• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৭:০৮ পূর্বাহ্ন |

নওগাঁয় হাত বাড়ালেই মিলছে মাদক

Naogaon Picture 29-03-2014_1আশরাফুল ইসলাম, নওগাঁ: হাত বাড়ালেই মেলে মাদক আর সন্ধ্যা হলেই জুয়ার সাথে দেহ ব্যবসা। এমনই এক গ্রামের নাম বাহাদুরপুর। নওগাঁর রানীনগর উপজেলা সদর থেকে একটু দুরেই গ্রামটি। গ্রামের বেশ কয়েকটি বাড়িতে সব সময় পাওয়া যায় দেশী মদ, হেরোইন, ইয়াবা, গাঁজা, ফেনসেডিলসহ নানা প্রকার মাদকদ্রব্য। পাশাপাশি প্রতি রাতেই চলে জুয়ার আসর। হাতের কাছে মাদকদ্রব্য পাওয়ায় আসক্ত হয়ে পড়ছে উর্তি বয়সের ছেলেরা। গ্রামের কতিপয় চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে এলাকার মানুষ। এইসব চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীরা আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সাথে যোগসাজশে এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে মাদকদ্রব্য বিক্রি করে আসছে দেদারছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, গ্রামের বিভিন্ন স্থানে পড়ে রয়েছে ইনজেকশনের সিরিঞ্জ, ফেনসেডিলের বোতল। আর প্রকাশ্যে চলছে জমজমাট জুয়ার আসর। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন গ্রামবাসী বলেন, গ্রামের আব্দুল লতিফের স্ত্রী মালা আকতার ও তার পরিবারের সদস্যরা এলাকার প্রভাবশালী মহলের আশির্বাদে ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার যোগসাজশে বেশ দাপটের সাথে মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছে। শুধু তাই নয় চলছে দিন-রাত দেহ ব্যবসা। সন্ধ্যার পর থেকে তার বাড়িতে অচেনা মানুষদের যাতায়াত করতে দেখা যায়। দেখা যায় প্রশাসনের বিভিন্ন লোকদেরও। একাধিকবার কারাভোগের পর ছাড়া পেয়ে ফিরে যায় মাদক ব্যবসায়। তার এসব কর্মকান্ডে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী।
ওই গ্রামের প্রধান মোজ্জাম্মেল হোসেন ও আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এইসব চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কোন কিছু করতে গেলেই এলাকার প্রভাবশালীদের হাতে বিভিন্নভাবে তাদের লাঞ্চিত হতে হয়। ওই গ্রামের কালামের ছেলে জুয়েল, ছালামের ছেলে রাজু, পাশের পূর্ব-বালুভরা গ্রামের মৃত গফুরের ছেলে মাজেদুল ইসলাম ও ইবির উদ্দিনের ছেলে মোহন এলাকার মাদক ব্যবসার গডফাদার। প্রশাসনের সাথে এদের রয়েছে মধুর সম্পর্ক। এছাড়াও পূর্ব-বালুভরা গ্রামের প্রায়ই সকলেই এই অবৈধ মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত দীর্ঘদিন থেকে। একই গ্রামের নুর ইসলাম বলেন, আমার ১৫ বছরের একমাত্র ছেলে বন্ধুদের পাল্লায় পড়ে ও হাতের নাগালে মাদকদ্রব্য পেয়ে সে আজ মাদকাসক্ত। একই গ্রামের ফল ব্যবসায়ী মেছের আলীর দুই ছেলে, সার আলীর এক ছেলেসহ অসংখ্য তরুনরা আজ মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। তাদের অভিযোগ বাহাদুরপুর গ্রাম থেকে মাদকের এই ব্যবসা উচ্ছেদ না হলে এই এলাকাসহ আশেপাশের এলাকার তরুন সমাজকে মাদকের এই অন্ধকার জগত থেকে আর রক্ষা করা যাবে না।
এ বিষয়ে রানীনগর থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল মাসউদ চৌধুরী মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে পুলিশের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এই থানায় যোগ দেয়ার পরপরই মালাকে আটক করে কোর্টে চালান করেছিলাম। কিন্তু আদালত তাকে জামিন দিয়েছে। আর মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ