• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন |

বিএনপি-জামায়াত টানাপড়েন

bnp-jamat2সিসি নিউজ: উপজেলা নির্বাচনে প্রধান শরিক জামায়াতের সাফল্যেকে ভালো চোখে দেখছে না বিএনপি। এ পর্যন্ত যতগুলো উপজেলায় নির্বাচন হয়েছে, তাতে বিএনপি প্রার্থীদের বিপর্যয় হলেও এক্ষেত্রে বেশ সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে জামায়াত। এতে বিএনপির সবচেয়ে কাছের মিত্র হলেও উপজেলা নির্বাচনে জামায়াতের সাফল্যেকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে টানাপড়েন শুরু হয়েছে। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করে জানা গেছে, বিএনপি-জামায়াত জোটভুক্ত থাকলেও উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী দেয়ার ক্ষেত্রে তাদের মধ্যে কোনো সমন্বয় ছিল না। অনেক স্থানে বিএনপি প্রার্থীকে হারিয়ে জামায়াত প্রার্থী জয়লাভ করেছেন। বিএনপি নেতাদের অভিযোগ, প্রার্থী দেয়ার ক্ষেত্রে সমন্বয় থাকলে জয়ের দিক থেকে উভয় দলের পাল্লাই ভারী হতো। চার দফা উপজেলা নির্বাচনে জামায়াত পেয়েছে চেয়ারম্যান ৩৩টি, ভাইস চেয়ারম্যান ৯৯টি ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের ২৯টি। তাদের এ সাফল্যে বিএনপিরই অনেক নেতা জামায়াতের তীব্র সমালোচনা করছেন। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করে জানা গেছে, মঙ্গলবার খালেদা জিয়ার বাসায় বসে কয়েকজন নেতা কথা বলছিলেন। এ সময় উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কথা উঠলে জামায়াতের সাফল্যের কথা আসে। নেতারা তখন বলেন, ১৯ দলীয় জোটের মধ্যে সমন্বয় থাকলে ফলা ফল আরও তাদের পক্ষে যেত। খালেদা জিয়াকে আরও জানানো হয়, অনেক স্থানে জামায়াতের প্রার্থী না থাকলেও সেখানকার জামায়াতের নেতারা আওয়ামী লীগ অথবা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। এ ধরনের খবরে খালেদা জিয়া অসন্তোষ প্রকাশ করেন। ১৯ দলীয় জোটের একক প্রার্থী দেয়া নিয়ে জটিলতার কথা স্বীকার করে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটি সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, মাঠের দৃশ্য বিএনপির পক্ষে থাকলেও ফসল গোলায় আসছে না। জামায়াতের কারণে ১৯ দলীয় জোটের ‘স্পিরিট’ ও সমর্থন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। বিএনপির প্রার্থীকে জামায়াত সমর্থন না দিয়ে তারাও প্রার্থী দিচ্ছে। এর প্রভাব পড়ছে ফলে। তবে আগামী নির্বাচনে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয়ভাবে দুই দলের প্রার্থীর মধ্যে সমন্বয়ের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি। উপজেলা নির্বাচনের ফলাফলে জামায়াত চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মিলে ১৬১টি পদে বিজয়ী হয়েছে। চতুর্থ দফা উপজেলা নির্বাচনের ফলাফল বিপর্যয়ের পেছনে ক্ষমতাসীনদের ভোট ডাকাতি, কেন্দ্র দখলসহ সন্ত্রাসী কর্মকাকে দায়ী করার পাশাপাশি একক প্রার্থী প্রদানে জামায়াতের সঙ্গে সমন্বয়হীনতাকেও বড় করে দেখছে বিএনপি। তবে এজন্য জামায়াতেরও পাল্টা অভিযোগ রয়েছে ১৯ দলীয় জোটের প্রধান দল বিএনপির বিরুদ্ধে। এ নিয়ে বিএনপি ও জামায়াতের মধ্যে টানাপড়েন শুরু হয়েছে। সব পর্বে ১৯ দলীয় জোট সমন্বিতভাবে একক প্রার্থী দিলে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের জয়ের সংখ্যা কমার পাশাপাশি বিএনপি-জামায়াতের পাল্লা ভারী হতো বলে উভয় পক্ষ স্বীকার করেছে। তবে পঞ্চম পর্বেও একক প্রার্থী দেয়া নিয়ে এ দল দুটির মধ্যে বিরাজমান টানাপড়েন আরও বেড়েছে। এ নিয়ে কার্যকর কোনো সমাধান হওয়ার সম্ভাবনা নেই বলে সংশ্লিষ্টরা মন্তব্য করেছেন। চতুথ পর্বে ১৫টি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দিয়ে পাঁচটিতে জয় পেয়েছে জামায়াত সমর্থিতরা। এছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫৩টিতে প্রার্থী দিয়ে ২২টিতে এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১২টিতে প্রার্থী দিয়ে পাঁচটিতে জয় পেয়েছে জামায়াত। অপরদিকে তিনটি ছাড়া সবক’টিতে চেয়ারম্যান পদে বিএনপি প্রার্থী দিলেও জয় পেয়েছে মাত্র ২৩টিতে। আর ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৫টিতে ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৪টিতে জয় পেয়েছে বিএনপি সমর্থিতরা। বেশিরভাগ জায়গায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের সঙ্গে বিএনপি ও জামায়াত আলাদাভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করায় দল দুটির ফলাফলে বিপর্যয় হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ। সূত্রমতে, উপজেলা নির্বাচনে বিজয় বা ভোটপ্রাপ্তির হার বাড়ানোকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে বর্তমানে কোণঠাসা দল জামায়াত। এজন্য আগের চার পর্বের মতো পঞ্চম পর্বেও সর্বোচ্চ সংখ্যক পদে প্রার্থী দিয়ে বিজয়ের ধারাবাহিকতা বজায় রাখার উদ্যোগ নিয়েছে দলটি। ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য ৭৩টি উপজেলা নির্বাচনে ২১টিতে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দিয়েছে জামায়াত। এর মধ্যে কয়েকটি ছাড়া সবখানেই প্রার্থী দিয়েছে বিএনপি। এমনকি অনেক উপজেলায় বিএনপির একাধিক প্রার্থীও রয়েছে। পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫২টিতে ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৯টিতে প্রার্থী দিচ্ছে জামায়াত। এসব পদে বেশিরভাগ এলাকায় বিএনপি জামায়াতের মধ্যে সমন্বয় হলেও চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী নিয়ে বেকায়দায় রয়েছে দল দুটি। বিশেষ করে একক প্রার্থী দিতে বিএনপির কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা দেয়া হলেও অনেক জায়গায় তা আমলে নিচ্ছেন না স্থানীয় নেতারা। এমনকি নির্দেশনা অমান্য করার কারণে বেশ কয়েকজনকে বহিষ্কার করার ঘটনাও ঘটেছে। তবে এতেও কোনো কাজ হয়নি। বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তারা। এমনকি একক প্রার্থী দেয়া নিয়ে এবার জামায়াতও বেকায়দায় পড়েছে। পাবনার বেড়া উপজেলায় জামায়াতের প্রার্থী দেয়া হলেও পরে হাইকমান্ডের পরামর্শে সেখানে বিএনপি প্রার্থীকে সমর্থন দেয়াকে কেন্দ্র করে এ জটিলতা সৃষ্টি হয়। জামায়াতের সংশ্লিষ্ট প্রার্থী দলীয় নির্দেশনা না মেনে দল থেকে পদত্যাগ করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

তবে উপজেলা নির্বাচন নিয়ে জামায়াতের নেতারা কোনো কথা বলতে রাজি হননি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জামায়াতের এক নেতা বলেন, জামায়াতের জনসমর্থন বেড়ে যাওয়ার কারণে এবার বেশি সংখ্যক প্রার্থী দেয়া হচ্ছে। তবে অধিকাংশ উপজেলায় একাধিক প্রার্থী দেয়া হলেও এ নিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে জোটের মধ্যে কোনো সমস্যা নেই বলেও তিনি দাবি করেন

উৎসঃ   আলোকিত বাংলাদেশ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ