনও চায়নি।এখন এই সংসদ থাক তারা এটা চায় না। এরা কিছু বললেই কি, না বললেই কি।’
উৎসঃ   আরটিএনএন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ