• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৫২ অপরাহ্ন |

রাজারহাটে বৃদ্ধের আত্মহত্যা

Attohottaরাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের রাজারহাটে মোজাহার আলী (৮০) নামের এক বৃদ্ধ গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এ ঘটনায় এলাকা জুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। জানা যায়, উপজেলার চাকিরপশার ইউপি’র রতিরাম কমলওঝাঁ গ্রামের ৫ সন্তানের জনক মোজাহার আলী দীর্ঘদিন ধরে নানান রোগে ভুগছিলেন। রোগের জ্বালা-যন্ত্রনা সহ্য করতে না পেরে বিকেলে পরিবারের সকলের অজান্তে তার শয়ন ঘরের তীরের সঙ্গে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এ ঘটনায় রাজারহাট থানায় একটি ইউডি মামলা দায়ের হয়েছে।
 চুরি হওয়া দু’টি গরু উদ্ধার
কুড়িগ্রামের রাজারহাটে চুরি হওয়া দু’টি গরু উদ্ধার করা হয়েছে। শুক্রবার রাত ৮টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এলাকাবাসীর সহায়তায় রাজারহাট সদর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ এনামুল হক মেকুরটারী গ্রামের আফজাল হোসেন-এর পুত্র মজিবর রহমানের বাড়ি থেকে চুরিকৃত দু’টি গরু উদ্ধার করে চেয়ারম্যান তার জিম্মায় নিয়েছেন। ওই সময় মজিবর রহমান বাড়ি থেকে সটকে পড়ে। এক পর্যায়ে মজিবর রহমানকে স্থানীয় ১০-১২ জন যুবক ধরে ওই রাতে ১০ হাজার টাকায় রফা-দফা করে তাকে ছেড়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, মেকুরটারী এলাকার ভ্যান চালক মজিবর রহমান (৩০) ও তার ভায়রা লালমনিরহাট সদরের খেদাবাগ এলাকার স্বপন মিয়া (২৫) দীর্ঘদিন ধরে গরু চোরাইয়ের সিন্ডিকেট’র সঙ্গে জড়িত। সে বিভিন্ন স্থান থেকে চুরি করা গরু নিয়ে এসে তার ভায়রার বাড়িতে রাখে এবং সেখান থেকে মজিবর ও স্বপন দু’জনে এলাকার কিছু অসাধু মাংস ব্যবসায়ী (কসাই) এর সঙ্গে গোপন আতাঁতের মাধ্যমে চোরাইকৃত একাধিক গরু বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে। মাংস বিক্রেতা সদর ইউপি’র মোঃ ফজলুল হক (৪০) বলেন, মজিবর ও তার ভায়রা গরুর ব্যবসা করে বলে আমাকে একটি বলদ গরু বিক্রির কথা বললে আমি গিয়ে দেখি ওই গরুটি লালমনিরহাট সদরের বড়বাড়িহাট শিবরাম গ্রামের মৃতঃ আশরাফ আলীর পুত্র হতদরিদ্র কৃষক এন্তাজ আলীর। সম্প্রতি আমি ওই এলাকায় বিয়ের দাওয়াতে গিয়েছি এবং গরুটি বিক্রি করার কথা শুনে কিনতে গিয়েছিলাম। কিন্তু দাম বনি-বনা না হওয়ায় কেনা সম্ভব হয়নি। পরে তিনি শুক্রবার মজিবরের বাড়িতে বলদটি দেখে বিষয়টি তিনি এন্তাজ আলীর নিকট আত্মীয় রফিকুল ইসলামকে অবহিত করলে রাজারহাট সদর ইউপি’র চেয়ারম্যানের সহায়তায় শুক্রবার রাতে ওই বলদটি সহ একটি বকনা গরু উদ্ধার করে। পরে বলদ গরুটি ওই এলাকার স্থানীয় ইউপি সদস্য ও গরুর মালিক এন্তাজ আলীর নিকট গতকাল শনিবার বিকেলে হস্তান্তর করেন চেয়ারম্যান। এ বিষয়ে সদর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ এনামুল হকের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, মজিবর রহমান দীর্ঘদিন ধরে তার ভায়রা স্বপনসহ রাজারহাট উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী লালমনিরহাট সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতি মাসে ১৫-২০টি করে গরু চুরি করে মজিবরের বাড়িতে রেখে বিক্রি করে আসছে বলে এলাকাবাসীর কাছ থেকে শুনেছি। বিষয়টি নিয়ে তিনি সন্ধ্যার পর ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে মজিবর ও স্বপনসহ এ চুরির সঙ্গে জড়িতদের নিয়ে শালিস বৈঠকে উপস্থিত হতে বলেছেন এবং তারা উপস্থিত না হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ