• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১১:০৫ অপরাহ্ন |

সরকারকে জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের চ্যালেঞ্জ খালেদার

khaladaঢাকা: নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে সরকারকে জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। সরকারকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘সাহস থাকলে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন। বহুত হয়েছে, জনগণের টাকা অপচয় করে ‘অবৈধ’ পার্লামেন্টের প্রয়োজন নেই। পদত্যাগ করে দ্রুত নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন।’

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের ‘দ্বি-বার্ষিক কাউন্সিল অধিবেশন ২০১৪’ তে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

খালেদা জিয়া বলেন, ‘সময়, কাল নির্ধারণ করে আন্দোলন হয় না। প্রতিনিয়তই আন্দোলন চলছে, চলবে।’সেসময় উপজেলা নির্বাচনের পর বৃহৎ আন্দোলনের ইঙ্গিত দেন তিনি।

‘লাখো কণ্ঠে সোনার বাংলা’ অনুষ্ঠানের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘শত কোটি টাকা খরচ করে জাতীয় সংগীত গেয়ে কোনো লাভ হবে না। গণঅভ্যূত্থানের মাধ্যমে যখন বিদায় হবেন সেটিই আসল কাজ হবে। তখন এটিই গিনেস বুকে নাম আসবে।’

‘ওই অনুষ্ঠানে দু’হাজার মানুষ আহত হয়েছেন, অনেকে নির্যাতিত হয়েছেন। টাকা দিয়ে মানুষ ভাড়া করে আনা হয়েছে। আমাদের মানুষ আনতে টাকা লাগবে না। স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলনে লোকে লোকারণ্য হয়ে যাবে।’

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থেকে ইতিহাস নিয়ে মিথ্যাচার করছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘নতুন প্রজন্মকে সঠিক ইতিহাস জানাতে হবে। এজন্য মুক্তিযোদ্ধাদের জীবদ্দশায় প্রকৃত ইতিহাস লিখে যাওয়া প্রয়োজন। আওয়ামী লীগ শুধু রাজাকার রাজাকার করে, অথচ তার দলেই রাজাকারে ভরা। এগুলো আগে খুঁজে বের করুন।’

তিনি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের সময়ে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর এবং এখন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ পাকিস্তান সরকারের চাকরি করতেন। রাজাকারের বিচার হলে তাদের তো জেলে থাকার কথা।’

দুর্নীতির দুই মামলায় চার্জ গঠন যথাযথ প্রক্রিয়ায় হয়নি অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘তিন ঘণ্টা বসিয়ে রেখে হঠাৎ করে এসে চার্জ গঠনের কথা জানানো হয়েছে। কিছু বুঝলামও না, কিছু শোনাও হলো না। বিচারক উঠে গিয়ে ফোনে কথা বলে অভিযোগ গঠন করে ফেললেন। আমরা এটা মানি না। সরকার বিচার বিভাগ ধ্বংস করে ফেলেছে।’ সারাদেশে নেতাকর্মীদের নামে মামলা প্রত্যাহার ও গ্রেফতারকৃতদের নি:শর্ত মুক্তি দাবি করেন তিনি।

সরকারকে আবারো ‘অবৈধ’ আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, ‘সরকার দেশ চালাচ্ছে না, মানুষের ওপর জুলুম চালাচ্ছে। দেশের গণতন্ত্র আজ মৃত। দেশ ও মানুষের স্বার্থে এ সরকারের পতন ঘটাতে হবে। কারণ এ সরকারের হাতে কোনো পেশার মানুষই নিরাপদ নয়।’ জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করার জন্য দেশবাসীকে আহ্বান জানান খালেদা জিয়া।

বিএনপি চেয়ারপারসন অভিযোগ করেন, ‘দেশের মানুষ কাজ পাচ্ছে না। অথচ অন্য দেশের জনগণ অনুমতি ছাড়া, ওয়ার্ক পারমিট ছাড়া বছরের পর বছর এদেশে কাজ করে যাচ্ছেন। একটি বিশেষ দেশকে এ সুবিধা দেওয়া হচ্ছে।’

গত পাঁচ বছরে দেশে কোনো উন্নতি হয়নি দাবি করে তিনি বলেন, ‘তারা (সরকার) শুধু লুটপাট করেছে। পদ্মা সেতু, ব্যাংক, শেয়ার বাজার, বিসমিল্লাহ, হলমার্ক, ডেসটিনিসহ সবক্ষেত্রেই লুটপাট করে নিজেদের পকেট ভারি করেছে।’

‘যুদ্ধের পর যেসব পাকিস্তানি ও ভারতের লোকজন পালিয়ে গেছে তাদের বাড়িঘর লুটপাট করেছে আওয়ামী লীগের লোকজন। ক্ষমতাসীনরা মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের নয়, তারা মিথ্যার পক্ষের শক্তি।’

উপজেলা নির্বাচনের মাধ্যমে প্রমাণ হয়েছে দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়-মন্তব্য করে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, ‘দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন গ্রহণযোগ্য ও অবাধ হবে না। এজন্য দেশের জনগণ ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের ভোট কেন্দ্রে না গিয়ে এর পক্ষে রায় দিয়েছে।’
আওয়ামী লীগ বারবার গণতন্ত্র হত্যা করেছে বলে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘মোশতাক, এরশাদ, ফখরুদ্দিন-মঈন সরকার আওয়ামী লীগ এনেছে। তারা (সরকার) বিএনপিকে ধ্বংস করারও ষড়যন্ত্র করেছে। কিন্তু সফল হয়নি।’

‘ফখরুদ্দিন-মঈন আমার কাছে বিভিন্ন সমঝোতার প্রস্তাব নিয়ে এসেছিলো। কিন্তু আমি বলেছি, আপনারা অন্যায় করেছেন। তাই অন্যায়ের সঙ্গে কোনো আপোষ নয়। এজন্য তারা আওয়ামী লীগের সঙ্গে আপোষ করে ক্ষমতায় বসিয়েছে। তাদেরও বিচার হবে। ক্ষমতাসীনদের যারা এর সঙ্গে জড়িত তাদেরও জনগণের কাছে জবাবদিহিতার জন্য আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।’

বর্তমান বিরোধী দলকে গৃহপালিত আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, ‘রওশন চাপে পড়ে নির্বাচন করেছেন বলে প্রচার করেছেন। কোন অপকর্মের চাপে পড়ে তারা নির্বাচনে এসেছে আমরা সেটা জানি। এজন্য তাদের আগে থেকেই প্রস্তুত থাকার দরকার ছিলো।’

‘এখনও সময় আছে সম্মান বাঁচাতে পদত্যাগ করুন। তা না হলে শেষ রক্ষাটুকুও আর থাকবে না।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপদেষ্টাদের দুর্নীতিবাজ হিসেবে অভিহিত করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘কোন প্রকল্প থেকে কিভাবে দুর্নীতি করা যায় তারা শুধু সেসব উপদেশ আর পরামর্শ দেন। তাদের উপদেশ মেনেই কুইক রেন্টাল সৃষ্টি করে আওয়ামী লীগের লোকজনদের লুটপাটের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে। এ প্রকল্পের ঘাটতি মেটাতে বিদ্যুতের দাম বাড়িয়ে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করা হচ্ছে। সড়ক পথে টোল নেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। উপদেষ্টাদের এসব উদ্ভট পরামর্শ নেওয়া বন্ধ করেন। তা না হলে আরো ডুবে যাবেন।’

সরকারকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘ট্রানজিট দিয়ে ভারতের কাছ থেকে ফি নিলে নাকি বেয়াদবি হবে। তাহলে দেশের জনগণের কাছ থেকে টোল নেওয়া কি আদবি হবে? এ সরকারের দেশের মানুষের প্রতি কোনো ভালোবাসা নেই। তারা নিজ দেশের মানুষকে হত্যা করছে, অথচ সীমান্তে মানুষ হত্যা হলে কোনো প্রতিবাদ করছে না।’

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশ) সভাপতি রুহুল আমিন গাজীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিএফইউজের সিনিয়র সহকারী মহাসচিব এম আবদুল্লাহ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবদুল হাই শিকদার,  প্রেসক্লাবের সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজ, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদাল আহমেদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি শামসুল হক, খুলনা মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আনিস-উজ-জামান, বগুড়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সৈয়দ ফজলে রাব্বি ডলার, রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সরকার আবদুর রহমান, কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি বদিউল আলম, কুমিল্লা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি শাহ আলম শফি, কুষ্টিয়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবদুর রাজ্জাক বাচ্চু প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ